৩৩ রানের ইনিংস খেলার পথে মোসাদ্দেকের ব্যাটিং। ছবি: প্রিয়.কম

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে ঢাকাকে দ্বিতীয় হারের স্বাদ দিলো মুশফিকের চিটাগং

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে দারুণ জয় তুলে নিলো মুশফিকুর রহিমের দল চিটাগং ভাইকিংস।

শান্ত মাহমুদ
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২১ জানুয়ারি ২০১৯, ২২:১৫ আপডেট: ২১ জানুয়ারি ২০১৯, ২২:৩৭
প্রকাশিত: ২১ জানুয়ারি ২০১৯, ২২:১৫ আপডেট: ২১ জানুয়ারি ২০১৯, ২২:৩৭


৩৩ রানের ইনিংস খেলার পথে মোসাদ্দেকের ব্যাটিং। ছবি: প্রিয়.কম

(প্রিয়.কম) এই ঢাকা ডায়নামাইটসের কাছে কেবল রাজশাহী কিংস ছিল সমীহের প্রতিপক্ষ। কারণ বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) উড়তে থাকা ঢাকাকে তারাই মাটিতে নামিয়ে নিয়ে আসে। মঙ্গলবারের পর ঢাকার সমীহ করা প্রতিপক্ষের তালিকায় আরেকটি নাম যোগ হলো, চিটাগং ভাইকিংস। সাকিব আল হাসানের দলকে দ্বিতীয় হারের স্বাদ দিলো মুশফিকুর রহিমের দল। নিজেদের ষষ্ঠ ম্যাচে রুদ্ধশ্বাস লড়াই শেষে ঢাকা ডায়নামাইটসকে ৩ উইকেটে হারিয়েছে চিটাগং ভাইকিংস।

সোমবার মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে আগে ব্যাটিং করতে নামা ঢাকা ডায়নামাইটস পুরো ইনিংসে ধুঁকেছে। এমন হতাশার ব্যাটিংয়ে ৯ উইকেটে ১৩৯ রান তোলে সাকিব আল হাসানের দল। জবাবে ইনিংসের প্রথম বলেই উইকেট হারালেও দিক ভোলেনি চিটাগং ভাইকিংস। মুশফিক, মোসাদ্দেকদের ছোট কিন্তু কার্যকরী ইনিংসে ৩ উইকেটের দারুণ জয় তুলে নেয় চিটাগং। চলতি বিপিএলে ঢাকার সমান পাঁচটি জয় জমা হলো চিটাগংয়ের ঝুলিতে।  

শেষ ওভারের রোমাঞ্চে আরও একবার আলো ছড়িয়েছেন চিটাগংয়ের প্রোটিয়া অলরাউন্ডার রবার্ট ফ্রাইলিঙ্ক। জয়ের জন্য শেষ ৬ বলে মুশফিকদের দরকার ছিল ১৬ রান। তিন ছক্কা হাঁকিয়ে চোখের পলকে এই রান তুলে নেন চিটাগংয়ের আরও কয়েকটি ম্যাচের এই জয়ের নায়ক। বল হাতে ২ উইকেট নেওয়ার পর ব্যাট হাতে জয়সূচক ২৫ করে ম্যাচসেরার পুরস্কার জিতে নেন ফ্রাইলিঙ্ক।

জয়ের লক্ষ্যে ব্যাটিং করতে নেমে শুরুতেই হোঁচট খেতে হয় চিটাগংকে। আন্দ্রে রাসেলের করা ইনিংসের প্রথম ওভারের প্রথম বলেই ক্যাচ তুলে বিদায় নেন দলের অন্যতম সেরা ব্যাটিং অস্ত্র মোহাম্মদ শাহজাদ। দাপুটে ব্যাটিং দিয়ে এই চাপ কাটিয়ে তোলার চেষ্টা করেন ক্যামেরুন দেলপোর্ট। তার খুনে ব্যাটিংয়ে ৩.১ ওভারে ৩২ রান পেয়ে যায় চিটাগং। তবে হুমকি হয়ে ওঠা দেলপোর্টকে বেশি সময় টিকতে দেননি সাকিব। ১২ বলে ৪টি চার ও ২টি ছক্কায় ৩০ রান করা দেলপোর্টের স্টাম্প উপড়ে নেন ঢাকার অধিনায়ক।

ইয়াসির আলীর সঙ্গে যোগ দিয়ে দলকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার কাজে মন লাগান চিটাগং ভাইকিংসের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। কিন্তু তাদের জুটি লম্বা হয়নি। দলীয় ৫১ রানে সাকিবের বলে কাট করতে গিয়ে নুরুল হাসান সোহানের গ্লাভসে ধরা পড়েন ১৫ রান করা ইয়াসির আলী। কিছুক্ষণ পর সাকিবের তৃতীয় শিকারে পরিণত হয়ে বিদায় নেন দাসুন শানাকা।

তৃতীয় উইকেটে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতকে নিয়ে এগোতে থাকেন মুশফিক। দেখেশুনে ব্যাট চালিয়ে দলকে জয়ের পথেই এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন এ দুজন। দলীয় ৯৫ রানে খেই হারান চিটাগং অধিনায়ক। ঢাকার পেসার রুবেল হোসেনের একটি ডেলিভারি উড়িয়ে মারতে গিয়ে সুনীল নারিনের হাতে ধরা পড়েন ২২ রান করা মুশফিক। শেষ করার কাজটি বর্তায় ৩৩ রানের ইনিংস খেলা মোসাদ্দেকের ওপর। কিন্তু তিনি পারেননি। ১০ বলে ৩টি ছক্কায় অপরাজিত ২৫ রান করে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেওয়ার কাজটি করেন রবার্ট ফ্রাইলিংক। ১৬ রান খরচায় ৪টি উইকেট নেন সাকিব। এ ছাড়া আন্দ্রে রাসেল ও রুবেল হোসেন একটি করে উইকেট নেন।

এরআগে ব্যাটিংয়ে নামা ঢাকা ডায়নামাইটসের ইনিংস হয়ে উঠেছিল হতাশার প্রতিচ্ছবি। হাফ সেঞ্চুরি তো আসেইনি, চল্লিশোর্ধ্ব ইনিংসও খেলতে পারেননি কোনো ব্যাটসম্যান। অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের করা ৩৪ রানই হয়ে উঠে ইনিংস সেরা। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৮ রান আসে শুভাগত হোমের ব্যাট থেকে। ২৭ রান করেছেন উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান নুরুল হাসান সোহান। এই রান করার পথে সাকিবের সঙ্গে ইনিংসের সবচেয়ে বড় ৩৯ রানের জুটি গড়েন সোহান।

১৩৯ রানের ইনিংস খেলার পথে শুরুটা ভালো করতে পারেনি ঢাকা। স্কোরকার্ডে কোনো রান যোগ হওয়ার আগেই বিদায় নেন ওপেনার রনি তালুকদার। শুরুর চাপ ভুলে হেইনো কুনকে সঙ্গে নিয়ে মারকুটে মেজাজে ব্যাট চালাতে শুরু করেন আরেক ওপেনার সুনীল নারিন। তাতে ৩ ওভারে স্কোরকার্ডে ২৭ রানও যোগ হয়ে যায়। কিন্তু বেশি সময় ধরে তাণ্ডব চালিয়ে যেতে পারেননি ক্যারিবীয় এই অলরাউন্ডার। ৯ বলে ৩টি চার ও একটি ছক্কায় ১৮ রান করে বিদায় নিতে হয় তাকে।

১৮ রান করে কিছুক্ষণ পর আবু জায়েদ রাহির বলে আউট হন প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান হেইনো কুন। একই ওভারের শেষ বলে দারউইস রসুলিকেও সাজঘর দেখিয়ে দেন চিটাগং ভাইকিংসের এই পেসার। এরপর সাকিব ও সোহানের গড়া জুটি ঢাকাকে কিছুটা পথ এগিয়ে দেয়। শেষের দিকে ঢাকাকে খানিকটা স্বস্তি দেন শুভাগত। মূলত ১৫ বলে ৩টি চার ও একটি ছক্কায় তার করা ঝড়ো গতির ২৮ রানই সাকিব আল হাসানের দলকে ১৩৯ রানে পৌঁছে দেয়। চিটাগংয়ের ক্যামেরন দেলপোর্ট ৩টি এবং ম্যাচসেরা রবার্ট ফ্রাইলিঙ্ক ও আবু জায়েদ রাহি ২টি করে উইকেট নেন।

প্রিয় খেলা/শান্ত মাহমুদ