ছাত্রদল ও শিবির আখ্যা দিয়ে ছাত্রলীগ নেতারা মারধর করেন বলে দাবি করেছেন ভুক্তভোগী জীবন। ছবি: সংগৃহীত

রাবিতে শিক্ষার্থীকে ‘পেটালেন’ ছাত্রলীগ নেতারা

কোটা সংস্কার, নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনসহ বেশ কয়েকটি আন্দোলনে নেতৃত্ব দেওয়ায় মারধর করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী।

আকরাম হোসাইন
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ১৭:৫৩ আপডেট: ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ১৭:৫৩
প্রকাশিত: ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ১৭:৫৩ আপডেট: ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ১৭:৫৩


ছাত্রদল ও শিবির আখ্যা দিয়ে ছাত্রলীগ নেতারা মারধর করেন বলে দাবি করেছেন ভুক্তভোগী জীবন। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ কয়েকজন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে এক শিক্ষার্থীকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। কোটা সংস্কার, নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনসহ বেশ কয়েকটি আন্দোলনে নেতৃত্ব দেওয়ায় মারধর করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী।

১৩ নভেম্বর, মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ছাত্রলীগের দলীয় টেন্টে এ ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর নাম নাফিউল ইসলাম জীবন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী।

অভিযোগ থাকা নেতারা হলেন—শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া, সহ-সভাপতি সাব্বির হোসেন, সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু, সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান মিশু ও ইমতিয়াজ আহমেদ।

ভুক্তভোগী জীবনের দাবি, ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বিভাগের বড় ভাই ইমতিয়াজ আহমেদ তাকে মুঠোফোনে কল দিয়ে প্রথমে বঙ্গবন্ধু হলে ডাকেন। এর কিছুক্ষণ পর তাকে টুকিটাকিতে ডাকেন। জীবন সেখানে গেলে লাইব্রেরির পেছনে (ছাত্রলীগের দলীয় টেন্টে) আসতে বলেন ইমতিয়াজ।

সেখানে যাওয়ার পর জীবনের ফেইসবুক আইডিতে লগইন করেন ইমতিয়াজ। আইডিতে কোটা সংস্কার আন্দোলন, নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের পোস্ট দেখে জীবনকে ছাত্রদল, শিবির আখ্যা দিয়ে মারধর করেন ওই ছাত্রলীগ নেতারা।

মারধরের কারণ জানতে চাইলে জীবন দাবি করেন, ‘কোটা সংস্কার আন্দোলন, নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের সাথে যুক্ত আছি এবং ছাত্রদলের কিছু কার্যক্রমে অংশ নেওয়ার ছবি মোবাইলে ছিল। তা দেখে আমাকে মারধর করেন তারা।’

অভিযোগ অস্বীকার করে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু বলেন, ‘তার (জীবন) ফেসবুকে কিছু সরকারবিরোধী স্ট্যাটাস পাওয়া গেছে। কিন্তু তাকে মারধর করা হয়নি।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান জানান, এ ধরনের কোনো ঘটনা তার জানা নেই।

প্রিয় সংবাদ/নোমান/আজাদ চৌধুরী