উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলামের নেতৃত্বে বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রা বের হয়ে সেলিম আল দীন মুক্তমঞ্চে গিয়ে শেষ হয়। ছবি: প্রিয়.কম

বর্ণাঢ্য আয়োজনে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদযাপন

শনিবার সকাল ১০টার দিকে বিজনেস স্টাডিজ অনুষদ চত্বরে জাতীয় পতাকা উত্তোলন এবং বেলুন উড়িয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচি উদ্বোধন করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম।

ইউসুফ জামিল
কন্ট্রিবিউটর, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ১২ জানুয়ারি ২০১৯, ১৬:৩৫ আপডেট: ১২ জানুয়ারি ২০১৯, ১৬:৩৫
প্রকাশিত: ১২ জানুয়ারি ২০১৯, ১৬:৩৫ আপডেট: ১২ জানুয়ারি ২০১৯, ১৬:৩৫


উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলামের নেতৃত্বে বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রা বের হয়ে সেলিম আল দীন মুক্তমঞ্চে গিয়ে শেষ হয়। ছবি: প্রিয়.কম

(প্রিয়.কম) বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে ৪৮তম ‘জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় দিবস’ উদযাপিত হয়েছে।

১২ জানুয়ারি, শনিবার সকাল ১০টার দিকে বিজনেস স্টাডিজ অনুষদ চত্বরে জাতীয় পতাকা উত্তোলন এবং বেলুন উড়িয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচি উদ্বোধন করেন।

‘জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় দিবস’-এর কর্মসূচি উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম বলেন, ‘৫০ বছর পদার্পনে এ বিশ্ববিদ্যালয়কে কেমন দেখতে চাই, তা এখনই ভাবতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে শুভকাল শুরু হয়েছে। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকতর উন্নয়নের লক্ষ্যে প্রায় দেড় হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শিগগিরই শুরু হচ্ছে। স্বপ্ন নিয়ে আনন্দচিত্তে আমাদেরকে এ প্রকল্পের কাজ সফল করতে হবে। নতুন জ্ঞান তৈরি এবং বিকশিত করাই বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ। যে জ্ঞান বিশ্বকে সেবা দিতে পারে, সেই বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলাই প্রশাসনের লক্ষ্য।’

উদ্বোধনী ভাষণে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা, কর্মচারী এবং অতিথিদের শুভেচ্ছা জানান। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক ড. মো. আমির হোসেন, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক শেখ মো. মনজুরুল হক প্রমুখ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার রহিমা কানিজ।  

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর উপাচার্যের নেতৃত্বে বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রা বের হয়ে সেলিম আল দীন মুক্তমঞ্চে গিয়ে শেষ হয়। বেলা সাড়ে ১১টায় সেলিম আল দীন মুক্তমঞ্চে ছাত্রকল্যাণ ও পরামর্শদান কেন্দ্রের আয়োজনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করা হয়। বেলা আড়াইটার দিকে পুতুল নাট্য, বিকেল পাঁচটায় ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের উদ্যোগে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করা হবে। এ ছাড়া সন্ধ্যা ৭টার দিকে জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী মমতাজ বেগম একক সংগীত পরিবেশন করবেন। 

প্রিয় সংবাদ/নোমান/কামরুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...