পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্য অনুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় কুড়িগ্রামের সব নদীর পানিই বৃদ্ধি পেয়েছে। ছবি: সংগৃহীত

কুড়িগ্রামে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত, নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

১ হাজার হেক্টর আমন খেতসহ অন্যান্য ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সেখানকার ৪০টি পরিবার গৃহহীন হয়েছে।

আবু আজাদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২২:৩৪ আপডেট: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২২:৩৩


পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্য অনুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় কুড়িগ্রামের সব নদীর পানিই বৃদ্ধি পেয়েছে। ছবি: সংগৃহীত

(ইউএনবি) ভারী বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা ঢলে কুড়িগ্রামে ধরলা, তিস্তা, ব্রহ্মপুত্র ও দুধকুমারসহ প্রধান নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে।

নদ-নদীর অববাহিকায় ২৫টি ইউনিয়নের শতাধিক চরগ্রামের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে গেছে। পানিবন্দী হয়ে পড়েছে চার হাজার পরিবারের ২০ হাজার মানুষ। দেখা দিয়েছে বন্যার আতঙ্ক। অনেকেই গবাদিপশুসহ নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যাচ্ছেন।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় ধরলার পানি অপরিবর্তিত থাকলেও ব্রহ্মপুত্রে ২৫ সেন্টিমিটার, দুধকুমারে ৩৭ সেন্টিমিটার ও তিস্তায় ৬ সেন্টিমিটার পানি বেড়েছে। ধরলা নদীর পানি বিপদ সীমার মাত্র ২৮ সেন্টিমিটার নিচে অবস্থান করছে।

পানি বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে সদর উপজেলার সারোডাব, ভোগডাঙা, উলিপুরের থেতরাই, ফুলবাড়ীর শিমুলবাড়ি, চিলমারীর জোড়গাছসহ কয়েকটি এলাকায় দেখা দিয়েছে তীব্র ভাঙন। এসব এলাকার এক হাজার হেক্টর আমন খেতসহ অন্যান্য ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সেখানকার ৪০টি পরিবার গৃহহীন হয়েছে।

প্রিয় সংবাদ/আজাদ চৌধুরী

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার শুরু ১৮ নভেম্বর
মোক্তাদির হোসেন প্রান্তিক ১৬ নভেম্বর ২০১৮
সিরাজগঞ্জ জেলা জামায়াতের আমির গ্রেফতার
প্রিয় ডেস্ক ১৬ নভেম্বর ২০১৮
স্পন্সরড কনটেন্ট