বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ফাইল ছবি

খালেদা জিয়ার বিচারে কারাগারেই বসবে আদালত

খালেদা জিয়া যেখানে বন্দী আছেন, সেখানেই তার বিচার করার জন্য আদালত স্থাপন করা হচ্ছে।

আমিনুল ইসলাম মল্লিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৮:১১ আপডেট: ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৯:১৮


বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ফাইল ছবি

(প্রিয়.কম) জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলার বিচারে পুরান ঢাকার বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ আদালত কারাগারে চলে যাচ্ছে। বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া যেখানে বন্দী আছেন, সেখানেই তার বিচার হবে।

৪ সেপ্টেম্বর, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় প্রিয়.কমকে বিষয়টি জানিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল।

এর আগে বিকেলে এ বিষয়ে আইন মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা ড. রেজাউল করিম ও খালেদা জিয়ার আইনজীবী আমিনুল ইসলামের সঙ্গে কথা হলে তারা স্পষ্ট কিছু জানা নেই বলে জানান।

রেজাউল প্রিয়.কমকে বলেন, ‘শুনতে পাচ্ছি যে, খালেদা জিয়ার মামলা পরিচালনার জন্য কারাগারে আদালত নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। কিন্তু তারা বিষয়টি নিশ্চিত করতে পারেননি।’

খালেদা জিয়ার আইনজীবী আমিনুল ইসলাম প্রিয়.কমকে বলেন, ‘আগামীকাল জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলার শুনানি আছে। আমরা আদালতে গিয়ে কথা বলব, তবে এ মামলা শুনানি করতে কারাগারেই আদালত বসানো হবে নাকি কারাগারে আদালত স্থানান্তর করা হবে, সেটা বলতে পারব না। আমাদের কাছে এ রকম কোনো চিঠি আসেনি।’   

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় চলতি বছরের ১ ফেব্রুয়ারি থেকে আসামি জিয়াউল হক মুন্নার পক্ষে যুক্তিতর্ক শুনানি অব্যাহত আছে। খালেদা জিয়ার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন বাকি রয়েছে। 

আইন মন্ত্রণালয়ের গেজেট। ছবি: সংগৃহীত

এদিকে আদালত স্থানান্তরের বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়। এতে স্বাক্ষর করেন রাষ্ট্রপতির উপসচিব (প্রশাসন-১) মো. মাহবুবার রহমান সরকার।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়াকে ৫ বছর কারাদণ্ড দেয় বকশীবাজারের অস্থায়ী আদালতের বিচারক ড. আকতারুজ্জামান। সেই দিন থেকেই খালেদা জিয়া নাজিমুদ্দিন রোডের পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারে রয়েছেন। কারাবন্দী হওয়ার পর থেকে তাকে আর আদালতে হাজির করা হয়নি।

২০১১ সালের ৮ আগস্ট খালেদা জিয়াসহ চারজনের বিরুদ্ধে ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলা দায়ের করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এ মামলায় ২০১২ সালের ১৬ জানুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।

মামলাটিতে বিএনপি নেতা হারিছ চৌধুরী, তার তৎকালীন একান্ত সচিব জিয়াউল ইসলাম মুন্না ও ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খান আসামি।

মামলাটিতে খালেদা জিয়াসহ অপর আসামিদের বিরুদ্ধে ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ তৎকালীন বিচারক বাসুদেব রায় অভিযোগ গঠন করেন।

প্রিয় সংবাদ/আজহার

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
আদালতে তোলা হচ্ছে রফিকুল ইসলাম মিয়াকে
আমিনুল ইসলাম মল্লিক ২১ নভেম্বর ২০১৮
শোডাউনকারীদের মনোনয়ন দেওয়া হবে না: মির্জা ফখরুল
মোক্তাদির হোসেন প্রান্তিক ২১ নভেম্বর ২০১৮
তিন জেলায় গুলিতে নিহত ৪
আয়েশা সিদ্দিকা শিরিন ২১ নভেম্বর ২০১৮
স্পন্সরড কনটেন্ট
কেমন আছেন খালেদা জিয়া?
কেমন আছেন খালেদা জিয়া?
জাগো নিউজ ২৪ - ১ মাস আগে
ট্রেন্ডিং