দুই মেয়ে রাবিয়াহ ও আরিশার সঙ্গে ইপসিতা শবনম শ্রাবন্তী। ছবি: সংগৃহীত

‘মা কষ্ট পেও না আর’

২০১০ সালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক খোরশেদ আলমের সঙ্গে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন।

তাশফিন ত্রপা
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ১২ জুলাই ২০১৮, ১৫:৪৪ আপডেট: ২০ আগস্ট ২০১৮, ১৯:৩২


দুই মেয়ে রাবিয়াহ ও আরিশার সঙ্গে ইপসিতা শবনম শ্রাবন্তী। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) এক দশক আগেও চুটিয়ে অভিনয় করেছিলেন ইপসিতা শবনম শ্রাবন্তী। মডেলিং ও অভিনয়ে তার বেশ জনপ্রিয়তাও ছিল। ২০১০ সালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক খোরশেদ আলমের সঙ্গে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন। সংসার করবেন বলে মিডিয়া থেকেও স্থায়ীভাবে বিদায় নেন।

গত ৭ মে তালাকের নোটিশ পাঠানোর মধ্য দিয়ে তাদের ৮ বছরের সংসারে ফাটল ধরেছে। যা এখন অনেকেরই জানা। এরপর গণমাধ্যমে দেওয়া বিভিন্ন সাক্ষাৎকার ও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যেমেগুলোতে পোস্ট করা শ্রাবন্তীর স্ট্যাটাসেও তার মানসিকভাবে ভেঙে পড়ার বিষয়টি খুঁজে পাওয়া যায়। তবে এখন তিনি তা অনেকটাই কাটিয়ে উঠতে যাচ্ছেন। ১০ জুলাই শ্রাবন্তীর ফেসবুকের একটি পোস্টে তারই ইঙ্গিত পাওয়া যায়।

শ্রাবন্তী তার সেই পোস্টে লিখেন, ‘আজ এই মুহূর্তে আমার একমাত্র শক্তি আমার আল্লাহ আর আমার দুই বাচ্চা। আমার বড় মেয়ে রাবিয়াহ এখন-ই আমাকে সান্ত্বনা দিল। আর বলল, মা কষ্ট পেও না আর। তুমি তো কোনো দোষ করোনি। তুমি হ্যাপি থাকো প্লিজ। ও মাই গড ! এই কথা আমার জন্য অনেক। আলহামদুলিল্লাহ। থ্যাংকস আম্মু। ওর কথাই ঠিক, আমি কোনো অন্যায় করিনি। আর তাই আমি এখন ওদের জন্য ভালো থাকবো। আমার আল্লাহ জানেন আর আমি নিজে জানি। সব কিছু আল্লাহ’র ওপর ছেড়ে দিলাম। শাস্তি দেওয়ার মালিক আল্লাহ। আজ থেকে আমি চুপ। আমার বাচ্চা আমার বড় সাপোর্ট। আমার বাচ্চাই আমার শক্তি। আপনারা আমাদের জন্য দোয়া করবেন। সময় মানুষকে অনেক কিছু শেখায়। আমিও শিখলাম।’

দুই মেয়ের সঙ্গে শ্রাবন্তী ও আলম। ছবি: সংগৃহীত

প্রিয় বিনোদন/গোরা 

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
তথ্যচিত্রে সৈয়দ হক
মিঠু হালদার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮
‘মাকে পাঠানো হয়েছিল আমার নগ্ন ছবি’
তাশফিন ত্রপা ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮
প্রিয় অবসর : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮
প্রিয় ডেস্ক ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮
‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ ২০১৮’ প্রচার শুরু
মিঠু হালদার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮
স্পন্সরড কনটেন্ট
ট্রেন্ডিং