প্রতীকী ছবি

কারণ তুমি নারী

‘সারাদিন ‘‘নারী অধিকার, অধিকার’’ বলে মুখের ফেনা তুলে ফেললেও আদৌ আমরা কতটুকু অধিকার দিতে পেরেছি?’

ফুয়াদ খন্দকার
লেখক
প্রকাশিত: ২৫ অক্টোবর ২০১৮, ১৭:৫৮ আপডেট: ২৫ অক্টোবর ২০১৮, ১৭:৫৮


প্রতীকী ছবি

‘বের হ হারামজাদী আমার বাড়ি থাইকা’ বলে মারতে মারতে আসিমাকে ঘর থেকে বের করে দিলো তার স্বামী মাহমুদ। কত্ত বড় সাহস! বিয়ের সময় তার বাবা বলেছিল, ২ লাখ টাকা দেবে। এক বছর হয়ে গেল। এখনো টাকা দেয়নি।

চোখের জল মুছতে মুছতে আসিমা রাস্তা ধরে হাঁটতে লাগল।

এ ধরনের দৃশ্য আমাদের দেশে হরহামেশাই দেখা যায়। আচ্ছা, সবসময় নারীদেরকেই কেন এ ধরনের অত্যাচার সহ্য করতে হয়?

যেদিন থেকে বুঝতে শিখেছি, সেদিন থেকেই দেখেছি সব জায়গাতে শুধু নারীদেরকেই ভিকটিম (ভুক্তভোগী) হতে হয়। এটা যেন আমাদের সমাজের একটা নিয়মিত চিত্র হয়ে দাঁড়িয়েছে।

প্রতিদিন পত্রিকা খুললে নারী নির্যাতনের কোনো না কোনো খবর আমাদের চোখের সামনে আসবেই। কখনো যৌতুক, কখনো  ধর্ষণ, কখনো নির্যাতন, কখনো বা এসিড নিক্ষেপ।

সারাদিন ‘নারী অধিকার, অধিকার’ বলে মুখের ফেনা তুলে ফেললেও আদৌ আমরা কতটুকু অধিকার দিতে পেরেছি?

আচ্ছা, কখনো কি শুনেছেন, কোনো নারী কোনো ছেলেকে এসিড মেরেছে? কিন্তু পত্রিকাতে সবসময়ই নিউজ হয় নারীদের মুখে এসিড মারার গল্প। 

আচ্ছা, কখনো কি শুনেছেন গণপরিবহনে কোনো ছেলেকে হয়রানির স্বীকার হতে? কিন্তু নারীদেরকে প্রতিনিয়তই হতে হয়।

আচ্ছা, কখনো কি শুনেছেন প্রেমে ব্যর্থ হয়ে কোনো নারী কোনো পুরুষকে হত্যা করেছে? বাস্তব সত্যটা আপনারা সবাই জানেন।

আচ্ছা, দেহ বিক্রি করা নারীদেরকেই শুধু কেন পতিতা বলে ডাকা হয়? ছেলেগুলো কি ধোয়া তুলসি পাতা?

একজন মেয়ে যখন বিয়ে করে, তখন তার বাবা-মা পরিবার সবাইকে ছেড়ে একটু সুখের আশায় অন্যের ঘরে বউ হয়ে আসে। তার পরেও তাদের ওপর কি অত্যাচার থেমে থাকে? 

নির্জন রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে তরুণীদের ধর্ষণ? কী, শুনে হাসি পাচ্ছে? কিন্তু একজন নারীর বেলায় এটা নিত্যদিনের ঘটনা।

কখনো কি শুনেছেন, শ্বশুরবাড়িতে স্বামীকে নির্যাতনের খবর? কিন্তু স্ত্রীদের বেলায় এই ঘটনা খুবই কমন। 

আচ্ছা, একজন নারীকেই কেন এত কষ্ট করা লাগে? একজন নারীকেই কেন এত অনিরাপদ থাকতে হয়?একজন নারীকেই কেন সবকিছু মুখ বুজে সহ্য করা লাগে? আমাদের পুরুষত্ব দেখানোর জন্য আমরা কেন শুধু মেয়েদেরকেই বেছে নিই?

যে রিকশাচালক সারাদিন রিকশা চালিয়ে প্যাসেঞ্জারদের লাথি-গুতা খায়, সেই রিকশাচালকও রাতে বাসায় গিয়ে বিশাল পুরুষ মানুষ হয়ে স্ত্রীকে নির্যাতন করে। অথচ এই নারীই কারো মা, কারো বোন, কারো প্রিয় মানুষ।

যতদিন না আমরা আমাদের নিজেদের ভেতর থেকে পরিবর্তন করতে পারব, ততদিন পর্যন্ত আমরা নারী অধিকারের জন্য যত চিৎকারই করি, কোনো লাভ হবে না। 

স্বপ্ন দেখি, এই  নারীরই গর্ভে জন্ম নেওয়া কোনো সন্তান আর অমানুষ হবে না। স্বপ্ন দেখি সুন্দর একটি সমাজের, যে সমাজে গভীর রাতে কোনো মেয়ে একলা নির্জন রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাবে। কিন্তু তার মনে কোনো ভয় কাজ করবে না।

[প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। প্রিয়.কম লেখকের মতাদর্শ ও লেখার প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত মতামতের সঙ্গে প্রিয়.কমের সম্পাদকীয় নীতির মিল না-ও থাকতে পারে।]

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
মায়ের গর্ভ থেকে বাবার হাসির শব্দ শুনতে পাই
মো. গোলাম মোস্তফা (দুঃখু) ২০ নভেম্বর ২০১৮
বদলে যাচ্ছে বাংলাদেশের রাজনীতির মেরুকরণ?
সাইমুম পারভেজ ১৯ নভেম্বর ২০১৮
শেখ হাসিনা: বাংলার মা
মৌলি আজাদ ১৫ নভেম্বর ২০১৮
বিজনেস এথিকস বনাম ডাটা পাইরেসি
ইকবাল আহমদ ফখরুল হাসান ১৫ নভেম্বর ২০১৮
স্পন্সরড কনটেন্ট
নারী প্রার্থীদের উপস্থিতি বেড়েছে
নারী প্রার্থীদের উপস্থিতি বেড়েছে
https://www.prothomalo.com/ - ১ দিন, ২১ ঘণ্টা আগে
ঘরের বাইরে নারী কেন এত প্রশ্নের মুখে?
ঘরের বাইরে নারী কেন এত প্রশ্নের মুখে?
বিবিসি বাংলা - ৩ দিন, ২ ঘণ্টা আগে
নারী অধিকার কর্মীরাও কি 'মি-টু' এড়িয়ে যাচ্ছেন?
নারী অধিকার কর্মীরাও কি 'মি-টু' এড়িয়ে যাচ্ছেন?
বিবিসি বাংলা - ৩ দিন, ২ ঘণ্টা আগে
রোহিঙ্গা নারী যখন ‘হয়রানি মামলার হাতিয়ার’
রোহিঙ্গা নারী যখন ‘হয়রানি মামলার হাতিয়ার’
বিডি নিউজ ২৪ - ৪ দিন, ২২ ঘণ্টা আগে