শুধুমাত্র অন্য নারীদের কণ্ঠস্বর শুনতে পান তিনি। ছবি: সংগৃহীত

পুরুষের কণ্ঠস্বর শুনতে পান না যে নারী!

এমনকি নিজের প্রেমিকের কণ্ঠস্বরও তিনি শুনতে পান না।

কে এন দেয়া
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ১১ জানুয়ারি ২০১৯, ১২:৫২ আপডেট: ১১ জানুয়ারি ২০১৯, ১২:৫২
প্রকাশিত: ১১ জানুয়ারি ২০১৯, ১২:৫২ আপডেট: ১১ জানুয়ারি ২০১৯, ১২:৫২


শুধুমাত্র অন্য নারীদের কণ্ঠস্বর শুনতে পান তিনি। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) দৃষ্টিশক্তি হারানোর মতো শ্রবণশক্তি হারানোটাও এক ধরনের স্বাস্থ্য সমস্যা, যা অনেক কারণেই হতে পারে। কিন্তু চীনের এক নারীর অদ্ভুত এক ধরনের বধিরতা দেখা দিয়েছে, যার ফলে তিনি কোনো পুরুষের কণ্ঠস্বর শুনতে পান না, কেবল অন্য নারীদেরটা শুনতে পান।

একদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে চেন নামের ওই নারী আবিষ্কার করেন, তিনি নিজের প্রেমিকের কণ্ঠস্বর শুনতে পারছেন না। সাথে সাথেই হাসপাতালে চলে যান তিনি। ডাক্তাররা হতবাক হয়ে পড়েন অদ্ভুত এই সমস্যা দেখে। একজন বিশেষজ্ঞ আবিষ্কার করেন, তার রয়েছে ‘রিভার্স-স্লোপ হিয়ারিং লস’। এ সমস্যাটির কারণে তিনি শুধু হাই ফ্রিকোয়েন্সির শব্দ শুনতে পান।  এটাও জানানো হয়, বধির মানুষদের ১৩ হাজার জনের মাঝে একজনের এই সমস্যাটি দেখা যায়।  এর পেছনে কারণ হিসেবে থাকতে পারে স্ট্রেস।

হাসপাতালে যাওয়ার আগের দিন রাত্রে ওই নারীর বমি ভাব ও কানে তালা লাগার মতো অনুভূতি হচ্ছিল। তিনি ভাবেন, ভালো ঘুম হলে সমস্যাটি চলে যাবে। প্রেমিকের পাশে ঘুমিয়ে যান তিনি। সকালে উঠে আর তার কণ্ঠস্বর শুনতে পান না।  অথচ হাসপাতালে যাওয়ার পর সব নারী ডাক্তারের কথা শুনতে পান স্পষ্ট।

‘রিভার্স-স্লোপ হিয়ারিং লস’ হলে মানুষ কম ফ্রিকোয়েন্সির শব্দ শুনতে পায় না। পুরুষের কণ্ঠস্বরের ফ্রিকোয়েন্সি কম, নারীর বেশি। এ কারণেই তিনি শুধু নারীদের কথা শুনতে পান।  কিছু কিছু ক্ষেত্রে সমস্যাটি হয় জেনেটিক, ফলে জন্ম থেকেই মানুষটি কিছু কিছু শব্দ শুনতে পান না, যেমন ফ্রিজ চলার মৃদু শব্দটি।

চীনের ওই নারী জানান, তিনি গত কিছুদিন ধরে রাত করে কাজ করছিলেন, ঘুম কম হচ্ছিল ও স্ট্রেসে ছিলেন তিনি। অনেকদিন ধরে স্ট্রেসে থাকায় তার ওই সমস্যাটি দেখা দেয়।  তবে তিনি সাথে সাথেই হাসপাতালে আসায় তাকে সম্পূর্ণ সুস্থ করে ফেলা সম্ভব হবে বলে মনে করেন তার ডাক্তার।

সূত্র: ডেইলি মেইল

প্রিয় বিজ্ঞান/ আর বি