ক্ষুধা লাগলে চট করে কয়েকটি কাঠবাদাম খেয়ে নিন। ছবি: সংগৃহীত

ওজন কমাতে চান? কাঠবাদাম খান!

ওজন কমানোর সেরা স্ন্যাক্স হলো কাঠবাদাম।

কে এন দেয়া
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ২৩ জানুয়ারি ২০১৯, ১৪:৩৮ আপডেট: ২৩ জানুয়ারি ২০১৯, ১৪:৩৮
প্রকাশিত: ২৩ জানুয়ারি ২০১৯, ১৪:৩৮ আপডেট: ২৩ জানুয়ারি ২০১৯, ১৪:৩৮


ক্ষুধা লাগলে চট করে কয়েকটি কাঠবাদাম খেয়ে নিন। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) ফিট থাকতে হলে যেমন ব্যায়াম করতে হবে নিয়মিত, তেমনি কী কী খাবেন তারও একটি পরিকল্পনা করে ফেলা জরুরি। এতে মনের ভুলে অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া থেকে নিজেকে বিরত রাখা যায়। এমনকি দিনে তিনবার ভারী খাবার খাওয়ার পাশাপাশি স্ন্যাক্স হিসেবে কী খাবেন, সেটাও ঠিক করে ফেলা দরকার। ওজন কমানোর লক্ষ্য থাকলে সবচেয়ে ভালো স্ন্যাক্স হলো কাঠবাদাম বা আমন্ড।

কাঠবাদামে রয়েছে প্রচুর স্বাস্থ্যকর ফ্যাট, অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস, ভিটামিন ও মিনারেলস। এক মুঠো কাঠবাদাম খেয়ে নিলে চট করে পেট ভরে যায়। এ কারণে বারবার টুকিটাকি খেতে ইচ্ছে হয় না। এ ছাড়া ভিটামিন ই, ক্যালসিয়াম, উপকারী ফ্যাট, ডায়েটারি ফাইবার ও প্ল্যান্ট প্রোটিনের দারুন উৎস এই বাদামটি।

বাড়ির বাইরে থাকার সময়ে খাওয়া-দাওয়া নিয়ন্ত্রণ করাটা বেশি জরুরি। কারণ বাইরে গেলেই বিভিন্ন রেস্টুরেন্টে, ক্যাফেতে খাওয়া-দাওয়া করতে ইচ্ছা করবে এবং আপনার ডায়েট প্ল্যানের বারোটা বেজে যাবে। এ ক্ষেত্রে খুব সহজে ব্যাগে বা পকেটে রাখার জন্য আদর্শ স্ন্যাক্স হলো কাঠবাদাম। এগুলোর সাথে ফল বা পপকর্নও খেতে পারেন।  শুধু তাই নয়, বাসায় মেহমান এলে তাদেরকেও পরিবেশন করতে পারেন মশলা বা গুড় মেশানো আমন্ড। এতে যেমন খাওয়া কম হবে তেমনি পাবেন অনেকটা পুষ্টি।

আমন্ডের আরও কিছু উপকারিতা হলো-

  • এক মুঠো আমন্ডে থাকে ১৬১ ক্যালোরি এবং ২.৫ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট। এতে আরও আছে মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট, ফাইবার, প্রোটিন ও অন্যান্য পুষ্টি উপাদান।
  • আমন্ড অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ভরপুর। তা শরীরকে অক্সিডেটিভ ড্যামেজ থেকে রক্ষা করে, ফলে রোগ ও বার্ধক্য দূরে থাকে। 
  • আমন্ডে প্রচুর ভিটামিন ই থাকে বলে তা হৃদরোগ, ক্যানসার ও আলঝেইমার্সের ঝুঁকি কমায়।
  • আমন্ডে উচ্চ মাত্রায় ম্যাগনেসিয়াম থাকে, ফলে তা মেটাবলিক সিনড্রোম ও টাইপ ২ ডায়াবেটিসের রোগীদের উপকারে আসে।
  • আমন্ড কোলেস্টেরল লেভেল কমাতে পারে বলে কিছু গবেষণায় দেখা গেছে।
  • গবেষণা থেকে জানা গেছে, নিয়মিত আমন্ড খাওয়া ওজন কমানোর পাশাপাশি হৃদযন্ত্রকেও সুস্থ রাখে।

সূত্র: এনডিটিভি

প্রিয় লাইফ/ আর বি / রুহুল