তানভীর ইমাম। ছবি: সংগৃহীত

বিনে পয়সায় নতুন অ্যাপার্টমেন্ট, আয় বেড়েছে ১৫ গুণ

সিরাজগঞ্জ-৪ আসনের তানভীর ইমামের দশম ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনি হলফনামা এমনটিই বলছে।

প্রদীপ দাস ও রাকিবুল হাসান
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৮:২৯
আপডেট: ০৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৮:২৯


তানভীর ইমাম। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) পাঁচ বছর আগে অর্থাৎ দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় তার দুটি বাড়ি বা অ্যাপার্টমেন্ট ছিল। পাঁচ বছর ক্ষমতায় থাকার পর বাড়ি বা অ্যাপার্টমেন্ট বেড়ে হয়েছে তিনটি। তবে পাঁচ বছর আগে দুটি বাড়ির যে দাম ছিল, পাঁচ বছর পরেও তিনটি বাড়ির একই দাম রয়েছে।

সিরাজগঞ্জ-৪ আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য তানভীর ইমামের দশম ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনি হলফনামা এমনটিই বলছে।

হলফনামা অনুযায়ী, তানভীরের বাড়ি বা অ্যাপার্টমেন্টের সংখ্যা বাড়লেও এর আর্থিক মূল্য বৃদ্ধি হয়নি। হলফনামায় সম্পদের অর্জনকালীন মূল্য দেখাতে হয়। সে হিসেবে নতুন অ্যাপার্টমেন্টটি তিনি বিনে পয়সায় পেয়েছেন।

এ ছাড়া পাঁচ বছরে তানভীরের আয় বৃদ্ধির পাশাপাশি অস্থাবর ও স্থাবর সম্পত্তি বেড়েছে। বেড়েছে তার স্ত্রীরও।

দুই হলফনামার তুলনায় দেখা যায়, পাঁচ বছর আগে এই সংসদের বার্ষিক আয় ছিল ৩৩ লাখ ৫২ হাজার ৬৮৯ টাকা। পাঁচ বছর পর তা প্রায় ১৫ গুণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে চার কোটি ৯৮ লাখ ১৩ হাজার ৭১৩ টাকা।

পাঁচ বছর আগে তার অস্থাবর ও স্থাবর সম্পত্তি ছিল মোট দুই কোটি ৬৩ লাখ ৬১ হাজার ৪৫৯ টাকার। একাদশে এসে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ছয় কোটি ১৩ লাখ ৮৩ হাজার ৩০৪ টাকায়।

পাঁচ বছর আগে তার স্ত্রীর ছিল ২৭ লাখ ২৫ হাজার টাকার অস্থাবর সম্পত্তি। পাঁচ বছর পর তা বেড়ে হয়েছে ৩২ লাখ ৩৫ হাজার টাকায়।

দুই হলফনামা অনুযায়ী, তানভীরের বাড়ি বা অ্যাপার্টমেন্টের সংখ্যা বৃদ্ধি পেলেও এই খাত থেকে বার্ষিক আয় কমেছে। আগে তিনি দুটি বাড়ি থেকে বছরে আয় করতেন চার লাখ ১৭ হাজার ২৫০ টাকা। এখন তিনটি বাড়ি থেকে তিনি বছরে আয় করেন দুই লাখ ৪০ হাজার ৫১০ টাকা।

ব্যবসা থেকে বার্ষিক আয় বেড়েছে সিরাজগঞ্জের এই এমপির। দুই হলফনামা অনুযায়ী, ব্যবসা থেকে তার আয় বেড়েছে প্রায় সাড়ে ১৭ গুণ। একই সঙ্গে শেয়ার ও অন্যান্য খাত থেকে আয় বেড়েছে তার।

অস্থাবর সম্পদের মধ্যে শুধু বন্ড, ঋণপত্র বা শেয়ার কমেছে তার। তবে বৃদ্ধির হার অপরিবর্তিত রয়েছে নগদ টাকা, ব্যাংকে জমা অর্থের পরিমাণ।

এ ছাড়া আগে তার ছিল ৩০ লাখ টাকা মূল্যের একটি টয়োটা আভানজা গাড়ি। পাঁচ বছরে এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ল্যান্ডক্রুজার। মোট যানবাহনের আর্থিক মূল্য ৮২ লাখ ৫০ হাজার টাকা।

পাঁচ বছরে তার ৬০ হাজার টাকার এবং তার স্ত্রীর পাঁচ লাখ টাকার স্বর্ণ বেড়েছে। 

প্রিয় সংবাদ/রিমন/আজাদ চৌধুরী

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
স্পন্সরড কনটেন্ট

loading ...