সাব্বির রহমান। ছবি: প্রিয়.কম

সাব্বিরের নতুন প্রতিজ্ঞা

এর আগেও একাধিকবার এমন প্রতিজ্ঞা করেছেন সাব্বির।

মুশাহিদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:৪২ আপডেট: ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:৪৪
প্রকাশিত: ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:৪২ আপডেট: ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:৪৪


সাব্বির রহমান। ছবি: প্রিয়.কম

(প্রিয়.কম) দরজায় কড়া নাড়ছে এশিয়া কাপ। বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা ঘাম ঝরাচ্ছেন প্রস্তুতিতে। তারা এশিয়ান ক্রিকেটের শ্রেষ্ঠত্বের এই লড়াইয়ে ভালো করার প্রতিজ্ঞা করছেন ভক্ত-সমর্থকদের কাছে। সেই দলেরই একজন সদস্য সাব্বির রহমান। কিন্তু আসন্ন এশিয়া কাপ নিয়ে কোনো প্রতিশ্রুতি দিতে পারছেন না ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান; বরং ভবিষ্যতে শৃঙ্খলাভঙ্গের মতো কোনো কাজে না জড়ানোর প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন শৃঙ্খলাভক্তের দায়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে ৬ মাসের জন্য নিষেধাজ্ঞায় পড়তে যাওয়া সাব্বির।

১ সেপ্টেম্বর, শনিবার বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) ডিসিপ্লিনারি কমিটির সামনে ভুল স্বীকার করে ভবিষ্যতে সেই ভুলের পুনরাবৃত্তি না করার প্রতিজ্ঞা করেন সাব্বির।

ভুল স্বীকার করে সাব্বির অনুতপ্ত হয়েছেন জানিয়ে বিসিবির পরিচালক ও বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক বলেন, ‘সে (সাব্বির) অনুতপ্ত। সে ভবিষ্যতে এ রকম কিছু করবে না বলে প্রতিজ্ঞা করেছে। সে অনেক কিছু স্বীকারও করেছে।’

এর আগেও একাধিকবার এমন প্রতিজ্ঞা করেছেন সাব্বির। ২০১৬ সালে টিম হোটেলে নারী অতিথিকে এনে শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে ১২ লাখ টাকা জরিমানা দেন তিনি। সেই থেকে এমন ভুলের পুনরাবৃত্তি না করার প্রতিজ্ঞা করা শুরু করেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। এরপর একের পর এক প্রতিজ্ঞা ভেঙেছেন, আবার নতুন করে প্রতিজ্ঞা করেছেন।

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) সর্বশেষ আসরে আম্পায়ারের সঙ্গে বাজে আচরণ করেন সিলেট সিক্সার্সের হয়ে খেলা এই ব্যাটসম্যান। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে ম্যাচ চলাকালীন ঘটে এই ঘটনা। সেই ঘটনায় সাব্বিরকে ম্যাচ ফির অর্ধেক জরিমানা করা হয়। একই সঙ্গে জুটেছে তিনটি ডিমেরিট পয়েন্ট।

তাতেও ক্ষান্ত হননি সাব্বির। গেল বছরের ডিসেম্বরে রাজশাহীর শহীদ কামারুজ্জামান স্টেডিয়ামে জাতীয় ক্রিকেট লিগের (এনসিএল) ম্যাচ চলাকালে কিশোর ভক্তকে পিটিয়ে ঘরোয়া ক্রিকেট থেকে ৬ মাসের জন্য নিষিদ্ধ হন তিনি। নিষেধাজ্ঞার পাশাপাশি জরিমানা হিসেবে দেন ২০ লাখ টাকা। বাদ পড়েন বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকেও।

ঘরোয়া ক্রিকেটে ৬ মাসের সেই নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার আগেই আফগানিস্তানের বিপক্ষে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি চলার সময় ড্রেসিংরুমে মেহেদী হাসান মিরাজের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়ান সাব্বির। উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় শেষ পর্যন্ত গড়ায় মারামারি পর্যন্ত।

সেবার অল্পতেই রক্ষা পান সাব্বির। শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে তিন ম্যাচ সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে দল থেকে বাদ পড়েন তিনি। এবারও যার সাথে ঘটনা, সেই মিরাজকে সঙ্গে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক থেকে লাইভে এসে নিজের ভুল স্বীকার করেন সাব্বির। একইসঙ্গে প্রতিজ্ঞা করেন, এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি না করার। কিন্তু সেই প্রতিজ্ঞাটাও ভেঙেছেন তাসের ঘরের মতো।

সর্বশেষ উইন্ডিজ সিরিজে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে দুই সমর্থককে হুমকি দিয়ে ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে সমালোচিত হন সাব্বির। সাব্বির অবশ্য দাবি করেন, তার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট হ্যাকড হয়েছিল। কিন্তু বিসিবি বিষয়টি গুরুত্বের সাথে নেয়।

ফেসবুকে গালিগালাজ করার ঘটনায় সাব্বিরকে এই শাস্তি দেওয়া হচ্ছে জানিয়ে ইসমাইল হায়দার বলেন, ‘আজ সাব্বিরের শুনানি ছিল ফেসবুকের ঘটনাটার কারণে। তার আগের শাস্তি তো এখনো চলছে, ঘরোয়া ক্রিকেটে নিষিদ্ধের। এখন নতুন যা হলো, তা ফেসবুকের জন্য। এর জন্য তিন বছরের শাস্তি আসলে অধিক হয়ে যায়।’

ফেবসবুকের ঘটনাটি ‘অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়েছিল’ বলে চালিয়ে দিলেও বাকি বিষয়গুলো সাব্বির স্বীকার করেছেন বলে জানান ইসমাইল হায়দার। তিনি বলেন, ‘সে বলেছে, হ্যাক হয়েছিল। বাকি কার্যকলাপের বিষয়ে সে কিছু বিষয় স্বীকার করেছে। ওই বিষয়ে তাকে নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে।’

ঘরোয়া ক্রিকেটে ৬ মাসের নিষেধাজ্ঞা শেষ হয়েছে চলতি বছরের জুনে। দুই মাসের ব্যবধানে আবারও নিষেধাজ্ঞায় পড়তে যাচ্ছেন সাব্বির।

ভবিষ্যতে এমন কিছু হলে সাব্বির আরও বড় শাস্তির মুখে পড়বেন জানিয়ে বিসিবির এই পরিচালক বলেন, ‘এতদিন তার শাস্তি ছিল আর্থিক জরিমানা ও ৬ মাসের নিষেধাজ্ঞা। এর চেয়ে বড় শাস্তি হলো আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ। এর সাথে বলা হয়েছে, ভবিষ্যতে এ রকম কিছু ঘটলে তাকে বড় শাস্তি দেওয়া হবে। হয়তো তাকে দীর্ঘমেয়াদে নিষিদ্ধ করা হতে পারে।’

প্রিয় খেলা/আজহার

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...