সুনামগঞ্জ দায়রা জজ আদালত। ছবি: সংগৃহীত

সুনামগঞ্জে ইয়াকুব হত্যা মামলায় একজনের ফাঁসির আদেশ

উপজেলার মাইজবাড়ি গ্রামে অনুষ্ঠিত একটি ওয়াজ মাহফিল এলাকায় এক তরুণীকে নিয়ে ঘোরাফেরা করছিলেন অভিযুক্ত তিন যুবক।

আবু আজাদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:২৪ আপডেট: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:২৪
প্রকাশিত: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:২৪ আপডেট: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:২৪


সুনামগঞ্জ দায়রা জজ আদালত। ছবি: সংগৃহীত

(ইউএনবি) সুনামগঞ্জে আলোচিত ইয়াকুব হত্যা মামলায় একজনের ফাঁসির আদেশ দিয়েছে আদালত। একই সঙ্গে অভিযুক্তকে আরও ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডও দেওয়া হয়েছে।

২৬ সেপ্টেম্বর, বুধবার দুপুরে সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত দায়রা জজ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন এ আদেশ দেন।

শহরতলির মাইজবাড়ি গ্রামে ‘প্রেমিকার সামনে প্রেমিককে অপমান করায়’ এক যুবক খুন হওয়ার আলোচিত এ মামলায় অপর দুই আসামির মধ্যে একজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ ও আরেকজনকে বেকসুর খালাস দেয় আদালত।

ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হলেন সুনামগঞ্জ জেলার ধর্মপাশা উপজেলার তেলিপাড়া গ্রামের পাখি মিয়ার ছেলে মো. বাদল মিয়া।

এ ছাড়া যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত আসামি সুনামগঞ্জ পৌরসভার নতুন হাছননগর গ্রামের মৃত আব্দুল মন্নানের ছেলে শফিক মিয়া। মামলায় অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় খালাস পান ধর্মপাশা উপজেলার তেলিপাড়া গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে মো. জাকির হোসেন।

মামলার বিবরণীতে জানা যায়, ২০১৬ সালের ১০ জানুয়ারি সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার মাইজবাড়ি গ্রামে অনুষ্ঠিত একটি ওয়াজ মাহফিল এলাকায় এক তরুণীকে নিয়ে ঘোরাফেরা করছিলেন অভিযুক্ত তিন যুবক। একটি ধর্মীয় অনুষ্ঠানের কাছে এমন কর্মকাণ্ড না করার জন্য তাদের নিষেধ করেন ইয়াকুব।  এতে ‘প্রেমিকার সামনে অপমানবোধ’ করেন কথিত প্রেমিক বাদল মিয়া। এর প্রতিশোধ নিতে ওই রাতেই ওয়াজ থেকে বাড়ি ফেরার পথে সহযোগীদের নিয়ে ছুরিকাঘাত করে ইয়াকুবকে গুরুতর আহত করা হয়। পরে রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ঘটনায় নিহতের ভাই হযরত আলী বাদী হয়ে তিনজনের বিরুদ্ধে সদর মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। দীর্ঘদিন বিচারিক কার্যক্রম শেষে বুধবার দুপুরে এ রায় দেয় আদালত।

প্রিয় সংবাদ/আজাদ চৌধুরী

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...