জনস্বার্থে ২৯০টি মামলা করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। ছবি: প্রিয়.কম

জনস্বার্থ মামলা নিয়ে যা বললেন মনজিল মোরসেদ

জনস্বার্থ ও পরিবেশ রক্ষায় হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট বারসহ সারা দেশের আইনজীবীকে নিয়ে কাজ করছে।

আমিনুল ইসলাম মল্লিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৩ জানুয়ারি ২০১৯, ২১:০৮ আপডেট: ২৩ জানুয়ারি ২০১৯, ২১:২৯
প্রকাশিত: ২৩ জানুয়ারি ২০১৯, ২১:০৮ আপডেট: ২৩ জানুয়ারি ২০১৯, ২১:২৯


জনস্বার্থে ২৯০টি মামলা করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। ছবি: প্রিয়.কম

(প্রিয়.কম) দেশের সব শ্রেণির নাগরিকদের মৌলিক অধিকার রক্ষায় জনস্বার্থ মামলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। সেই চিন্তা করে কিছু আইনজীবীকে নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে গড়ে তোলা হয় হিউম্যান রাইটস এন্ড পিস ফর বাংলাদেশ নামের একটি সংগঠন। সংগঠনটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। ২৯০টি জনস্বার্থ মামলা করেছেন এই আইনজীবী।

জনস্বার্থ ও পরিবেশ রক্ষায় হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট বারসহ সারা দেশের আইনজীবীকে নিয়ে কাজ করছে।

জনস্বার্থ নাকি নিজেদের স্বার্থ হাসিলের জন্য মামলা করা হয়? এসব মামলার অর্থের যোগান আসে কীভাবে? আইনজীবীদের বাইরে অন্য কেউ সুবিধা নেয় কি না? প্রকৃতভাবে জনস্বার্থে মামলা করলে কেউ হুমকি-ধমকি দেয় কি না? আদালত এ মামলাগুলো কীভাবে গ্রহণ করে? সাধারণ মানুষের সাড়া কেমন ইত্যাদি বিষয় নিয়ে প্রিয়.কমের সঙ্গে কথা হয় হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের চেয়ারম্যান মনজিল মোরসেদের সঙ্গে।

তিনি বলেন, ‘উদ্দেশ্য ছিল জনস্বার্থে মানুষকে সেবা দেওয়া। আগে এ মামলাগুলো করাতে মানুষ সমালোচনা করত। আদালতও সেইভাবে নিত না। কিন্তু ২০০৯-১০ সালের আদালত জনস্বার্থের মামলাগুলো ভালোভাবে গ্রহণ ও আদেশ দিতে শুরু করেছেন।’

মনজিল আরও বলেন, ‘এইচআরপিবির পক্ষে ২৯০টি মামলা করেছি। যেটি জনস্বার্থের জন্য। বিশ্বরেকর্ডে এ রকমভাবে এত মামলা কেউ করেনি। ২৯০টি মামলার মধ্যে ১০০টির মামলার রায় হয়ে গেছে ইতোমধ্যে। ৫০টি মামলার রায় প্রকাশ করা হয়েছে। বাকিগুলোর রায় হয়তো খুব অল্প সময়ের মধ্যেই আসবে।’

ঢাকার পাশ দিয়ে প্রবাহিত বুড়িগঙ্গা, ধলেশ্বরী, তুরাগসহ চার নদী রক্ষার করার প্রচেষ্টা চলছে আমাদের মামলার রায়ের প্রেক্ষিতে। লালবাগ কেল্লা রক্ষা, ডিসেম্বর মাসে জজ আদালত বন্ধের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসা সম্ভব হয়েছে আমাদের মামলা করার কারণে।’

‘আগে ঢাকা শহরের রাস্তার উপর দিয়ে কোরবানির সময় গরুর হাট বসত। ট্র্যাফিক জ্যাম হতো। মহাস্থানগরে ঐতিহাসিক স্থাপনা ভেঙে অন্য মসজিদ স্থাপন তৈরির কাজ চলছিল। কর্ণফুলী নদীর আশপাশে অনেক অবৈধ স্থাপনা ছিল। সেগুলো উচ্ছেদ করা হচ্ছে আমাদের মামলার রায়ের আলোকে।’

মনজিল আরও বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবেও অনেক মানুষের মৌলিক অধিকার রক্ষা করা হয়েছে জনস্বার্থে মামলা করে। অনেক সংখ্যালঘু সম্প্রদায় আছে যাদের জমি-জমা দখল করে তাদেরকে উচ্ছেদ করে দেওয়া হতো। তাদের পক্ষে মামলা করে রায় পেয়েছি। ৬০ থেকে ৭০টি নদী ও খালের অবৈধ দখলদারকে উচ্ছেদ করেছি দায়ের করা মামলার রায়ের মাধ্যমে।’

তিনি বলেন, ‘বরিশাল জেলার একটি খাল ছিল, জেল খাল। যেটি ভরাট হয়ে গিয়েছিল, লঞ্চ চলতে পারত না। আমাদের মামলার রায়ে সে খালের পানি প্রবাহের কাজে সহযোগিতা হয়েছে। এ কাজে রবিশাল জেলার ডিসি সহযোগিতা করেছেন, এ জন্য তিনি পরিবেশ পদকও পেয়েছেন।’

‘আমরা যে কাজগুলো করছি, সেগুলো একদমই জনস্বার্থে। জনগণ এসব সমস্যা থেকে প্রতিকার চায়। প্রতিকার কেউ করছে না বা করা হচ্ছে না। তখন আমরা এইচআরপিবির পক্ষ থেকে মামলা করেছি। এ মামলাগুলো করতে অনেক প্রতিকূলতা আছে। ব্যক্তিগতভাবে আমাকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। অনেক মামলায় বিভিন্নভাবে তদবির আসে, থ্রেট দেওয়া হয়। এসব উপেক্ষা করে মামলাগুলো করে যাচ্ছি।’

‘রাজধানীর বিভিন্ন নদী, খাল-বিলের পানিদূষণ রোধ, হাজারীবাগের ট্যানারি স্থানান্তর ও স্বাস্থ্য বিষয়েও মামলা করে জনস্বার্থে রায় পেয়েছি। এ ছাড়া সারা দেশে ভেজাল প্যারাসিটামল খেয়ে যে ৭০টি শিশু মারা গিয়েছিল, সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট করেছিলাম। তার ফলও পেয়েছি।’

‘আমরা এসব মামলা করে কোনো এনজিওর কাছ থেকে অর্থ পাই না। অর্থ গ্রহণও করি না। আমাদের সংগঠনের সদস্যরা চাঁদা দেন। সে চাঁদা দিয়েই আমরা এসব মামলা করে থাকি।’

‘প্রবাসীদের নিয়ে কাজ করতে চাই। অনেক প্রবাসী আছেন, যাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মামলা থাকায় দেশে আসতে পারছেন না। তারা আমাকে ফোন করে আইনি সহযোগিতা কামনা করেন। আমি তাদের পাশে থেকে মানবাধিকার নিয়ে কাজ করতে চাই।’

মনজিল বলেন, ‘দেশে এখন অনেকেই নানা ক্ষেত্রে জনস্বার্থে মামলা করে সুবিধা নিচ্ছে, নিতে চাচ্ছে। যেমন দুই নেত্রীর সংলাপে বসার নির্দেশনা চেয়ে রিট করা হয়েছিল। এতে আসলে জনস্বার্থ বলতে কিছু নেই। জনস্বার্থ মামলার অপব্যবহার করছে অনেকেই। এগুলো মিডিয়ায় লেখালেখির মাধ্যমে বন্ধ করা উচিত।’

জনস্বার্থ মামলা নিয়ে শুনুন মনজিল মোরসেদের কথোপকথন।

প্রিয় সংবাদ/আজাদ চৌধুরী