ছবি সংগৃহীত

রবিবার দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাত: তিন মুসল্লির মৃত্যু

আগামী রবিবার বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে। ইমান-আমল আর ইবাদত বন্দেগীর মধ্যদিয়ে প্রথম দিন অতিবাহিত করলেন ধর্মপ্রাণ মুসল্লীরা।

priyo.com
লেখক
প্রকাশিত: ১৫ জানুয়ারি ২০১৬, ১৬:০৮ আপডেট: ০৫ জুন ২০১৮, ২১:৩৮
প্রকাশিত: ১৫ জানুয়ারি ২০১৬, ১৬:০৮ আপডেট: ০৫ জুন ২০১৮, ২১:৩৮


ছবি সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) আগামী রবিবার বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে। ইমান-আমল আর ইবাদত বন্দেগীর মধ্যদিয়ে প্রথম দিন অতিবাহিত করলেন ধর্মপ্রাণ মুসল্লীরা। শুক্রবার বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে অংশ নিতে আসা তিন মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে বলে টঙ্গি হাসপাতাল ও ইজতেমা কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা যায়।

এরমধ্যে, একজনের নাম হচ্ছে আবদুর রহমান (৬০)। জুম্মার নামাজের পর তার জানাজা ইজতেমা ময়দানে অনুষ্ঠিত হয়। তার গ্রামের বাড়ি বগুড়ার গাবতলী উপজেলার মাঝবাড়ি এলাকায়। 

শুক্রবার বিকেলে আবুল কাশেম (৬৫) নামে অপর এক মুসল্লির মৃত্যু হয় এবং বাদ মাগরিব মরহুমের ইজতেমা ময়দানে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।তার বাড়ি জামালপুর সদর উপজেলার কাছারীপাড়া এলাকায়।

মালয়েশীয় মুসল্লির মৃত্যু

শুক্রবার দুপুরে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে শাহিদান দ্বীন ইব্রাহিম (৪৮) নামে মালয়েশিয়ার এক নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে।মাগরিবের নামাজের পর ইজতেমা ময়দানে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

টঙ্গী হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার জানান, শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে ইব্রাহিম অসুস্থ হলে তাকে হাসপাতালে আনা হয়। পরে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকার শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে পাঠানো হয়। পথে দুপুর দেড়টার দিকে তার মৃত্যু হয়। মালয়েশিয়া দূতাবাসের মাধ্যমে মরদেহ ফেরত পাঠানো হবে বলে জানান আরএমও।

বৃহত্তম জুম্মার নামাজ অনুষ্ঠিত

বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের প্রথম দিনে টঙ্গীর তুরাগ নদের তীরে লাখো মুসল্লীর অংশগ্রহণে দেশের বৃহত্তম জুম্মার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। সকাল থেকেই আশপাশের জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে হাজার হাজার মুসল্লি ট্রেন, বাস, ট্রাকে করে ইজতেমা ময়দানের দিকে আসতে শুরু করেন। দুপুর ১টা ৪০ মিনিটে জুমার নামাজ শুরু হয়। জুম্মার নামাজে ইমামতি করেন করেন বাংলাদেশের অন্যতম তাবলীগ জামাতের মুরব্বী ক্বারী মাওলানা মোহাম্মদ জুবায়ের।

এবারের দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতেমায় জুম্মার নামাজে অন্যান্যের সাথে অংশ নেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আলহাজ্ব এভোকেট আ ক ম মোজাম্মেল হক, জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বি মিয়া, আলহাজ্ব মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপি, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন ভারপ্রাপ্ত মেয়র মো. আসাদুর রহমান কিরণ গাজীপুর পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন-অর-রশিদ প্রমুখ। 

শুক্রবার ভোরে ফজরের নামাজের পর ভারতের মাওলানা আব্দুর রহমানের আম বয়ানের মধ্য শুরু হয় তাবলীগ জামাতের দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতেমা। মাওলানা মো. দেলোয়ার হোসেন বাংলায় বয়ান তর্জমা করেন।

শুক্রবার সকালে লাখ লাখ মুসলমানের ‘আল্লাহু আকবার’ ধ্বনিতে টঙ্গী পরিণত হয় ধর্মীয় পবিত্র পূণ্যনগরীতে। দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতেমায় ঢাকাসহ দেশের ১৬জেলার মুসল্লিরা অংশ নিয়েছেন। ১৬টি জেলার তাবলিগ সদস্যরা এবার ২৯টি স্থানে বিভক্ত হয়ে ইবাদত বন্দেগী করছেন। ১ থেকে ৭ নম্বর খিত্তায় ঢাকা জেলার অংশ বিশেষ, ৮ নম্বর খিত্তায় ঝিনাইদহ, ৯ ও ১১ নম্বর খিত্তায় জামালপুর, ১০ নম্বর খিত্তায় ফরিদপুর, ১২ ও ১৩ নম্বর খিত্তায় নেত্রকাণা, ১৪ ও ১৫ নম্বর খিত্তায় নরসিংদী, ১৬ ও ১৮ নম্বর খিত্তায় কুমিল্লা, ১৭ নম্বর খিত্তায় কুড়িগ্রাম, ১৯ ও ২০ নম্বর খিত্তায় রাজশাহী,২১ নম্বর খিত্তায় ফেনী,২২ নম্বর খিত্তায় ঠাকুরগাঁও,২৩ নম্বর খিত্তায় সুনামগঞ্জ, ২৪ ও ২৫ নম্বর খিত্তায় বগুড়া,২৬ ও ২৭ নম্বর খিত্তায় খুলনা,২৮ নম্বর খিত্তায় চুয়াডাঙ্গা এবং ২৯ নম্বর খিত্তায় পিরোজপুর জেলা থেকে আসা তাবলিগ সদস্যরা অবস্থান করবেন।

বাসস

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...