হজযাত্রী। ফাইল ছবি।

লাগাতার শিডিউল বিপর্যয়, দুর্ভোগ হজযাত্রীদের

হজ ফ্লাইটগুলো ২-৫ ঘণ্টা করে বিলম্ব হওয়ায় বিমান বন্দরে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হচ্ছে হজযাত্রীদের।

আয়েশা সিদ্দিকা শিরিন
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ২৬ জুলাই ২০১৮, ১০:৩২ আপডেট: ২০ আগস্ট ২০১৮, ১৯:৪৮


হজযাত্রী। ফাইল ছবি।

(প্রিয়.কম) প্রতিদিনই শিডিউল বিপর্যয়ের ফাঁদে পড়েছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের হজ ফ্লাইট। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন বাংলাদেশি হজযাত্রীরা।

২৬ জুলাই, বৃহস্পতিবার দৈনিক ইত্তেফাকের এক প্রতিবেদনে এ সব তথ্য জানা গেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি বছর হজ ফ্লাইট শুরুর পর থেকেই বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটগুলো প্রতিদিনই ২-৫ ঘণ্টা করে বিলম্বে ছাড়ছে। ফলে বিমান বন্দরে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হচ্ছে হজযাত্রীদের।

বুধবার দুইটি ফ্লাইট ছাড়তে বিলম্ব হয়। তিন ঘণ্টা দেরিতে ছেড়েছে মঙ্গলবার ভোর সাড়ে ৪টার একটি ফ্লাইট। দুপুরের দিকে থাই এয়ার ওয়েজের একটি উড়োজাহাজের চাকা ফেটে যাওয়ায় প্রায় দুই ঘণ্টা ফ্লাইট চলাচল বন্ধ থাকে।

মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টার ফ্লাইটটি বিমানবন্দর ছাড়ে সন্ধ্যা ৬টার দিকে। সোমবার ভোর ৪টা ৩৫ মিনিটের ফ্লাইটটি বিমানবন্দর ছাড়ে সকাল সাড়ে ৭টায়। রবিবার বাংলাদেশ সকাল ও বিকেলের দুটি ফ্লাইটেরও শিডিউল বিপর্যয় হয়েছে।

বিমান বাংলাদেশের জনসংযোগ শাখার মহাব্যবস্থাপক শাকিল মেরাজ বলেন, ‘সৌদি আরব থেকে বিমান আসতে দেরি হওয়ায় দিনের ফ্লাইট দেরিতে ছাড়ে। ওই প্রভাবটা অন্য ফ্লাইটগুলোতেও পড়ে। রি-শিডিউলের কারণে এলোমেলো হলেও কোনো ফ্লাইট বাতিল হয়নি। এই সমস্যা কমানোর চেষ্টা চলছে।’

চলতি বছর ৫২৮টি হজ এজেন্সির মাধ্যমে মোট এক লাখ ২৬ হাজার ৭৯৮ জন বাংলাদেশি হজ পালনের জন্য সৌদি আরব যাবেন। তাদের মধ্যে ছয় হাজার ৭৯৮ জন সরকারি ব্যবস্থাপনায় এবং এক লাখ ২০ হাজার ব্যক্তি বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় যাবেন।

বাংলাদেশ বিমান ১৮৭টি ফ্লাইটের মাধ্যমে ৬৪ হাজার ৯৬৭ জনকে বহন করবে। বাকি ৬১ হাজার ৮৩১ জন হজযাত্রী সৌদি এয়ারলাইন্সের ১৮৮টি ফ্লাইটের মাধ্যমে সৌদি আরব যাবেন। গত ১৪ জুলাই থেকে হজ ফ্লাইট শুরু হয়েছে। চলবে ১৫ আগস্ট পর্যন্ত।

প্রথম হজ ফ্লাইটের যাত্রীদের সঙ্গে কুশল বিনিময়ের পরে হজযাত্রীদের ভোগান্তি, বিমানের শিডিউল বিপর্যয়ের শঙ্কা ও ফ্লাইট বাতিলের মতো ঘটনা এবার ঘটবে না বলে গ্যারান্টি দিয়েছিলেন ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান

ওই দিন ধর্মমন্ত্রী বলেন, ‘এবার গ্যারান্টি দিচ্ছি কোনো ধরনের ভোগান্তি বা বিপর্যয় হবে না। যারা অাজ হজে যাচ্ছেন তারা সুন্দরভাবে সৌদিতে পৌঁছবেন বলে আমরা অাশা করছি।

তারা যেন সুষ্ঠুভাবে হজ শেষে দেশে ফিরতে পারেন সে প্রত্যাশা থাকল। এবার সকল হজের অায়োজন সুন্দরভাবে করা হয়েছে। এ জন্য সকল অবদান প্রধানমন্ত্রীর। অামরা তার নেতৃত্বে কাজ করছি।’

প্রিয় সংবাদ/রুহুল

পাঠকের মন্তব্য(১)

মন্তব্য করতে করুন


Mizanur Rahman
Mizanur Rahman

Ai na hole Bangladesh. Mone pore ki bolechilo Dharmo montri?

আরো পড়ুন
স্পন্সরড কনটেন্ট
প্রণীত হচ্ছে ‘হজ ক্যালেন্ডার-২০১৯’
প্রণীত হচ্ছে ‘হজ ক্যালেন্ডার-২০১৯’
জাগো নিউজ ২৪ - ১ week, ১ দিন আগে