বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট। ফাইল ছবি

দিনভর আইন অঙ্গনে যা ঘটল

মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকায় সংগঠন হিসেবে জামায়াতে ইসলামীর বিচারের জন্য আইন সংশোধনের উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার।

আমিনুল ইসলাম মল্লিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯ জানুয়ারি ২০১৯, ২৩:০১ আপডেট: ০৯ জানুয়ারি ২০১৯, ২৩:০১
প্রকাশিত: ০৯ জানুয়ারি ২০১৯, ২৩:০১ আপডেট: ০৯ জানুয়ারি ২০১৯, ২৩:০১


বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট। ফাইল ছবি

(প্রিয়.কম) প্রতিদিনই আদালতে মামলাসংক্রান্ত নানা শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। বাদী-বিবাদী পক্ষের আইনজীবীদের তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে বিচারক আদালতের সিদ্ধান্তের কথা জানান। অন্যদিকে আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়েও গৃহীত হয় নানা সিদ্ধান্ত। ৯ জানুয়ারি, বুধবার আদালত ও মন্ত্রণালয়ে গৃহীত গুরুত্বপূর্ণ তিনটি বিষয় প্রিয়.কমের পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

জামায়াতে ইসলামীর বিচারের জন্য আইন সংশোধন

মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকায় সংগঠন হিসেবে জামায়াতে ইসলামীর বিচারের জন্য আইন সংশোধনের উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার।

৯ জানুয়ারি, বুধবার আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এ সংক্রান্ত আইনের খসড়া তৈরি করেছেন এবং তা মন্ত্রিপরিষদের অনুমোদনের জন্য পেশ করেছেন বলে সাংবাদিকদের জানান।

তিনি জানান, যে আইন এখন আছে তাতে জামায়াতে ইসলামীর বিচার করা যায় না—এ কথা আগেই বলা হয়েছিল এবং এ জন্য আইনটি সংশোধন করা হবে। আইনটির একটি সংশোধনী তৈরি করা হয়েছে। কিন্তু তা এখনো মন্ত্রিসভার বৈঠকে উত্থাপিত হয়নি।

খুব শিগগির প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমতি নিয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে অনুমোদনের জন্য উত্থাপন করবেন বলে জানান আনিসুল হক।

খালেদা জিয়ার চার্জ গঠনের শুনানি ৩ ফেব্রুয়ারি

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মিথ্যা তথ্যের ভিত্তিতে ভুয়া জন্মদিন পালন এবং যুদ্ধাপরাধীদের গাড়িতে পতাকা তুলে দেওয়ার মামলায় চার্জ গঠনের শুনানির তারিখ ৩ ফেব্রুয়ারি ধার্য করেছে আদালত।

বুধবার ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আসাদুজ্জামান নূর আসামি পক্ষের সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে এ আদেশ দেন।

পুরান ঢাকার বকশিবাজারে অস্থায়ী আদালতে মামলাটি চার্জ শুনানির জন্য ধার্য ছিল। খালেদা জিয়া এই দুই মামলায় গত ৩১ জুলাই ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালত থেকে জামিন পান। অন্য মামলায় তিনি কারাগারে।

২০১৬ সালের ৩ নভেম্বর ‘বাংলাদেশ জননেত্রী পরিষদ’ নামের একটি সংগঠনের সভাপতি এবি সিদ্দিকী মানহানির মামলাটি করেন। তিনি অভিযোগে করেন, স্বীকৃত স্বাধীনতাবিরোধীদের গাড়িতে জাতীয় পতকা তুলে দিয়ে দেশের মানচিত্র এবং জাতীয় পতাকার মানহানি ঘটিয়েছেন খালেদা জিয়া।

গাজী জহিরুল ইসলাম নামের এক সাংবাদিক ২০১৬ সালের ৩০ আগস্ট খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ভুয়া জন্মদিন পালনের অভিযোগে মামলা দায়ের করেন।

মামলায় বলা হয়, খালেদা জিয়ার একাধিক জন্মদিন নিয়ে ১৯৯৭ সালে ১৯ ও ২২ আগস্ট দুটি জাতীয় দৈনিকে প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। ওই প্রতিবেদন অনুযায়ী সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ম্যাট্রিক পরীক্ষার মার্কশিট অনুযায়ী জন্ম তারিখ ৫ সেপ্টেম্বর, ১৯৪৬ সাল। ১৯৯১ সালে তিনি প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে একটি দৈনিকে তার জীবনী নিয়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয় জন্মদিন ১৯ আগস্ট, ১৯৪৫ সাল। তার বিবাহের কাবিননামায় জন্মদিন ছিল ৪ আগস্ট, ১৯৪৪ সাল। সর্বশেষ ২০০১ সালে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট অনুযায়ী তার জন্মদিন ৫ আগস্ট, ১৯৪৬ সাল।

এতে আরও বলা হয়, বিভিন্ন মাধ্যমে তার পাঁচটি জন্মদিন পাওয়া গেলেও কোথাও ১৫ আগস্ট জন্মদিন পাওয়া যায়নি। এ অবস্থায় তিনি পাঁচটি জন্মদিনের একটিও পালন না করে ১৯৯৬ সাল থেকে ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকীর জাতীয় শোক দিবসে আনন্দ উৎসব করে জন্মদিন পালন করে আসছেন। 

যুবদলের সাইফুল ইসলাম কারাগারে

হরতাল-অবরোধের সময় বাসে পেট্রোল বোমা ছুড়ে হত্যার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম ফিরোজকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।

৯ জানুয়ারি, বুধবার চতুর্থ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ মাকছুদা পারভীনের আদালতে আইনজীবীর মাধ্যমে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করলে সাইফুল ইসলাম ফিরোজকে জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন বিচারক।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, সাইফুল ইসলাম বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দল কর্তৃক ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচন বানচাল ও প্রতিরোধ করার লক্ষ্যে ৩ জানুয়ারি পরিবাগ মোড়ে রাস্তার ওপর যাত্রীবাহী বাসে পেট্রোল বোমার বিস্ফোরণ ঘটান। এতে বাসের যাত্রী ফরিদ মিয়া, শাহিনা বেগম, চালক বাবুল অগ্নিদগ্ধ হন। পরে তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। সেখানে ফরিদ মিয়া ও শাহিনা বেগম চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

এ ঘটনায় রমনা মডেল থানার এসআই আশরাফুল ইসলাম ২০১৪ সালের ৩ জানুয়ারি মামলা করেন। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আমান উল্লাহ আমানসহ কয়েকজন নেতার নির্দেশনায় পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে অগ্নিসংযোগ করা হয় বলে এজাহারে উল্লেখ করেন বাদী।

প্রিয় সংবাদ/আজাদ চৌধুরী

 

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...