বাংলাদেশ ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের মধ্যকার ম্যাচের একটি মুহূর্ত। ছবি: সংগৃহীত

আরব আমিরাতের বিপক্ষেই সোহান-মোসাদ্দেকদের এমন হার!

ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় হার দিয়েই শুরু হয়েছে বাংলাদেশ অনূর্ধ-২৩ ক্রিকেট দলের ইমার্জিং এশিয়া কাপ মিশন।

মুশাহিদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৭:০৭
আপডেট: ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৭:৫৫


বাংলাদেশ ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের মধ্যকার ম্যাচের একটি মুহূর্ত। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) দেরি করে হলেও বল হাতে খানিকটা দাপট দেখিয়েছিলেন পেসাররা। কিন্তু পেসারদের সেই দাপট রঙ হারিয়েছে ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায়। সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিপক্ষে ২৬৮ রানের বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে কোনো প্রতিরোধ গড়তে পারেননি বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানরা। ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় হার দিয়েই শুরু হয়েছে বাংলাদেশ অনূর্ধ-২৩ ক্রিকেট দলের ইমার্জিং এশিয়া কাপ মিশন।

৬ ডিসেম্বর, বৃহস্পতিবার পাকিস্তানের করাচিতে টস জিতে আগে ব্যাটিং করতে নেমে দুই বল বাকি থাকতে গুটিয়ে যায় আমিরাত। তবে গুটিয়ে যাওয়ার আগে ২৬৭ রানের বড় সংগ্রহ পায় তারা।

জবাবে ৩৬.৫ ওভারে স্কোরকার্ডে ১৭০ রান যোগ করতেই গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ। এমন ব্যাটিং বিপর্যয়ে ৯৭ রানের হার নিয়ে মাঠ ছাড়ে কাজী নুরুল হাসান সোহানের দল।

২৬৮ রানের বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দেখেশুনেই শুরু করেছিলেন দুই ওপেনার মিজানুর রহমান ও জাকির হোসেন। কিন্তু সাবধানী ব্যাটিংয়েও শেষ রক্ষা হয়নি। স্কোরকার্ডে ২৮ রান যোগ করতেই ভাঙে বাংলাদেশের উদ্বোধনী জুটি। ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে ব্যক্তিগত ৩ রানে বিদায় নেন জাকির। ১৮ রানের ব্যবধানে সাজঘরে ফেরেন নাজমুল হোসেন শান্ত।

তৃতীয় উইকেট জুটিতে ইয়াসির আলিকে নিয়ে খানিকটা প্রতিরোধ গড়ে তোলার চেষ্টা করেছিলেন আরেক ওপেনার মিজানুর রহমান। কিন্তু মিজানুরকে ৪৩ রানে থামিয়ে প্রতিরোধ ভাঙেন ইমরান হায়দার। এরপরই শুরু হয় উইকেট হারানোর মিছিল। একই ওভারে সাজঘরে ফেরেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। রানের খাতা খোলার আগেই বিদায় নেন তিনি।

দুই বলের ব্যবধানে ব্যবধান ইয়াসির আলিও। আউট হওয়ার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ২০ রান। স্কোরকার্ডে ৭৯ রান যোগ করতেই ৫ উইকেট হারানো বাংলাদেশকে পথ দেখাতে ব্যর্থ হন অধিনায়ক কাজী নুরুল হাসান সোহানও। তিনিও বিদায় নেন রানের খাতা খোলার আগে। ৮ বল খেলেও রানের খাতা খুলতে পারেননি তিনি। ৮০ রানে ৬ উইকেট হারানোর পর দেখা দেয় ১০০ রানের আগেই গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কা।

শেষ পর্যন্ত দলীয় সংগ্রহ ১০০ পেরোলেও ম্যাচে আত ফেরা হয়নি বাংলাদেশের। লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যানরা কিছুটা রান পেলেও ছিলেন আসা যাওয়ায় ব্যস্ত। শেষ দিকে নবম উইকেটে ৫৪ রানের জুটি গড়ে পরাজয়ের ব্যবধান কমান শফিউল ইসলাম ও শরিফুল ইসলাম। ইনিংসে এটাই বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রানের জুটি। শফিউল ৩২ রানে আউট হলেও ৩১ রানে অপরাজিত থাকেন শরিফুল। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে খালেদ আহমেদ ৬ রানে আউট হলেও ১৭০ রানে থামে বাংলাদেশ।   

এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ২৬৭ রানের বড় সংগ্রহ পায় সংযুক্ত আরব আমিরাত। ব্যাট হাতে দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৯৮ রান করেন ওপেনার আশফাক আহমেদ। এদিকে বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ চার উইকেট নেন তরুণ বাঁহাতি পেসার শরিফুল ইসলাম। 

প্রিয় খেলা/রিমন

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
স্পন্সরড কনটেন্ট
কাপাসিয়ার ওসি বদলের দাবি বিএনপি প্রার্থীর
কাপাসিয়ার ওসি বদলের দাবি বিএনপি প্রার্থীর
বিডি নিউজ ২৪ - ২ দিন, ৫ ঘণ্টা আগে
২০২০ এশিয়া কাপ পাকিস্তানে!
২০২০ এশিয়া কাপ পাকিস্তানে!
https://samakal.com/ - ৫ দিন, ১৬ ঘণ্টা আগে
সরব এশিয়া-ইউরোপ
সরব এশিয়া-ইউরোপ
https://samakal.com/ - ৫ দিন, ১৬ ঘণ্টা আগে
২০২০ এশিয়া কাপের আয়োজক পাকিস্তান
২০২০ এশিয়া কাপের আয়োজক পাকিস্তান
জাগো নিউজ ২৪ - ৫ দিন, ২২ ঘণ্টা আগে
ইমার্জিং কাপ থেকে সোহানদের বিদায়
ইমার্জিং কাপ থেকে সোহানদের বিদায়
বাংলা ট্রিবিউন - ৫ দিন, ২৩ ঘণ্টা আগে

loading ...