আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে বন্দুকধারী পরিচিত এবং তাকে ধরতে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। ছবি: সংগৃহীত

ফ্রান্সে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ৩

স্ট্রাসবার্গে জন্ম নেওয়া ২৯ বছর বয়সী সন্দেহভাজন ওই বন্দুকধারীকে সন্ত্রাসবাদী হুমকি হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৯:৫৩ আপডেট: ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৯:৫৩
প্রকাশিত: ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৯:৫৩ আপডেট: ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৯:৫৩


আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে বন্দুকধারী পরিচিত এবং তাকে ধরতে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) ফ্রান্সের পূর্বাঞ্চলীয় শহর স্ট্রাসবার্গে বন্দুকধারীর গুলিতে অন্তত তিন জন নিহত ও ১২ জন আহত হয়েছেন। 

১২ ডিসেম্বর, বুধবার ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি অনলাইন জানিয়েছে, ঘটনার পরই বন্দুকধারী ঘটনাস্থল থেকে পালিয়েছে। তবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে সে পরিচিত এবং তাকে ধরতে তল্লাশি চালানো হচ্ছে।

স্ট্রাসবার্গের কেন্দ্রীয় স্কয়ারের একটি ক্রিসমাস মার্কেটের কাছে এই গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। দেশটির কাউন্টার টেররিজমের কৌঁসুলিরা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছেন।

ফ্রান্সের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ক্রিস্টোফে কাস্টানার বলেন, বন্দুকধারী দুইবার আমাদের নিরাপত্তা কর্মীদের হাত থেকে পালিয়েছে।

তিন জন নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কাস্টানার বলেন, সীমান্তে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। ৩৫০ জন নিরাপত্তা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ওই বন্দুকধারীর খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছেন। এ ছাড়া দেশের সব ক্রিসমাস মার্কেটে নিরাপত্তা বাড়ানো হবে।

দেশটির পুলিশ জানিয়েছে, আহত ব্যক্তিদের মধ্যে ছয় জনের অবস্থা গুরুতর। বাকি ছয় জন হালকা আহত হয়েছেন।

পুলিশ আরও জানিয়েছে, স্ট্রাসবার্গে জন্ম নেওয়া ২৯ বছর বয়সী সন্দেহভাজন ওই বন্দুকধারীকে সন্ত্রাসবাদী হুমকি হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

ফ্রান্সের বিএফএম টিভির বরাতে বিবিসি জানায়, একটি ডাকাতি ঘটনায় জড়িত থাকায় মঙ্গলবার সকালে পুলিশের তল্লাশি চলার সময় শহরের ন্যুডর্ফ জেলার ফ্ল্যাট থেকে ওই ব্যক্তি পালিয়ে যায়। ওই সময় তার বাসা থেকে গ্রেনেড জব্দ করা হয়। একটি অসমর্থিত খবরে বলা হয়েছে, ন্যুডর্ফের বাসিন্দাদের ঘরের মধ্যে থাকতে বলা হয়েছে এবং বন্দুকধারীকে ধরতে ওই এলাকায় তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ।

এদিকে নিরাপত্তার স্বার্থে ঘটনাস্থলের পাশে অবস্থিত ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের প্রেসিডেন্ট অ্যান্তোনিও তাজানি এক টুইট বার্তায় বলেন, সন্ত্রাসী বা অপরাধীদের হামলায় পার্লামেন্ট ভয় পাবে না।

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ বর্তমানে প্যারিসে মন্ত্রীপরিষদ কর্মকর্তাদের নিয়ে এক বৈঠকে আছেন। তবে তিনি ঘটনা সম্পর্কে অবগত আছেন এবং হতাহত ও তাদের পরিবারের প্রতি সংহতি প্রকাশ করেছেন।

প্রিয় সংবাদ/রুহুল/আশরাফ

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

কে-পপ সাম্রাজ্যের পতন?

প্রিয় ৬ ঘণ্টা, ২৮ মিনিট আগে

loading ...