ছবি: সংগৃহীত

ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের বিরুদ্ধে ভারতীয় যাত্রীর ভয়াবহ অভিযোগ

কেবিন ক্রু শাসিয়ে বলে, ‘কান্না থামাও, নাইলে জানালা দিয়ে ফেলে দিব’

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ১০ আগস্ট ২০১৮, ১৩:০৭ আপডেট: ১৬ আগস্ট ২০১৮, ১৭:১৬


ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম)  এক ভারতীয় পরিবার অভিযোগ করেছে, তাদের তিন বছর বয়সী শিশু সন্তান বিমানে কান্নাকাটি করার কারণে ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের একটি বিমান থেকে তাদের জোরপূর্বক নামিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং তাদের সঙ্গে বর্ণবৈষম্যমূলক আচরণ করা হয়েছে।

শিশুটির কান্না থামানোর জন্য তার মা ক্রমাগত চেষ্টা করে যাচ্ছিলেন। বিমানটি তখন উড্ডয়নের জন্য রানওয়েতে ছুটছিল। তখনই একজন কেবিন ক্রু এসে তাদের সঙ্গে বাজে ব্যবহার করেন, তাদেরকে ধমক দিয়ে বলেন, ‘কান্না থামান, নাইলে বিমান থেকে বের করে দিব।’ এতে ভড়কে গিয়ে শিশুটি আরও বেশি কান্না শুরু করে।

বিমানটি এরপর উড্ডয়ন না করে পুনরায় রানওয়েতে ফিরে আসে। শিশুটির বাবা-মা ও তাদের পেছনের আসনে বসা আরও কিছু ভারতীয় যাত্রীকে বিমান থেকে নামিয়ে দেওয়া হয়।

২৩ জুলাই ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের লন্ডন থেকে বার্লিনগামী বিমানে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার শিকার ব্যক্তির নাম এপি পতক। তিনি ইন্ডিয়ান ইঞ্জিনিয়ারিং সার্ভিসের ১৯৮৪ ব্যাচের একজন কর্মকর্তা এবং বর্তমানে তিনি ভারতের পরিবহন মন্ত্রণালয়ে কর্মরত আছেন। তিনি, তার স্ত্রী ও তাদের তিন বছর বয়সী শিশু সন্তানকে নিয়ে ওই বিমানে ভ্রমণ করছিলেন।

যুগ্ম সচিব পদমর্যাদার এই সরকারি কর্মকর্তা ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের এমন ‘অপমানজনক ও বর্ণবৈষম্যমূলক’ আচরণের জন্য বিমানমন্ত্রী সুরেষ প্রভুর কাছে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ জানিয়েছেন। ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, ‘আমরা এ ধরনের অভিযোগকে অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে দেখি এবং কোনো ধরনের বৈষম্য আমরা সহ্য করি না। আমরা যাত্রীর সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগস্বরূপ একটি পূর্ণ তদন্ত শুরু করেছি।’

এপি পতক। ছবি: এএনআই

বিমানমন্ত্রীকে পাঠানো চিঠিতে এপি পতক লিখেন, ‘সিট বেল্ট বাঁধার জন্য যাত্রীদের অনুরোধ করা হয়। আমার শিশু সন্তান আমাদের পাশেই আলাদা সিটে বসেছিল। আমার স্ত্রী তার সিট বেল্ট বাঁধছিল। এ সময় সে কিছুটা অস্বস্তিবোধ করে কান্না শুরু করে। আমার স্ত্রী তাকে কোলে নিয়ে কান্না থামানোর চেষ্টা করে। একজন পুরুষ কেবিন ক্রু আমাদের দিকে তেড়ে আসে। তিনি চিৎকার করে আমাদের শিশুকে তার নিজস্ব সিটে বসানোর জন্য বলে। আমার ছেলে আরও ভয় পেয়ে যায় এবং আরও বেশি কান্নাকাটি শুরু করে। আমাদের পেছনে থাকা আরেকটি ভারতীয় পরিবার আমার ছেলের কান্না থামানোর জন্য তাকে কিছু বিস্কুট খেতে দেয়। আমার স্ত্রী কান্নারত অবস্থাতেই ছেলেকে তার সিটে বসায় এবং তার সিট বেল্ট বাঁধতে উদ্যত হয়। বিমানটি রানওয়ের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করে। আমার ছেলে তখনও কাঁদছিল। ওই কেবিন ক্রু আবারও আমাদের দিকে তেড়ে আসে এবং আমার ছেলেকে শাসিয়ে বলে, ‘কান্না থামাও, নাইলে জানালা দিয়ে ফেলে দিব’। ওই ক্রু আমাদের সবাইকে বিমান থেকে নামিয়ে দেওয়ার হুমকি দেয়। আমরা ভয় পেয়ে যাই।’

বিমানটি এরপর পুনরায় টার্মিনালে ফিরে আসে। ওই ক্রু একজন নিরাপত্তা কর্মকর্তাকে ডেকে আনেন এবং এপি পতকের পরিবার ও পেছনে থাকা অন্য ভারতীয় পরিবার, যারা শিশুটিকে বিস্কুট খেতে দিয়েছিল, তাদেরকে বিমান থেকে নামিয়ে দেয়।

এই যাত্রীরা পরে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় বিমানবন্দর থেকে ফিরে আসেন। এপি পতক বিমানমন্ত্রীকে লেখা চিঠিতে লিখেছেন, ‘ভারতীয়দের উদ্দেশ্যে ‘ব্লাডি’ শব্দ ব্যবহার করে ওই কেবিন ক্রু বর্ণবৈষম্যমূলক আচরণ করেছেন। আমি অনুরোধ করব এ ঘটনার জন্য সবচেয়ে কঠিন শাস্তিটা যেন নিশ্চিত করা হয়।’

এপি পতকের সঙ্গে ঘটে যাওয়া ঘটিনাটি নিয়ে ভারতীয় সামাজিক মাধ্যমে তীব্র আলোচনার জন্ম দিয়েছে। সামাজিক মাধ্যম ব্যবহারকারিরা ব্রিটিশ এয়ারওয়েজকে ধুয়ে দিচ্ছেন। বহু যাত্রী এ এয়ারওয়েজটি বয়কটেরও আহ্বান জানিয়েছেন।

প্রিয় সংবাদ/মিজান/রুহুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
‘ঘুষসহ’ এলজিইডির প্রকৌশলী ধরা
আবু আজাদ ১৬ আগস্ট ২০১৮
‘ভবন থেকে পড়ে’ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র নিহত
মোস্তফা ইমরুল কায়েস ১৬ আগস্ট ২০১৮
অটল বিহারি বাজপেয়ি আর নেই
প্রিয় ডেস্ক ১৬ আগস্ট ২০১৮