ছবি সংগৃহীত

‘বাংলাদেশের মানুষ বার্ধক্য মোকাবেলায় প্রস্তুত নয়’

বাংলাদেশে প্রবীণ হিতৈষী সংঘ বলছে দেশে ষাটোর্ধ প্রবীণদের সংখ্যা রয়েছে এক কোটি ত্রিশ লাখ। ২০৫০ সাল নাগাদ এদের সংখ্যা তিন গুন ছাড়িয়ে যাবে কিন্তু বার্ধক্য মোকাবেলায় এদেশের সাধারণ মানুষজন এখনো প্রস্তুত নয় বলছে।

priyo.com
লেখক
প্রকাশিত: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৫, ০৩:২৫
আপডেট: ১৮ এপ্রিল ২০১৮, ১১:৪৮


ছবি সংগৃহীত
(প্রিয়.কম) বাংলাদেশে প্রবীণ হিতৈষী সংঘ বলছে দেশে ষাটোর্ধ প্রবীণদের সংখ্যা রয়েছে এক কোটি ত্রিশ লাখ। ২০৫০ সাল নাগাদ এদের সংখ্যা তিন গুন ছাড়িয়ে যাবে কিন্তু বার্ধক্য মোকাবেলায় এদেশের সাধারণ মানুষজন এখনো প্রস্তুত নয় বলছে। বিবিসি বাংলা এমন তথ্যই জানিয়েছে তাদের সংবাদমাধ্যমে। প্রবীণ হিতৈষী সংঘের মহাসচিব এ এস এম আতিকুর রহমান বলেন, ‘ধর্মীয় কারণে বাংলাদেশে প্রবীণদের এক ধরনের সম্মান থাকলেও এটি দয়াদাক্ষিণ্য দেখানোর মতো কিন্তু এই সম্মান অধিকার ভিত্তিক নয়’ আতিকুর রহমান আরও বলেন, পরিবারের বাইরে বাংলাদেশে তাদের জন্য রাষ্ট্রীয়ভাবে তেমন কোনও সুরক্ষার ব্যবস্থা নেই। তার মতে সারা বিশ্বব্যাপী বার্ধক্য নিয়ে কেউ কাজ করতে চায়না। ব্যক্তি নিজেও তার বার্ধক্যকে দেখাতে চায়না বা গ্রহণ করে না। সেটি মোকাবেলার জন্যে বেশিরভাগ মানুষ প্রস্তুতও নয়। বিশ্বে প্রবীণ জনগোষ্ঠীর বসবাস উপযোগী দেশের একটি সূচক তৈরি করেছে হেলপএজ ইন্টারন্যাশনাল নামে একটি আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা যাতে শীর্ষস্থানে রয়েছে সুইজারল্যান্ড। ছিয়ানব্বইটি দেশের এই তালিকার সবচাইতে নিচে রয়েছে আফগানিস্তান। ভারতের অবস্থান ৭১ আর বাংলাদেশের অবস্থান ৬৭। সংস্থাটি বিশ্বজুড়ে প্রবীণদের সঙ্গে আচরণবিধির ব্যাপারে আরো চিন্তাভাবনা করার জন্য রাজনীতিবিদদের কাছে আহ্বান জানাচ্ছে। সূত্র: বিবিসি বাংলা

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
স্পন্সরড কনটেন্ট