বিসিবি একাদশ-উইন্ডিজের মধ্যকার দুইদিনের প্রস্তুতি ম্যাচের দৃশ্য। ছবি: বিসিবি

প্রস্তুতিটা ভালোই হলো সৌম্য-মিথুনের

বিসিবি একাদশ ৫ উইকেটে ২৩২ রান করার পর ড্র মেনে নেন দুই দলের অধিনায়ক।

সৌরভ মাহমুদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ১৮:৩৫ আপডেট: ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ১৮:৩৫
প্রকাশিত: ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ১৮:৩৫ আপডেট: ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ১৮:৩৫


বিসিবি একাদশ-উইন্ডিজের মধ্যকার দুইদিনের প্রস্তুতি ম্যাচের দৃশ্য। ছবি: বিসিবি

(প্রিয়.কম) আগামী ২২ নভেম্বর চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে শুরু হবে দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্ট। মূল লড়াইয়ের আগে দুইদিনের প্রস্তুতি ম্যাচে উইন্ডিজের মুখোমুখি হয়েছিল বিসিবি একাদশ। এই দলে টেস্ট সিরিজের মূল স্কোয়াডের চার ক্রিকেটার-সৌম্য সরকার, মোহাম্মদ মিথুন, সাদমান ইসলাম ও নাঈম হাসানও ছিলেন। একমাত্র এই প্রস্তুতি ম্যাচে নিজেদের প্রস্তুতিটা ভালোভাবেই সেরে নিলেন এই চার ক্রিকেটার।

এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে প্রথম দিনে ৬ উইকেট হারিয়ে ৩০৩ রান তোলার পর ইনিংস ঘোষণা করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। জবাবে দ্বিতীয় দিন বিসিবি একাদশ ৫ উইকেটে ২৩২ রান করার পর ড্র মেনে নেন দুই দলের অধিনায়ক।

ম্যাচের প্রথম দিন অফস্পিনার নাঈম নেন দুটি উইকেট। দ্বিতীয় দিনে ব্যাটিংয়ে নেমে সৌম্য খেলেছেন ৭৮ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস। ১০৩ বলের এই ইনিংসটি ১০ চার ও তিন ছক্কায় সাজান বাঁহাতি এই ওপেনার। ওপেনিংয়ে তার সঙ্গী সাদমানও উপহার দেন ১৬৯ বলে ১০ চার ও এক ছক্কায় ৭৩ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস। এছাড়া মিঠুন অপরাজিত থাকেন ২৮ রান করে। খেলেছেন সময় নিয়ে। ১২২ মিনিট উইকেটে কাটিয়ে মোকাবেলা করেন ৭০ বল।

ইনিংসের গোড়াপত্তন করতে নেমে সৌম্য ও সাদমান ইসলাম মিলে গড়েন ১২৬ রানের জুটি। টেস্ট ক্রিকেটের সঙ্গে মানানসই ব্যাটিংয়েই হাফ সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন সৌম্য। রান-বলের সমীকরণ বলছে যথেষ্টই আক্রমণাত্মক ছিলেন বাঁহাতি ওপেনার। তবে এ দিন ছেড়েছেন অনেক বল, কাজে লাগিয়েছেন বাজে বলগুলো। এক বছরের বেশি সময় পর টেস্ট খেলার অপেক্ষায় থাকা সৌম্যকে ফেরান বাঁহাতি স্পিনার জোমেল ওয়ারিক্যান।

ব্যাটিং সহায়ক উইকেটে উইন্ডিজ পেসারদের দারুণ সামলেছেন বিসিবি একাদশের ব্যাটসম্যানরা। সৌম্যর দিনে সাদমান করেছেন ৭৩ রান। সবশেষ ওয়ালটন ২০তম জাতীয় ক্রিকেট লিগে ঢাকা মেট্রোর এ ব্যাটসম্যান ১০ ইনিংস খেলে রান করেছেন সর্বোচ্চ ৬৪৮। ঘরোয়া ক্রিকেটের সেই ধারাবাহিকতা বজায় রেখেছেন প্রস্তুতি ম্যাচে। এই ম্যাচ শেষ হতেই পেয়েছেন সুখবর। প্রথমবারের মতো ডাক পেয়েছেন জাতীয় দলে।

সৌম্য-সাদমানের পর নাজমুল হোসেন শান্ত ও মোহাম্মদ মিথুনরাও উইন্ডিজের মূল বোলারদের ভালোভাবেই সামলেছেন। এতে পাঁচ উইকেট হারিয়ে অনায়াসেই ২৩২ রান তুলে ফেলে স্বাগতিকরা। শেষ পর্যন্ত ড্র মেনে নেন দুই দলের অধিনায়ক।

আগামী ২২ নভেম্বর বন্দরনগরীর জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে শুরু হবে সিরিজের প্রথম টেস্ট।

প্রিয় খেলা/শান্ত 

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...