র‌্যাবের দাবিকৃত জিয়া সাইবার ফোর্সের মহাসচিব। প্রতীকী ছবি

‘জিয়া সাইবার ফোর্সের’ মহাসচিব গ্রেফতার

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে রাষ্ট্রবিরোধী মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ প্রচারের অভিযোগে ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতারের দাবি করেছে র‌্যাব।

জনি রায়হান
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৫:৫৯
আপডেট: ০৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৭:০৯


র‌্যাবের দাবিকৃত জিয়া সাইবার ফোর্সের মহাসচিব। প্রতীকী ছবি

(প্রিয়.কম) সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে মিথ্যা সংবাদ প্রচারের অভিযোগে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতারের দাবি করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)

৭ ডিসেম্বর, শুক্রবার রাজধানীর গুলিস্তান এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত ব্যক্তির নাম কে এম হারুন অর রশিদ (৩৪)। তিনি ‘জিয়া সাইবার ফোর্স’ নামের একটি ফেসবুক পেজের মহাসচিব বলে দাবি করেছে র‌্যাব। এই পেজে রাষ্ট্রবিরোধী মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ প্রচারের অভিযোগে র‌্যাব-৩ তাকে গ্রেফতার করে।

র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান জানান, র‌্যাব-৩-এর কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদের পর হারুন অর রশিদকে পুলিশের হাতে সোপর্দ করা হবে।

অপরদিকে বিকেলে র‌্যাব-৩ থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২০১৬ সাল থেকে জিয়া সাইবার ফোর্স গ্রুপ রাষ্ট্রবিরোধী মিথ্যা ও বানোয়াট পোস্ট প্রচার করে আসছে। উক্ত গ্রুপের অন্যতম অ্যাডমিন এবং মহাসচিব হলেন হারুন-অর-রশিদ।

জিয়া সাইবার ফোর্স গ্রুপ তাদের সহযোগীদের পরস্পরের যোগসাজশে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে রাষ্ট্রবিরোধী মিথ্যা ও বানোয়াট পোস্ট প্রচার করে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করে আসছে। ইতোমধ্যে র‌্যাব ওই গ্রুপের একাধিক সদস্যকে গ্রেফতার করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় জিয়া সাইবার ফোর্সের মহাসচিবসহ অন্যান্য সদস্যদের কার্যক্রমকে র‌্যাব-৩-এর সাইবার মনিটরিং সেল পর্যবেক্ষণ করে আসছিল।

র‌্যাব-৩-এর ওই আভিযানিক দলটি গোপন তথ্যের মাধ্যমে জানতে পারে যে, ৭ ডিসেম্বর রাজধানীর গুলিস্তান এলাকায় জিয়া সাইবার ফোর্সের সদস্যরা নির্বাচনকে সামনে রেখে সরকারবিরোধী অপপ্রচার জোরদার করার পরিকল্পনার জন্য বৈঠকে মিলিত হবে। ওই সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব সকাল ১০টার দিকে রাজধানীর পল্টন থানার গুলিস্তান এলাকায় অভিযান চালিয়ে হারুন-অর-রশিদকে গ্রেফতার করে এবং তার হেফাজত থেকে দুটি মোবাইল জব্দ করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব-৩ আরও জানায়, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হারুন জানিয়েছে তিনি বিভ্রান্তিকর ও মিথ্যা সংবাদের ভিত্তিতে গুজব ছড়ানোর মাধ্যমে রাষ্ট্রকে অস্থিতিশীল করা, সরকার উৎখাতের প্রচেষ্টা ও জনসাধারণের মনে বিভ্রান্তি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও অন্যান্য মন্ত্রীদের সম্পর্কে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য ও ছবি পোস্ট করার মাধ্যমে দেশে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করার উদ্দেশে দীর্ঘদিন ধরে জিয়া সাইবার ফোর্সের অ্যাডমিন ও মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করে আসছিল।

প্রিয় সংবাদ/শিরিন/রুহুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
স্পন্সরড কনটেন্ট
ফুটবল খেলছেন অপরাধ বিষয়ক সাংবাদিকরা
ফুটবল খেলছেন অপরাধ বিষয়ক সাংবাদিকরা
সময় টিভি - ৩ দিন, ২ ঘণ্টা আগে
সাইবার অপরাধ সচেতনতা কর্মশালা | কালের কণ্ঠ
সাইবার অপরাধ সচেতনতা কর্মশালা | কালের কণ্ঠ
কালের কণ্ঠ - ৩ দিন, ৪ ঘণ্টা আগে