রাষ্ট্রপতি মো: আবদুল হামিদ। ফাইল ছবি

বিএসটিআইকে আরও দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে: রাষ্ট্রপতি

রাষ্ট্রপতি বলেন, এবারের বিশ্ব মান দিবসের প্রতিপাদ্য ‘৪র্থ শিল্পবিপ্লবের প্রেক্ষাপটে আন্তর্জাতিক মান’ বর্তমান বিশ্বে দ্রুত বিকাশমান শিল্প উন্নয়নের প্রেক্ষাপটে অত্যন্ত সময়োপযোগী হয়েছে।

জানিবুল হক হিরা
লেখক
প্রকাশিত: ১৩ অক্টোবর ২০১৮, ২০:৪২
আপডেট: ১৩ অক্টোবর ২০১৮, ২০:৪২


রাষ্ট্রপতি মো: আবদুল হামিদ। ফাইল ছবি

(বাসস) পণ্যের মান প্রণয়ন ও উন্নয়নের মাধ্যমে জনগণকে কাঙ্ক্ষিত সেবা প্রদানে বিএসটিআই-কে আরও দক্ষ, জবাবদিহি ও দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে বলে জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ

১৪ অক্টোবর, রবিবার বিশ্ব মান দিবস উপলক্ষে ১২ অক্টোবর, শনিবার এক বাণীতে এ কথা জানান আবদুল হামিদ।

বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই)-এর উদ্যোগে বিশ্বের অন্যান্য দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও বিশ্ব মান দিবস পালিত হচ্ছে জেনে রাষ্ট্রপতি সন্তোষ প্রকাশ করেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, এবারের বিশ্ব মান দিবসের প্রতিপাদ্য ‘৪র্থ শিল্পবিপ্লবের প্রেক্ষাপটে আন্তর্জাতিক মান’ বর্তমান বিশ্বে দ্রুত বিকাশমান শিল্প উন্নয়নের প্রেক্ষাপটে অত্যন্ত সময়োপযোগী হয়েছে।

রাষ্ট্রপতি বলেন, শিল্প ও ব্যবসা-বাণিজ্যের সকল পর্যায়ে প্রথম এবং প্রধান শর্ত হলো আন্তর্জাতিক মান অনুসরণ। শিল্প বিপ্লবের এ যুগে গুণগত মানসম্পন্ন প্রযুক্তি ও পদ্ধতির কোনো বিকল্প নেই। বিশেষ করে শিল্পকারখানায় আজ মানুষের পরিবর্তে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার বৃদ্ধি পাচ্ছে, মনুষ্য শ্রমের জায়গায় কারিগরি ও তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর শ্রম জায়গা করে নিচ্ছে। ফলে প্রযুক্তির গুণগতমান নির্ধারণে আন্তর্জাতিক মানের গুরুত্ব বৃদ্ধি পেয়েছে।

তিনি বলেন, এ ক্ষেত্রে প্রযুক্তিবিদ, প্রকৌশলী ও উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠানগুলোর উদ্ভাবিত পণ্যসমূহের মধ্যে সংগতিসাধন ও প্রযুক্তিগত আন্তঃস্থানান্তর নিশ্চিত করা অত্যন্ত জরুরি। মানুষের জীবনযাত্রাকে সহজ ও সুন্দর করতে প্রযুক্তির ব্যবহার ক্রমশ বাড়ছে। তাই প্রযুক্তি উদ্ভাবন ও তার ব্যবহারের ক্ষেত্রে প্রযুক্তিগত অভিযোজন, নিরাপত্তা ঝুঁকি ও পারিপার্শ্বিক পরিবেশের ওপর এর প্রভাব গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করতে হবে।

আবদুল হামিদ বলেন, বাংলাদেশকে ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে রূপান্তরের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। এ লক্ষ্য অর্জনে সকল ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক মান অনুসরণ অপরিহার্য। জাতীয় মান সংস্থা হিসেবে বিএসটিআই-এর এ ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। জনগণের আস্থা পূরণে বিএসটিআই কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করবে, এটাই দেশবাসীর প্রত্যাশা।

প্রিয় সংবাদ/হিরা/শান্ত 

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
জাপানে বিজয় দিবস উদ্‌যাপিত
প্রিয় ডেস্ক ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮
‘আমরা তোমাদের ভুলবো না’
সৌরভ মাহমুদ ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮
চকলেটে ঢেকে গেল শহরের রাস্তা!
আশরাফ ইসলাম ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮
বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
মোক্তাদির হোসেন প্রান্তিক ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮
স্পন্সরড কনটেন্ট