অসহায়ের আর্তি, খোদার কহর পড়ুুক নিপীড়কের তখতে!

ওয়াশিংটন থেকে জেরুজালেম   ফিলিস্তিনিরা মরো! না হয়, মেনে নাও সব অনাচার।

নিনাদ আহতি
লেখক
১৬ মে ২০১৮, সময় - ২০:৫০

ইসরায়েলের সেনারা ফিলিস্তিনে আগ্রাসন চালায়। ছবি: সংগৃহীত

বন্দুকের নল থেকে বেরিয়ে আসে-

মৃত্যুদূত! 

কার মৃত্যু? 

-নাবালক ফিলিস্তিনি শিশুর! নাকি মানবতার-

লালচে চুল, বাদামি চেহারা ঢেকে যাচ্ছে, রক্তে। 

কাঁদানে গ্যাসের কুণ্ডুলি বানিয়ে প্রতিবাদীর শরীরে গুলি করে কারা? 

তাদেরও মানুষ বলতে হবে! 

 

ওয়াশিংটন থেকে জেরুজালেম  

ফিলিস্তিনিরা মরো! না হয়, মেনে নাও সব অনাচার। ছেড়ে যাও অধিকার 

সে জানানই কি দিচ্ছে  শক্তি-পতিরা! 

 

মানুষের রক্ত কি উৎসবের লাল কার্পেট বানায়, 

কূটনীতির মোড়কে উচ্ছনে যায়- মানুষ, মানবতা, অধিকার। 

 

হতে পারে, হতে পারে, সব! 

ফিলিস্তিনিরা ফেটে পড়ছে প্রতিবাদে

প্রিয় ভূমি রক্ষার জন্য হাতে তুলে নিয়েছে গুলতি

তাদের ভূমি কারা বেহাত করেছে? কাদের সহযোগে! 

কারা সে জালিম, দুশমন-

কারা?

 

সৌদির সোনাখচিত তখতা... মানুষের মতো দেখতে আমির শাসক-যুবরাজ

ঘুমোয় বেঘোর! 

খোঁজে শিয়া, সুন্নী, ওয়াহাবি, সালাফি! মানুষ খোঁজে না

অধিকারের পক্ষে দাঁড়ায় না, এ কেমন দেশ! এ কেমন সংস্কার  

 

মানুষে মানুষে বিভেদ টানে, রক্তে ভিজে যায় জমি-জিরাত! 

পিষে মারছে মানুষ! রক্তের নহর বইয়ে দিচ্ছে

ইসরাইল। সঙ্গী আফ্রিকা! 

অসহায়ের আর্তি, খোদার কহর পড়ুক নিপীড়কের তখতে! 

 

কূটনীতির কী নৃশংস খেল 

জবর দখলে কী উন্মাদ ইসরাইল।

সৌদি তখত তার নীরব সহযোগী

পর্নো শ্রমিকের শরীর চাটা শাদা ঘরের পতিও।

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


স্পন্সরড কনটেন্ট