সতীর্থের কাঁধে ম্যাচে বাংলাদেশের জয়ের নায়ক তপু বর্মন। ছবি: প্রিয়.কম

পাকিস্তানকে হারিয়ে সেমিতে বাংলাদেশের এক পা

ম্যাচ শেষ হওয়ার মাত্র কয়েক মিনিট আগে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে সমাগত দর্শকদের উচ্ছ্বাসে ভাসান তপু বর্মন।

মুশাহিদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১:১৭ আপডেট: ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১:৫৫
প্রকাশিত: ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১:১৭ আপডেট: ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১:৫৫


সতীর্থের কাঁধে ম্যাচে বাংলাদেশের জয়ের নায়ক তপু বর্মন। ছবি: প্রিয়.কম

(প্রিয়.কম) প্রথমার্ধে গোলের দেখা পায়নি কোনো দল। দ্বিতীয়ার্ধেও দেখা যাচ্ছিল প্রথমার্ধের অনুরূপ দৃশ্য। আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণ করেও গোল আদায় করে নিতে পারছিল না কোনো দল। কিন্তু ম্যাচ শেষ হওয়ার মাত্র কয়েক মিনিট আগে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে সমাগত দর্শকদের উচ্ছ্বাসে ভাসালেন তপু বর্মন।

তপুর দুর্দান্ত এক গোলই পার্থক্য গড়ে দিয়েছে বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের মধ্যকার ম্যাচে। শেষ পর্যন্ত ১-০ গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছেড়েছে বাংলাদেশ ফুটবল দল। একই সঙ্গে মধুর প্রতিশোধও নিয়েছেন তপু বর্মন-মামুনুল ইসলামরা।

২০১৩ সালের ৫ সেপ্টেম্বর সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের গ্রুপ ম্যাচে সর্বশেষ দেখা হয়েছিল দুই দলের। সেবার সেমিতে ওঠার জন্য জয় ভিন্ন কোনো বিকল্প ছিল না বাংলাদেশের সামনে। কিন্তু বাঁচা-মরার সেই ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে ২-১ গোলে হেরে যায় বাংলাদেশ।

এরপর আর দেখা হয়নি দুই দলের। নিষিদ্ধ থাকায় ২০১৫ সালের সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নেয়নি পাকিস্তান। নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফিরেছে সাফের ১২তম আসরে। দীর্ঘ পাঁচ বছর পর সেই সাফের মঞ্চেই পাকিস্তানকে পেয়ে পুরনো হিসেবে চুকিয়ে দিলো বাংলাদেশ।

এই জয়ের ফলে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের সেমিফাইনালের পথে অনেকটা এগিয়ে গেছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। টানা দুই জয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে ‘এ’ গ্রুপের শীর্ষে বাংলাদেশ। নিজেদের প্রথম ম্যাচে ভুটানকে ২-০ গোলে হারিয়েছিল জেমি ডের দল। ৩ করে পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে রয়েছে যথাক্রমে নেপাল ও পাকিস্তান।

এদিন বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচের শুরু থেকেই আধিপত্য বিস্তার করে খেলতে থাকে বাংলাদেশ। প্রথমার্ধে গোলের দেখা না পেলেও বল দখলের লড়াইয়ে পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে ছিল বাংলাদেশ। প্রথমার্ধে স্বাগতিকদের পায়ে ছিল বলের ৬২ শতাংশ দখল। পাকিস্তানের দখলে ছিল ৩৮ শতাংশ।

আধিপত্য বিস্তার করে খেললেও গোল পাওয়ার জন্য বাংলাদেশকে অপেক্ষা করতে হয় ম্যাচের একদম শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত। ৮৫ মিনিটে আসে সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। বিশ্বজিতের থ্রো থেকে হেড নিয়ে পাকিস্তানের জালে বল জড়ান তপু। এ নিয়ে সাফে টানা দুই ম্যাচে গোল করার কৃতিত্ব দেখালেন এই ডিফেন্ডার। এর আগের ম্যাচে ভুটানের বিপক্ষেও পেনাল্টি কিক থেকে গোলের দেখা পেয়েছিলেন তিনি।

পাকিস্তানের বিপক্ষে জয় পেলে নিশ্চিত হতো সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের সেমিফাইনালের টিকেট। তাও বাংলাদেশকে তাকিয়ে থাকতে হচ্ছিল ভুটান-নেপালের মধ্যকার ম্যাচটির দিকে। ম্যাচটি ড্র হলে এক ম্যাচ হাতে রেখেই প্রথম দল হিসেবে সাফের সেমিফাইনাল নিশ্চিত হতো বাংলাদেশের।

দিনের প্রথম ম্যাচে ভুটানকে ৪-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে নেপাল। এই হারের ফলে টুর্নামেন্টের গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিতে হলো ভুটানকে। এর আগে টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচেও বাংলাদেশের বিপক্ষে ২-০ গোলে হেরেছে দলটি।

প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে হারলেও দ্বিতীয় ম্যাচে ভুটানকে হারিয়ে টিকে রইল নেপাল। অন্যদিকে সেমিফাইনালের টিকেট নিশ্চিত করার জন্য বাংলাদেশকে অপেক্ষা করতে হচ্ছে নেপালের বিপক্ষে ম্যাচটি পর্যন্ত।

আগামী ৮ সেপ্টেম্বর একই ভেন্যুতে নেপালের বিপক্ষে মাঠে নামবে জেমি ডের শিষ্যরা। ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাতটায়।

প্রিয় খেলা/আজহার