বাংলাদেশে শিশুদের জন্য অনলাইন নিরাপত্তাবিষয়ক সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। ছবি: সংগৃহীত

মার্চে চালু হবে কন্টেন্ট ফিল্টারিং সুবিধা, বন্ধ হবে পর্ন সাইট

মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘শিশুদের জন্য ইন্টারনেট নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে অ্যাপসহ খারাপ কন্টেন্ট ফিল্টারিংয়ের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’

রাকিবুল হাসান
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৮:২৯ আপডেট: ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৮:২৯
প্রকাশিত: ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৮:২৯ আপডেট: ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৮:২৯


বাংলাদেশে শিশুদের জন্য অনলাইন নিরাপত্তাবিষয়ক সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) চলতি বছরের মার্চে কন্টেন্ট ফিল্টারিং প্রযুক্তি চালু করতে যাচ্ছে সরকার। এতে পর্ন সাইটসহ বিপদগামী অন্যান্য সাইট বা অ্যাপ বন্ধ করে শিশুদের জন্য নিরাপদ ইন্টারনেট ব্যবস্থা চালু করা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার

৫ ফেব্রুয়ারি, মঙ্গলবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে সফটওয়্যার পার্কের সম্মেলন কক্ষে ইউনিসেফ আয়োজিত বাংলাদেশে শিশুদের জন্য অনলাইন নিরাপত্তা বিষয়ক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব তথ্য জানান।

একই সঙ্গে মন্ত্রী তার বক্তব্যে ফাইভজির চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় তথ্যপ্রযুক্তিতে দক্ষ জনসম্পদ গড়ে তোলার পাশাপাশি এখন থেকেই পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়নের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘শিশুদের জন্য ইন্টারনেট নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে অ্যাপসহ খারাপ কন্টেন্ট ফিল্টারিংয়ের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি শিশুদেরকে ইন্টারনেট সম্পর্কে সচেতন বাড়াতে প্রাথমিক স্তর থেকে তথ্যপ্রযুক্তি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করা অপরিহার্য করা হয়েছে।’

তথ্য বা ডেটা নিরাপদ রাখা বর্তমান ডিজিটাল বিপ্লবের যুগে আরও একটি কঠিন চ্যালেঞ্জ হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এই বিষয়েও নজর দেওয়া হবে। ইতোমধ্যে কন্টেন্ট ফিল্টারিং করার সক্ষমতা বাংলাদেশ অর্জন করেছে। আগামী মার্চে এ প্রযুক্তি চালু করা সম্ভব। এটি চালু হলে পর্নসহ বিপদগামী অনেক সাইট বন্ধ করে শিশুদের রক্ষা করতে পারবো।’

তিনি আরও বলেন, ‘ডিজিটাল শিল্পবিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় আমাদেরকে ডিজিটাল হতে হবে, একই সঙ্গে ডিজিটাল নিরাপত্তা ব্যবস্থাও নিশ্চিত করতে হবে। শিশুরা কীভাবে ইন্টারনেট ব্যবহার করে এটি একটি বড় চ্যালেঞ্জ। আমাদের মনে রাখতে হবে শিশুদের কাছে আমরা কী ধরনের কন্টেন্ট সরবরাহ করছি?’

‘শিশুদের জ্ঞানার্জনের পদ্ধতির সঙ্গে আমাদের বিদ্যমান পদ্ধতিটি বিপরীতমুখী। সরকারের এখনকার চেষ্টা হচ্ছে শিশুসহ নাগরিকদের খারাপ কন্টেন্ট থেকে রক্ষা করা। আবার খারাপ কন্টেন্টগুলোর উৎপত্তিস্থল কিন্তু বাংলাদেশ নয়। সে জন্য এটি একটি বড় চ্যালেঞ্জ আমাদের জন্য। আরও একটি বড় বিষয় হচ্ছে, যারা কন্টেন্টগুলো দুনিয়াব্যাপী ছড়াচ্ছেন তারা তাদের নিজেদের স্ট্যান্ডার্টে চলেন, আমাদের স্ট্যান্ডার্টে চলেন না। তবে এ ক্ষেত্রেও সাম্প্রতিক অগ্রগতি অর্জিত হয়েছে। আমাদের দেশের আইন পরিপন্থি অনেক বিষয়ের প্রতি তারা সম্মান দেখাতে সম্মত হয়েছে।’

‘এটাও ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মার্ণের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের একটি বড় সাফল্য’, যোগ করেন মন্ত্রী।

মোস্তাফা জব্বার জানান, ডিজিটাল প্রযুক্তি বিশেষ করে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা গত দশ বছর আগেও ছিল মাত্র ৮ লাখ। বর্তমানে তা প্রায় ৯ কোটিতে উন্নীত হয়েছে।

ইন্টারনেট থেকে শিশুদের নিরাপদ রাখতে অভিভাবকদের সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘অভিভাকদেরকেও নিরাপদ ব্যবহারের দক্ষতা প্রশিক্ষণ প্রয়োজন। প্যারেন্টাইল গাইড নামে ইন্টারনেটের একটা অপশন আছে যা প্রয়োগের মাধ্যমে খারাপ কন্টেন্ট থেকে শিশুদের নিরাপদ রাখা যায়।’

প্রিয় প্রযুক্তি/কামরুল