বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ফাইল ছবি

যত চান সাজা দিন, আর আদালতে আসতে পারব না: খালেদা জিয়া

খালেদা জিয়া বলেন, ‘এখানে ন্যায় বিচার হয় না। আমি খুবই অসুস্থ আমার হাত পা ফুলে গেছে।’

আমিনুল ইসলাম মল্লিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৫:৫৩ আপডেট: ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৬:১৪
প্রকাশিত: ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৫:৫৩ আপডেট: ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৬:১৪


বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ফাইল ছবি

(প্রিয়.কম) জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় আদালতে আর আসতে পারবেন না বলে বিচারককে জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এদিকে আদালত পরিবর্তনের অফিসিয়ালি চিঠি না পাওয়ায় মামলার শুনানিতে অংশ নিতে নতুন আদালতে যাননি খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা।

৫ সেপ্টেম্বর, বুধবার বেলা ১২টা ২৩ মিনিটে পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারে অস্থায়ী বিশেষ আদালতের এজলাসে উপস্থিত করানো হয় খালেদা জিয়াকে। 

এই কারাগারেই অন্য আরেকটি মামলায় বন্দী রয়েছেন খালেদা জিয়া। গত ফেব্রুয়ারিতে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাজা হয় বিএনপি চেয়ারপারসনের। 

আদালতে এজলাসে নারী কারারক্ষীরা হুইল চেয়ারে করে খালেদা জিয়াকে নিয়ে প্রবেশ করেন। সঙ্গে ছিলেন তার সহকারী ফাতেমা বেগম।

সেসময় খালেদা জিয়ার হাত পা ফোলা ছিল। তিনি হাত পা নাড়াতে পারছিলেন না।

বিচারক মামলার কার্যক্রম শুরু করলে তার উদ্দেশে খালেদা জিয়া বলেন, ‘আমি খুবই অসুস্থ। আমি আর আদালতে আসতে পারব না। আপনারা যা চান যত দিন চান, সাজা দিতে পারেন। ন্যায় বিচার এখানে পাইনি, পাব না।’

খালেদা জিয়া বলেন, ‘প্রসিকিউশনের ইচ্ছায় এখানে বিচার হয়। ন্যায় বিচার হয় না। আমি আর আসতে পারব না। আমার আইনজীবীরা আসেন নাই। তাদেরকে জানানো হয় নাই। আদালত পরিবর্তনের গেজেট আমার আইনজীবীদের জানানো হয় নাই।’

বেলা প্রায় পৌনে ১টা পর্যন্ত আদালতের কার্যক্রম চলে। এরপর মামলার পরবর্তী শুনানির জন্য ১২ ও ১৩ সেপ্টেম্বর দিন নির্ধারণ করা হয়৷

আপনি কিছু বলবেন কিনা? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে খালেদা জিয়া বলেন, ‘এখানে ন্যায় বিচার হয় না। আমি খুবই অসুস্থ আমার হাত পা ফুলে গেছে।’

এ সময় আরও কিছু কথা বলছিলেন খালেদা জিয়া, তবে তার সব কথা স্পষ্ট শোনা যায়নি।

এর আগে ৪ সেপ্টেম্বর আদালত পরিবর্তনের বিষয়ে সরকার প্রজ্ঞাপন জারি করে

খালেদা জিয়ার অন্যতম আইনজীবী আমিনুল ইসলাম প্রিয়.কমকে বলেন, ‘সকাল ১০টা থেকে আমরা বকশিবাজারের আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে অবস্থিত বিশেষ আদালতে উপস্থিত হয়েছি। সিনিয়র আইনজীবীরাও মামলার শুনানি করেত প্রস্তুতি নিয়ে এসেছিলেন। কিন্তু এখানে আজ আদালত বসেনি। ম্যাডামের মামলাও শুনানি হয়নি এখানে।’

আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘আদালত পরিবর্তনের বিষয়টি আমাকে পিপি সাহেব ফোন করে জানিয়েছেন। নতুন আদালতে মামলা শুনানি করতে ডেকেছেন। আমি তাকে বলেছি অফিসিয়ালভাবে আদালত পরিবর্তনের বিষয়টি আমরা জানি না। আমাদেরকে জানানো হয়নি। অফিসিয়াল চিঠি পাওয়ার পর মামলার শুনানিতে আদালতে উপস্থিত থাকব কিনা সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিব।’

প্রিয় সংবাদ/শিরিন/রিমন

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

‘আমরা জয়ী হবই’

প্রিয় ১ দিন, ১৯ ঘণ্টা আগে

loading ...