কিছু অভ্যাস বদলে ফেলুন, ঘর গোছানো কঠিন হবে না। ছবি: সংগৃহীত

ঘর গোছানোর যেসব খারাপ অভ্যাস বদলে ফেলাই ভালো

নিজের কিছু খারাপ অভ্যাসের কারণেই ঘর অগোছালো হয়ে থাকে!

কে এন দেয়া
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ০৮ নভেম্বর ২০১৮, ০৮:১৯ আপডেট: ০৮ নভেম্বর ২০১৮, ০৮:২০


কিছু অভ্যাস বদলে ফেলুন, ঘর গোছানো কঠিন হবে না। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) জীবনযাপন করলে ঘর এলোমেলো হবে এটাই স্বাভাবিক।  ঘর গুছিয়ে রাখবেন, এরপর কয়েক দিনের মাঝে তা আবারও এলোমেলো হবে, এমনটাই হয়।  সাধারণত ঘর গুছিয়ে রাখার মতো সময় বের করে নিতে পারেন সবাই। কিন্তু ব্যস্ততা বেড়ে গেলে কিছু কিছু কাজ এড়িয়ে যান অনেকেই, যা পরে ঝামেলা আরও বাড়িয়ে দিতে পারে।  একটা সময়ে ঘর এতই এলোমেলো হয়ে যায় যে তারা হাল ছেড়ে দেন।  

ঘর এমন এলোমেলো হয়ে গেলে আপনার কিছু অভ্যাসে পরিবর্তন আনা উচিত। কারণ এসব অভ্যাসের কারণেই ঘর এতই এলোমেলো হয়ে যায় যে তা আর গোছানো সম্ভব হয় না। জেনে নিন এমনই কিছু অভ্যাসের কথা-

১) একটি ড্রয়ারে সব অপ্রয়োজনীয় জিনিস রাখা

হাতের কাছে থাকা টুকিটাকি জিনিস একসাথে জড়ো করে একটা ড্রয়ারে রেখে দেন অনেকেই। এটা খারাপ অভ্যাস নয়। এতে টেবিলের ওপর জিনিস জমে না। কিন্তু ওই ড্রয়ারে অনেক সময়ে এত বেশি জিনিস জমে যায় যে ড্রয়ার খোলাই যায় না। এমন পরিস্থিতি তৈরি করা যাবে না।  ছোট ছোট জিনিস যেমন বোতাম, পেরেক, রাবার ব্যান্ড ছোট প্যাকেটে করে রাখুন বা লেবেল করা বক্সে রাখুন। আর এই ড্রয়ারে এত জিনিস আঁটবেন না যেন ড্রয়ারটাই খোলা না যায়।

২) রান্নার সময়ে বাসনপত্র ময়লা করে রাখা

রান্না করতে গেলে কিচেন ময়লা হবেই।  কিন্তু রান্নার পর এসব বাসনপত্র এঁটো করে রাখা যাবে না।  রান্নার ফাঁকে ফাঁকেই একটা করে প্লেট বা চামচ ধুয়ে উঠিয়ে রাখুন। রান্নার পর এসব এঁটো জিনিস ফেলে রাখলে তাতে খাবারের দাগ বসে যাবে আর আপনার ওপর আলস্য ভর করবে।  খুব বেশি ময়লা বা পোড়া হাড়ি বাদে বাকি সব জিনিস রান্নার ফাঁকে ফাঁকে ধুয়ে ফেলুন।

৩) দাগ তুলতে দেরি করা

পোশাকে, ফার্নিচারে বা কার্পেটে দাগ পড়তেই পারে। কিন্তু অনেকেই এই দাগ সাথে সাথে পরিষ্কার না করে ফেলে রাখেন পরে পরিষ্কার করবেন বলে। এই অভ্যাসটি ভাঙ্গুন। দাগ পড়ার ঘন্টাখানেকের মাঝেই তা পরিষ্কার করে ফেলুন। নয়তো এসব জিনিস নষ্ট হবে দ্রুত।

৪) খবরের কাগজ, ম্যাগাজিন ও চিঠিপত্র ফেলে রাখা

কাগজ ধরণের এসব জিনিস কফি টেবিলে বা আলমারির ওপর জমা হতে দেবেন না।  দরকারি কাগজ সরিয়ে আলাদা করে রাখুন, নয়তো হারিয়ে যেতে পারে। অল্প কিছু ম্যাগাজিন কফি টেবিলে রাখতে পারেন।  কিন্তু বছরের পর বছর ম্যাগাজিন জমা করে রাখবেন না।

৫) কাপড় না ধুয়ে জমিয়ে রাখা

প্রতিদিনের কাপড় ধুয়ে ফেলার চেষ্টা করুন। অন্তত সপ্তাহে একবার হলেও কাপড় ধুয়ে শেষ করুন।  একটি নিয়ম তৈরি করে ফেলতে পারেন। এক বালতি বা ওয়াশিং মেশিনে একবার ধুয়ে ফেলার মতো কাপড় জমলেই ধুয়ে ফেলুন। এতে তা বেশি জমার সুযোগ পাবে না।

৬) চেয়ারে কাপড় জমিয়ে রাখা

বাড়িতে ফিরেই শার্ট, মোজা, ওড়না ইত্যাদি চেয়ারে ছড়িয়ে রেখে দেবেন না। এতে কাপড়গুলো অবহেলায় পড়ে থাকে ও জমে যায়। একটা সময় তা আর পরার যোগ্য থাকে না। বাইরে থেকে এসে কাপড় হ্যাঙ্গারে করে বারান্দায় রাখুন বা ময়লা হলে ময়লার ঝুড়িতে রেখে দিন।  

সূত্র: অ্যাপার্টমেন্ট থেরাপি

প্রিয় লাইফ/ আর বি 

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
স্পন্সরড কনটেন্ট