দুই নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু ও হাবিবুল বাশার সুমনের সঙ্গে খালেদ মাহমুদ সুজন। ছবি: প্রিয়.কম

‘ফাইনাল খেলেছি, শিরোপা জয়ের স্বপ্ন দেখতেই পারি’

দেশের মাটিতে শিরোপা খোয়ানো বাংলাদেশই এবার শিরোপা জয়ের মিশনে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

মুশাহিদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৮:৩৮ আপডেট: ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৮:৩৮
প্রকাশিত: ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৮:৩৮ আপডেট: ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৮:৩৮


দুই নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু ও হাবিবুল বাশার সুমনের সঙ্গে খালেদ মাহমুদ সুজন। ছবি: প্রিয়.কম

(প্রিয়.কম) এশিয়া কাপে বাংলাদেশের তেমন কোনো সুখস্মৃতি নেই বললেই চলে। যেসব স্মৃতি আছে, তার সবটাই স্বপ্নভঙ্গের। দুবার শিরোপার খুব কাছে গিয়েও হাতছাড়া করেছে বাংলাদেশ। ২০১২ সালে পাকিস্তানের কাছে মাত্র ২ রান ও ২০১৬ সালের এশিয়া কাপে ভারতের কাছে ৮ উইকেটে হেরে শিরোপাবঞ্চিত হন মাশরাফি-সাকিব-তামিম-মুশফিকরা।

২০১২ ও ২০১৬ সালের এশিয়া কাপের দুটি আসরই অনুষ্ঠিত হয়েছিল বাংলাদেশের মাটিতে। দুবার দেশের মাটিতে শিরোপা খোয়ানো বাংলাদেশই এবার শিরোপা জয়ের মিশনে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছে। আর শিরোপার স্বপ্ন দেখার কারণ টুর্নামেন্টের দুই আসরে ফাইনাল খেলার অভিজ্ঞতা।

৮ সেপ্টেম্বর, শনিবার মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে এমনটা জানিয়েছেন এশিয়া কাপে বাংলাদেশ দলের ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ সুজন। জাতীয় দলের সাবেক এই অধিনায়ক মনে করছেন, দুই আসরে ফাইনাল খেলা বাংলাদেশ এবার এশিয়া কাপে শিরোপার স্বপ্ন দেখতেই পারে।

সুজন বলেন, ‘বাংলাদেশ যে ম্যাচেই খেলবে, সেই ম্যাচেই চাপ। এমন নয় যে বাংলাদেশ আগে ফাইনালে খেলেনি। যেহেতু আমরা ফাইনাল খেলেছি, শিরোপা জয়ের স্বপ্ন দেখতেই পারি। আফগানিস্তান বলেন বা শ্রীলঙ্কা বলেন, সবার সঙ্গে চাপ থাকবে আমাদের। চাপ কাটিয়ে কীভাবে ভালো করা যায়, এটাই দেখার বিষয়।’

ভারতে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও পাকিস্তানের আপত্তির কারণে এশিয়া কাপের এবারের আসরটি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে সংযুক্ত আরব আমিরাতে। সুজন জানান, সেখানকার কন্ডিশনে লড়াই করাটা সহজ না হলেও ভালো করার লক্ষ্য নিয়ে অংশ নেবে বাংলাদেশ দল।

‘লক্ষ্য নিয়ে যাওয়া তো অবশ্যই ভালো। তাহলে সবাই বেশি মনোযোগী থাকব। ভারত-পাকিস্তানও আছে আসরে। এ ছাড়া কঠিন কন্ডিশনে খেলা; লড়াই সহজ হবে না। তারপরেও লক্ষ্য নিয়ে এগোতে হবে’, বলেন সুজন।

ক্রিকেটার ও কোচিং স্টাফরা সবাই ঠিকভাবে কাজ করলে ফলাফল বাংলাদেশের পক্ষে আসবে জানিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) এই পরিচালক আরও বলেন, ‘একই ভূমিকা থাকবে আমার। ম্যানেজার হিসেবে যেহেতু কাজ করতাম, ওটাই থাকবে। এ ছাড়া আর কিছু না।’

‘আমাদের পুরো ম্যানেজমেন্ট আছে। ব্যাটিং কোচ, ফিল্ডিং কোচ মিলিয়ে আট-নয়জন স্টাফ আছে। সবাই ঠিকমতো কাজ করলে ফলাফল আমাদের পক্ষেই আসবে।’

প্রিয় খেলা/আজহার

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

আহা, জয় এত মধুর!

প্রিয় ২ দিন, ৩ ঘণ্টা আগে

loading ...