কুয়াতে চিতাবাঘ। ছবি: সংগৃহীত

গভীর কুয়ায় পড়েও বেঁচে গেল চিতাবাঘটি (ভিডিও)

নিশ্চিত মৃত্যু অপেক্ষা করছিল চিতাবাঘটির। আর সে কারণেই হয়তো বেশি লাফালাফি না করে এক জায়গাতেই বসেছিল সে।

আশরাফ ইসলাম
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ১০ অক্টোবর ২০১৮, ১৬:০৭ আপডেট: ১০ অক্টোবর ২০১৮, ১৬:০৭


কুয়াতে চিতাবাঘ। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) মুখ খোলা ৩০ ফুট গভীর একটি কুয়াতে পড়ে গিয়েছিল একটি চিতাবাঘ। কুয়াটির খাড়া দেয়ালের কারণে উপরে উঠতে পারছিল না সে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে ছিল সেখানে। পরে স্থানীয় একজন কুয়া থেকে পানি তুলতে গেলে চিতাটিকে কুয়ায় দেখতে পান। চিতাটিকে এ অবস্থায় দেখে তিনি খবর দেন বন বিভাগকে।

সম্প্রতি ভারতের মহারাষ্ট্রের ওটার রেঞ্জের যাদবওয়াড়ি গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে। 

খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছান বন বিভাগের সদস্যরা। তাদের সঙ্গে উদ্ধারকাজে ছিলেন ওয়াইল্ড লাইফ এসওএস নামের একটি সংগঠন।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিশ্চিত মৃত্যু অপেক্ষা করছিল চিতাবাঘটির। আর সে কারণেই হয়তো বেশি লাফালাফি না করে এক জায়গাতেই বসেছিল সে। 

বন বিভাগের উদ্ধারকারী সদস্যরা চিতাটিকে বসে থাকতে দেখে একটি বিশেষ খাঁচা বানান। খাঁচাটি কুয়ার মধ্যে নামানো মাত্র কোনোরকম চিন্তা না করে চিতাটি খাঁচার মধ্যে ঢুকে পড়ে।                                                                                    

এসওএস ওই উদ্ধারকাজের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শেয়ার করলে ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে পড়ে। ভিডিওটি দেখে অনেকেই বন বিভাগ আর ওয়াইল্ড লাইফ এসওএসের উদ্ধারকারী দলের সদস্যদের প্রশংসা করেছেন।

প্রিয় সংবাদ/আজাদ চৌধুরী

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
৬ লাখ ১২ হাজার ৫০০ মার্কিন ডলারে বিক্রি হলো উল্কাপিণ্ড
আয়েশা সিদ্দিকা শিরিন ২০ অক্টোবর ২০১৮
ভিডিওতে ভারতের দশেরা ট্র্যাজেডি
আশরাফ ইসলাম ২০ অক্টোবর ২০১৮
এবার মুখ থুবড়ে পড়ার চ্যালেঞ্জ!
আশরাফ ইসলাম ২০ অক্টোবর ২০১৮
ভারতে ট্রেনচাপায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬০
আয়েশা সিদ্দিকা শিরিন ২০ অক্টোবর ২০১৮
খাসোগিকে হত্যার কথা স্বীকার করল সৌদি
আশরাফ ইসলাম ২০ অক্টোবর ২০১৮
স্পন্সরড কনটেন্ট
ওয়েব থেকে
ফেরিঘাটে পদ্মায় পড়ে নিখোঁজ শিশুর মরদেহ উদ্ধার
ফেরিঘাটে পদ্মায় পড়ে নিখোঁজ শিশুর মরদেহ উদ্ধার
বণিক বার্তা - ১ দিন, ১৭ ঘণ্টা আগে
সকালের কুয়াশায় শীতের ঘ্রাণ
সকালের কুয়াশায় শীতের ঘ্রাণ
https://www.banglanews24.com/ - ৫ দিন, ১৭ ঘণ্টা আগে