উর্বশী রাউতেলা, পরিণীতি চোপড়া, হার্দিক পান্ডে, এলি আব্রাম ও এশা গুপ্তা। ছবি: সংগৃহীত

এই চার বলিউড অভিনেত্রীর সঙ্গে প্রেম ছিল হার্দিকের!

এতে হার্দিকের ওপর বেশ ক্ষুব্ধ হয়েছেন উর্বশী। বলিউডের এই অভিনেত্রী ঘনিষ্ঠ লোকজনদের কাছে বিস্ময়ও প্রকাশ করেছেন।

সৌরভ মাহমুদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ১৫ জানুয়ারি ২০১৯, ১৩:৩৮ আপডেট: ১৫ জানুয়ারি ২০১৯, ১৩:৩৮
প্রকাশিত: ১৫ জানুয়ারি ২০১৯, ১৩:৩৮ আপডেট: ১৫ জানুয়ারি ২০১৯, ১৩:৩৮


উর্বশী রাউতেলা, পরিণীতি চোপড়া, হার্দিক পান্ডে, এলি আব্রাম ও এশা গুপ্তা। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) কেউ সামলান ক্যামেরার লাইট, ক্যামেরা, অ্যাকশন। আবার কেউ সামলান প্রতিপক্ষের সুইং, বাউন্স, স্পিন অথবা এগুলোকেই অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করেন। তবুও প্রকৃতির অদ্ভুত খেয়ালে দুই ভুবনের বাসিন্দারা চলে আসেন এক বিন্দুতে। বলা হচ্ছে, ভারতীয় ক্রিকেট আর বলিউডের কথা। এ দুটি যেন একই সুতোয় গাঁথা।

এই দুই জগতের সম্পর্কটা বেশ পুরনো। বলিউড অভিনেত্রীদের সঙ্গে ক্রিকেট সুপারস্টারদের প্রেম বহু বছর ধরে চলে আসছে। সেসব সম্পর্কের কোনোটা পরিণতি পর্যন্ত গেছে, আবার কোনোটা হারিয়ে গেছে সময়ের গর্ভে। এরই ধারাবাহিকতায় কিনা ভারতীয় ক্রিকেটার হার্দিক পান্ডের সঙ্গে জুড়েছে চার-চারজন বলিউড অভিনেত্রীর নাম!

সম্প্রতি প্রচারিত জনপ্রিয় ভারতীয় টিভি শো ‘কফি উইথ করন’-এর একটি এপিসোডে নারীসঙ্গ ও যৌনতার বিষয়ে অশালীন মন্তব্য করে বসেন হার্দিক পান্ডে ও লোকেশ রাহুল। যার জেরে রীতিমতো বিপাকে দুই ভারতীয় ক্রিকেটার। অস্ট্রেলিয়া সফর থেকে ছিটকে তো গেছেনই, পাশাপাশি হার্দিক-রাহুল পড়তে যাচ্ছেন বড় নিষেধাজ্ঞার মুখেই।

এর মাঝেই ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলোতে উঠে এলো হার্দিক-রাহুলদের অতীত জীবন। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন নারীর সঙ্গে রোমাঞ্চে জড়িয়েছেন বলেই খবর দেশটির গণমাধ্যমের। লোকেশ রাহুলের ক্ষেত্রে ততটা না হলেও হার্দিকের বেলায় দেখা যাচ্ছে, একজন নয়, দুজন নয়, বরং চার-চারজন অভিনেত্রীর সঙ্গে সম্পর্ক ছিল এই তারকা ক্রিকেটারের।

এই চার বলিউড অভিনেত্রী হলেন—উর্বশী রাউতেলা, এলি আব্রাম, পরিণীতি চোপড়া ও এশা গুপ্তা। অবশ্য ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে জানা যায়, কখনোই কোনো বলিউড অভিনেত্রী হার্দিকের সঙ্গে নিজেদের সম্পর্কের কথা স্বীকার করেননি। যদিও হার্দি-এলি অথবা হার্দিক-উর্বশীর বেশ কিছু ছবিই প্রকাশ পেয়েছিল নেট-দুনিয়ায়।

মাঝে বলিউড অভিনেত্রী পরিণীতি চোপড়ার সঙ্গেও হার্দিকের সম্পর্ক রয়েছে বলে রব ওঠে। যদিও খুব বেশি ডালপালা ছড়ায়নি সেই গুজবের। পরবর্তী সময়ে জানা যায়, একটি কোম্পানির ব্রান্ডিংয়েই যা একটু চেনা-জানা হয় তাদের। এর বেশি কিছু নয়। তবে আরেক বলিউড অভিনেত্রী এলি আব্রামের সঙ্গে হার্দিকের নাম বেশ ভালোভাবেই জুড়েছিল।

২০১৭ সালের শেষ দিকে হার্দিকের বড় ভাই কুনাল পান্ডের বিয়েতেও উপস্থিত ছিলেন বলিউডের এই অভিনেত্রী। এরপরই ভারতীয় গণমাধ্যমে জোর গুঞ্জন, গোপন প্রেম চলেছে এ দুজনার। মাঝে দুই-একবার তাদের একসঙ্গে দেখাও যায়। যদিও পরবর্তী সময়ে এলি জানান, এমন কোনো সম্পর্ক নেই তার ভারতীয় ক্রিকেটার হার্দিকের সঙ্গে।

এলি আব্রাম ও উর্বশী রাউতেলার সঙ্গে হার্দিক পান্ডে। ছবি: সংগৃহীত

এরপর বিটাউনে কানাঘুষা শোনা যায়, উর্বশী রাউতেলার সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে হার্দিকের। কিন্তু এ ক্ষেত্রেও কেউই স্বীকার করেননি। যদিও ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে জানা যায়, কিছুদিন আগ পর্যন্তও হার্দিকের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল উর্বশীর। এর আগে, এলির সঙ্গেও বেশ কিছুদিন প্রেম ছিল হার্দিকের। পরে তাদের বিচ্ছেদ হয়।

রিয়েলিটি শো’তে অশালীন মন্তব্যের জেরে বেশ বিপাকেই রয়েছেন হার্দিক। সারা দেশ তার সমালোচনায় মুখরিত। এই তালিকায় রয়েছেন হার্দিকের সাবেক দুই ‘প্রেমিকা’ এশা গুপ্তা ও এলি আব্রামও। 

হার্দিককে নিয়ে পরোক্ষ এক প্রশ্নে এশা গুপ্তা বলেন, ‘আমরা প্রত্যেক মাসের পাঁচ দিন ঋতুকালীন সমস্যায় ভুগি। তা সত্ত্বেও আমরা নাচি, অফিসে যাই, সন্তানদের যত্ন নিই। যখন কেউ একজন এত্ত সবকিছু করতে পারে, তখন সে-ই শ্রেষ্ঠ। সুতরাং কারোরই কোনো নারীর উদ্দেশে খারাপ কথা বলা উচিত নয়। যদি তার পরিবার এই বিষয় নিয়ে চিন্তিত না হয়, তাহলে ছেড়ে দিক। কিন্তু এটা মানবতার পক্ষে খারাপ।’

‘কফি উইথ করন’-এ হার্দিককে হোস্ট করণ জোহর জিজ্ঞাসা করেছিলেন, কাকে তিনি খুন, ডেটিং এবং বিয়ে করতে চান। একে একে হার্দিক বলেন, তিনি উর্বশী রাউতেলাকে খুন করতে চান, এশা গুপ্তার সঙ্গে ডেটিং এবং পরিণীতি চোপড়াকে বিয়ে করতে ইচ্ছুক। ভারতীয় গণমাধ্যমের সূত্রে জানা যায়, এতে হার্দিকের ওপর বেশ ক্ষুব্ধ হয়েছেন উর্বশী। বলিউডের এই অভিনেত্রী ঘনিষ্ঠ লোকজনদের কাছে বিস্ময়ও প্রকাশ করেছেন।

করণ জোহরের সঙ্গে হার্দিক পান্ডে ও লোকেশ রাহুল। ছবি: সংগৃহীত

অস্ট্রেলিয়া সফরের আগেই জনপ্রিয় টেলিভিশন শো ‘কফি উইথ করণ’-এ গিয়েছিলেন হার্দিক পান্ডে ও লোকেশ রাহুল। ওই অনুষ্ঠানে সঞ্চালক করণের প্রশ্নের জবাবে বেশ কিছু অশালীন মন্তব্য করে বসেন হার্দিক-রাহুল। যেমন করণের এক প্রশ্নের জবাবে হার্দিক জানান, একবার একটি পার্টিতে গিয়ে এক তরুণীকে দেখিয়ে তিনি তার মা-বাবাকে জানিয়েছিলেন, ওই নারীর সঙ্গেই প্রথমবার শারীরিক সম্পর্ক হয়েছিল তার।

হার্দিক বলেন, মায়ের সঙ্গে তিনি নাকি খুবই ফ্র্যাঙ্ক। বান্ধবীদের ব্যাপারে মায়ের সঙ্গে খোলামেলাভাবেই আলোচনা করেন তিনি। এমনকি হার্দিক নাকি কোনো পার্টিতে গিয়ে নিজে থেকে মেয়েদের নাম জিজ্ঞেস করেন না। এমন আচরণের কারণ জানতে চাওয়ায় সঞ্চালককে হার্দিক বলেন, ‘আমি প্রথমে দেখি মেয়েটি কতটা আগ্রহী। আমি একটু কালো তো, তাই মেয়েদের তরফ থেকে কী রকম আগ্রহ আসছে সেটাই আগে দেখি।’

টেলিভিশনে এই এপিসোড সম্প্রচারের পরেই শুরু হয় গণ্ডগোল। রাহুল ও হার্দিক নারীবিরোধী ও লিঙ্গবৈষম্যমূলক মন্তব্য করেছেন বলে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়। যার জেরে নড়েচড়ে বসে বোর্ড অব কন্ট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়াও (বিসিসিআই)। ইতোমধ্যে এই দুই ক্রিকেটারকে ফিরিয়ে আনা হয়েছে দেশে। বিষয়টি তদন্ত করতে ছয় সদস্যের একটি কমিটিও গঠন করেছে বিসিসিআই।

প্রিয় খেলা/আজাদ চৌধুরী

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...