নিয়মিত চুল ট্রিম করা জরুরী। ছবি: সংগৃহীত

ডাই করার পর ক্ষতিগ্রস্ত চুলের যত্ন নেবেন যেভাবে

চুলে কালার করানো হলে যে ক্ষতি হওয়ার ঝুঁকি থাকে তা জানেন সকলেই। এরপরেও অনেকেই নিয়মিত চুলে বিভিন্ন কালার করে থাকেন। নিয়মিত কালার করলে এই ক্ষতিগ্রস্ত চুলের কিছু বিশেষ যত্নের প্রয়োজন হয়।

কে এন দেয়া
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ১০:২০ আপডেট: ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ১০:২০
প্রকাশিত: ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ১০:২০ আপডেট: ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ১০:২০


নিয়মিত চুল ট্রিম করা জরুরী। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) চুলে কালার করানো হলে যে ক্ষতি হওয়ার ঝুঁকি থাকে তা জানেন সবাই। এরপরেও অনেকেই নিয়মিত চুলে বিভিন্ন কালার করে থাকেন। নিয়মিত কালার করলে এই ক্ষতিগ্রস্ত চুলের কিছু বিশেষ যত্নের প্রয়োজন হয়। জেনে নিন ক্ষতিগ্রস্ত চুল ভালো রাখার ৫টি টিপস-

১) সালফেট বেসড শ্যাম্পু ব্যবহার করবেন না

শ্যাম্পুর ব্র্যান্ড দেখেই কেনেন অনেকে, বড়জোর নিজের পছন্দের ফ্লেভার কেনেন। উপকরণের তালিকাটা দেখে নেওয়ার সময় হয়েছে এবার। চুলে কালার করা হলে অবশ্যই সালফেট আছে এমন শ্যাম্পু ব্যবহার করা যাবে না।  কারণ সালফেটের কারণে রঙ দ্রুত নষ্ট হয়ে যায় ও বারবার চুলে কালার করানো লাগে।  চুলে উজ্জ্বল রঙ করানো হলে সালফেটবিহীন শ্যাম্পু ব্যবহার করুন। এছাড়া প্রতিদিন শ্যাম্পু করার অভ্যাসটাও বাদ দিন।

২) চুল ট্রিম করুন নিয়মিত

চুল ট্রিম করা যে কারোই জন্য জরুরী। কিন্তু যারা নিয়মিত চুলে কালার করান তাদের জন্য আরও বেশি জরুরী।  কালার করা চুল ফাটে দ্রুত। ট্রিম করলে চুল ফাটার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

৩) হেয়ার কালার নির্বাচন করুন সাবধানে

প্রথমত, নিজে চুলে রঙ করার চাইতে ভালো কোনো পার্লারে যাওয়া চুলের জন্য উপকারি। এর পাশাপাশি হাই ভলিউম হেয়ার ডাই ব্যবহার করার বিষয়েও সতর্ক থাকা উচিত।  এগুলোতে ক্ষতিকর রাসায়নিকের পরিমাণ বেশি থাকে।

৪) সেমি-পারমানেন্ট ডাই ব্যবহার করুন

চুল ভালো রাখতে পারমানেন্ট ডাই নয়, বরং সেমি পারমানেন্ট হেয়ার ডাই ব্যবহার করুন।  এর পাশাপাশি কালার বুস্টিং শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার ব্যবহার করতে পারেন।

৫) সঠিক উপায়ে শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার ব্যবহার করুন

চুলে কালার করা থাকলে শ্যাম্পু ব্যবহার করুন শুধু মাথার তালুতে। প্রতিবার শ্যাম্পু করার সময়ে পুরো চুলে শ্যাম্পু মাখানোর দরকার নেই। অন্যদিকে, কন্ডিশনার ব্যবহার করুন চুলের আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত, তালুতে নয়। প্রতিদিন হালকা কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। এর পাশাপাশি ডিপ কন্ডিশনার ব্যবহার করুন, সপ্তাহে অন্তত ২ বার।

সুত্র: রিডার্স ডাইজেস্ট

প্রিয় লাইফ/ আর বি 

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...