আফগানিস্তান প্রিমিয়ার লিগে (এপিএল) ব্যাট হাতে সময়টা মোটেও ভালো যাচ্ছে না শহীদ আফ্রিদির। ছবি: সংগৃহীত

ডিম দিবসে ‘ডাক’, মাঠে-বাইরে বিদ্রুপের শিকার আফ্রিদি

এপিএলে পাকতিয়া প্যানথার্সের হয়ে  প্রথম চার ম্যাচে আফ্রিদির রান যথাক্রমে ১, ১৯, ১* ও ০।

সৌরভ মাহমুদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ১৪ অক্টোবর ২০১৮, ০৯:২৩ আপডেট: ১৪ অক্টোবর ২০১৮, ০৯:২৩


আফগানিস্তান প্রিমিয়ার লিগে (এপিএল) ব্যাট হাতে সময়টা মোটেও ভালো যাচ্ছে না শহীদ আফ্রিদির। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) আফগানিস্তান প্রিমিয়ার লিগে (এপিএল) সময়টা মোটেও ভালো যাচ্ছে না শহীদ আফ্রিদির। বল হাতেও পাচ্ছেন না উইকেটের দেখা। আবার ব্যাট হাতেও ছন্নছাড়া পাকিস্তানি এই তারকা অলরাউন্ডার। এপিএলে পাকতিয়া প্যানথার্সের হয়ে  প্রথম চার ম্যাচে আফ্রিদির রান যথাক্রমে ১, ১৯, ১* ও ০।

এর মধ্যে সর্বশেষ ম্যাচে কান্দাহার নাইটসের বিপক্ষে ডাক মেরে তুমুল সমালোচনার মুখে আফ্রিদি। কাকতালীয়ভাবে ডাক মারার দিনটি ছিল ‘বিশ্ব ডিম দিবস’। শূন্য রানে সাজঘরে ফেরার দিন মাঠেই তাকে নিয়ে রসিকতা করেন কান্দাহারের অধিনায়ক আসগর আফগান। পরবর্তী সময়ে ম্যাচ শেষে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে শুরু হয় তুমুল হাস্যরস।

কান্দাহারের বিপক্ষে ম্যাচের ১০ম ওভার চলছিল তখন। বোলিংয়ে ছিলেন ওয়াকার সালামখেইল। আফ্রিদি মাঠে নামতেই স্টেডিয়ামের দর্শকরা ‘বুম বুম’ গর্জন তোলে। আশায় ছিল, মারকাটারি খেলা উপহার দেবেন আফ্রিদি। কিন্তু দ্বিতীয় বলেই শূন্যে ক্যাচ তুলে দেন ৩৮ বছর বয়সী এই পাকিস্তানি অলরাউন্ডার।

আফ্রিদির ক্যাচ লুফে নিয়ে তার মতো করেই উদযাপন আসগর আফগানের। ছবি: সংগৃহীত

সীমানার কাছ থেকে ক্যাচটি ধরে ঠিক আফ্রিদির উদযাপন ভঙ্গিমা নকল করে হালকা রসিকতা করেন আসগর। ম্যাচ শেষ হতেই সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে চলে তুমুল ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ। কেউ কেউ আফ্রিদিকে ‘ডাক মাস্টার’ বলেও আখ্যা দেন। আবার কেউ কেউ বলেন, এ কারণেই আফ্রিদি কিংবদন্তি!

সমালোচকদের টুইটের একাংশ।

নিজের দীর্ঘ ক্যারিয়ারে বহু ম্যাচ জেতানো ইনিংস উপহার দিয়েছেন আফ্রিদি। তবে তার ক্যারিয়ারের বড় একটা অংশজুড়ে আছে ‘ডাক’। ২০ বছরের ক্যারিয়ারে ৫২৩টি ম্যাচে ৪৪ বার ডাক মেরেছেন তিনি। ওয়ানডে ক্রিকেটে এই পাকিস্তানি অলরাউন্ডার ডাক মেরেছেন ৩০টি, যা দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। প্রথম স্থানে আছে সনাৎ জয়সুরিয়া (৩৪)।

টি-টোয়েন্টিতে তো সবার ওপরের স্থানেই আছেন আফ্রিদি। এই ফরম্যাটের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৮ বার আর ঘরোয়া লিগে ২১ বার মিলিয়ে মোট ২৯ বার ডাক মেরেছেন তিনি। অবশ্য টেস্টে তুলনমূলক কম ডাক মেরেছেন (৬ বার)। সব ধরনের ক্রিকেট মিলিয়ে আফ্রিদির ডাক সংখ্যা ৮১টি।

সব ঘরোয়া লিগ মিলিয়ে ডাক মারার সর্বোচ্চ রেকর্ডটা সম্ভবত আফ্রিদির একার দখলেই রয়েছে। তাই তো ডিম দিবসে ডাক মারতেই ক্রিকেটভক্তরা বলছে, আফ্রিদির ডাক মারায় সার্থক হলো ‘বিশ্ব ডিম দিবস’!

প্রিয় খেলা/রুহুল 

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
স্পন্সরড কনটেন্ট
ট্রেন্ডিং