নেপালের ধুলাগিরি পর্বতমালা। ছবি: সংগৃহীত

নেপালে নিহত ৯ পর্বতারোহীর সন্ধান শুরু

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক জরুরি সহায়তা সংস্থা গ্লোবাল রেসকিউর ড্যান রিচার্ড বলেন, ‘পর্বতারোহীদের শিবিরটি এমনভাবে ছিন্নভিন্ন হয়েছে যে, মনে হবে সেখানে বোমা হামলা চালানো হয়েছে।’

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ১৪ অক্টোবর ২০১৮, ২২:৩২ আপডেট: ১৪ অক্টোবর ২০১৮, ২২:৩২
প্রকাশিত: ১৪ অক্টোবর ২০১৮, ২২:৩২ আপডেট: ১৪ অক্টোবর ২০১৮, ২২:৩২


নেপালের ধুলাগিরি পর্বতমালা। ছবি: সংগৃহীত

(বাসস) নেপালের মাউন্ট গুরজায় ভয়ঙ্কর ঝড়ের আঘাতে নিহত ৯ পর্বতারোহীর লাশ উদ্ধারে অভিযান শুরু হয়েছে।

১৪ অক্টোবর, রবিবার একটি উদ্ধারকারী দল হেলিকপ্টার নিয়ে অভিযান শুরু করে। 

বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে জানানো হয়, দক্ষিণ কোরীয় ওই পর্বতারোহীরা যেখানে শিবির স্থাপন করেছিলেন, তার ঠিক নিচের একটি গ্রামে উদ্ধারকারীদের একটি হেলিকপ্টার পৌঁছেছে। সেখানে শক্তিশালী ঝড়ো বাতাস ও তুষারপাতে পর্বতারোহীদের ক্যাম্প পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে গেছে। এতে পর্বতারোহী দলের সব সদস্যের মৃত্যু হয়েছে। তাদের দেহ সেখান থেকে ৫০০ মিটার দূরে ছড়িয়ে পড়ে।

উদ্ধার অভিযানের সমন্বয় করবেন হেলিকপ্টার চালক সিদ্ধার্থ গুরুং। তিনি জানান, হেলিকপ্টার চারজন গাইডকে ঘটনাস্থলে নামিয়ে দেবে। তারা লাশগুলো উদ্ধার করবেন।

শনিবার নেপালের অন্নপূর্ণা অঞ্চলের ঢাউলাগিরি পাহাড়ের দুর্গম স্থানে পৌঁছানোর চেষ্টা করা হচ্ছিল। শক্তিশালী বাতাসে অভিযান বিঘ্নিত হচ্ছিল। সিদ্ধার্থ ওই এলাকায় পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক জরুরি সহায়তা সংস্থা গ্লোবাল রেসকিউর ড্যান রিচার্ড বলেন, ‘পর্বতারোহীদের শিবিরটি এমনভাবে ছিন্নভিন্ন হয়েছে যে, মনে হবে সেখানে বোমা হামলা চালানো হয়েছে।’

দক্ষিণ কোরীয় নাগরিক কিম চ্যাং-হো পবর্তারোহী দলটির নেতৃত্ব দেন। তিনি অক্সিজেন সিলিন্ডারের সহায়তা ছাড়াই বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ১৪টি পর্বতে আরোহন করেছেন। দলটিতে পাঁচ দক্ষিণ কোরীয় নাগরিক ও চারজন নেপালি গাইড ছিলেন। চলতি বছরের অক্টোবরের শুরু থেকে তারা মাউন্ট গুরজার শীর্ষে যাওয়ার জন্য এই অভিযান শুরু করেন। পর্বতটির উচ্চতা ৭ হাজার ১৯৩ মিটার (২৩ হাজার ৫৯৯ ফুট)।

প্রিয় সংবাদ/নোমান/আজহার

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

বলুন তো ইনি কে!

প্রিয় ১০ ঘণ্টা, ৪৭ মিনিট আগে

loading ...