বিপিএলের শেষ ম্যাচে ইনজুরিতে পড়েছেন পেসার তাসকিন আহমেদ। ছবি: সংগৃহীত

‘বার বার কেন!!’

বেশ কিছুক্ষণ সেখানে ব্যথায় কাতরানোর পর দু’জনের কাঁধে ভর করে মাঠের বাইরে চলে যান তাসকিন। পরবর্তী সময়ে প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য তাকে নিয়ে যাওয়া হয় বিসিবি মেডিক্যালে।

সৌরভ মাহমুদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:৩২ আপডেট: ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:৩২
প্রকাশিত: ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:৩২ আপডেট: ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:৩২


বিপিএলের শেষ ম্যাচে ইনজুরিতে পড়েছেন পেসার তাসকিন আহমেদ। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) চিটাগং ভাইকিংস-সিলেট সিক্সার্স ম্যাচের ঘটনা। ইনিংসের ১০ম ওভারে বল হাতে আক্রমণে ছিলেন অলক কাপালি। তার করা ওভারের চতুর্থ বলটি লং অফ দিয়ে উড়িয়ে মেরেছিলেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। বলের ফ্লাইট খেয়াল করতে গিয়ে বাউন্ডারি লাইনের ওপরে দেওয়া স্পন্জে পা পিছলে বাঁ পায়ের গোঁড়ালিতে চোট পান তাসকিন আহমেদ। সীমানার দড়ির পাশেই শুয়ে পড়েছিলেন তিনি।

বেশ কিছুক্ষণ সেখানে ব্যথায় কাতরানোর পর দু’জনের কাঁধে ভর করে মাঠের বাইরে চলে যান তাসকিন। পরবর্তী সময়ে প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য তাকে নিয়ে যাওয়া হয় বিসিবি মেডিক্যালে। সেখানে তাকে দেখার পর চিকিৎসক সিদ্ধান্ত দিলেন এক্স-রে করাতে হবে। কালবিলম্ব না করে এক্স-রে করাতে তৎক্ষণাৎ মিরপুরের ডিজি ল্যাবে নেওয়া হয়। ওই এক্স-রে রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পরই তাসকিনের পায়ের প্রকৃত অবস্থা জানা যাবে।

আপাতত ডানহাতি এই পেসারের নিউজিল্যান্ড সিরিজ রয়েছে শঙ্কায়। দুর্দান্ত ফর্মে থাকা তাসকিনের এমন ইনজুরি মেনে নিতে পারছেন না তার ভক্ত-সমর্থকরা। মানতে পারছেন না তার স্ত্রী সৈয়দা রাবেয়া নাঈমাও। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের অফিশিয়াল আইডি থেকে একটি পোস্টও করেছেন তাসকিনপত্নী। যেখানে তিনি লিখেছেন ‘বার বার কেন!!’

ওই পোস্টে মন খারাপ ও হৃদয় ভাঙ্গার বেশ কয়েকটি ইমোটিকনও ব্যবহার করেছেন তিনি। তাসকিনপত্নীর ওই পোস্টের নিচে ভক্ত-সমর্থকরা সান্ত্বনা বাণী শোনাচ্ছেন। কেউ কেউ লিখেছেন, ধৈর্য ধরতে। আবার অনেকে তাকে শক্ত হওয়ার অনুরোধও জানিয়েছেন।

পিঠের ব্যথা ও ফর্মহীনতায় গত বছরের মার্চে জাতীয় দল থেকে ছিটকে যান তাসকিন। পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় সেই চোট কাটিয়ে পাখির চোখ করেন মে মাসে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ভারতের দেরাদুনে টি-টোয়েন্টি সিরিজকে। এ জন্য মিরপুর জাতীয় একাডেমির জিমনেশিয়ামে জিম, মাঠে রানিং ও বোলিং অনুশীলনও করেন। কিন্তু জায়গা মেলেনি স্কোয়াডে। নির্বাচকদের যুক্তি ছিল তারকা এই পেসার ফিট নন।

তাতে অবশ্য আশা হারাননি। ফিটনেস ঠিক করতে পুরোদমে লেগে যান তাসকিন। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাসই বলা যায়, উইন্ডিজ সিরিজের স্কোয়াড ঘোষণার আগমুহূর্তে আবাহনীর মাঠে ঐচ্ছিক অনুশীলনে ফিল্ডিং করতে গিয়ে ডান হাতের দুই আঙুলের মাঝখান ফেঁটে যায় এই পেসারের। ফলে আবারও চার সপ্তাহের জন্য মাঠের বাইরে চলে যান তিনি। এই ইনজুরিতে জায়গা হয়নি ওই সিরিজেও।

চলমান বিপিএলে বল হাতে আগুনই ঝড়িয়েছেন তাসকিন। ছবি: সংগৃহীত

আঙুলের ইনজুরি থেকে ফিরে অবশ্য তাসকিন ডাক পান ‘এ’ দলের হয়ে আয়ারল্যান্ড সফরে। এখানেও ভাগ্য তার বিপক্ষে ছিল। স্বাগতিক আইরিশদের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ চলাকালীন পিঠের পুরোনো ব্যথা আবার মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। চিকিৎসকের পরামর্শে সমস্যার সমাধান মিললেও ম্যাচে ফিল্ডিং করার সময় হাতের তালু ফেঁটে যায়। দেশে পাঠিয়ে দেওয়া হয় তাসকিনকে। এই চোট তাকে ছিটকে দেয় এশিয়া কাপ থেকেও।

ফেরার পথটা যেন ক্রমশই দূরে সরে যাচ্ছিল। তবে মনোবল আরও দৃঢ় করে শুরু করেন ফেরার দুর্বার লড়াই। পুনর্বাসন ও কঠোর পরিশ্রম দিয়ে নিজেকে প্রস্তুত করতে থাকেন ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক টুর্নামেন্ট বিপিএলের ষষ্ঠ আসরের জন্য। ২২ গজে ফিরতেই দেখা পাওয়া গেল নতুন তাসকিনের। বল হাতে সিলেট সিক্সার্সের হয়ে চোখ ধাঁধানো পারফরম্যান্স উপহার দিতে থাকেন এই পেসার।

যার জেরে প্রায় এক বছর পর আবারও জায়গা করে নিয়েছেন জাতীয় দলের স্কোয়াডে। তবে বিপিএলের ষষ্ঠ আসরে গ্রুপ পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে আবারও ইনজুরিতে পড়েছেন ১২ ম্যাচে ২২ উইকেট নিয়ে চলমান আসরে সর্বোচ্চ এই উইকেট শিকারী। ওই ইনজুরিতে নিউজিল্যান্ড সিরিজও শঙ্কায় এই পেসারের। তবে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, চোট খুব গুরুতর নয়। তাসকিনকে আপাতত সাতদিন বিশ্রামে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

প্রিয় খেলা/রুহুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...