সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে নারী আইনজীবীরা বসন্তকে বরণ করতে একত্র হন। ছবি: প্রিয়.কম

বাসন্তী রঙে নারী আইনজীবীরা

তাদের পরনে ছিল বাসন্তী সাজের রং-বেরঙের শাড়ি। আদালতের কাজ শেষ করে বিকেলে তারা উপভোগ করেছেন বসন্ত উৎসব। একজন আরেকজনকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

আমিনুল ইসলাম মল্লিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৯:৩৯ আপডেট: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২০:২৯
প্রকাশিত: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৯:৩৯ আপডেট: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২০:২৯


সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে নারী আইনজীবীরা বসন্তকে বরণ করতে একত্র হন। ছবি: প্রিয়.কম

(প্রিয়.কম) পহেলা ফাল্গুনকে বরণ করতে আইনি পোশাক ছেড়ে বাসন্তী সাজে সেজেছিলেন সুপ্রিম কোর্টের নারী আইনজীবীরা। তাদের পরনে ছিল বাসন্তী সাজের রং-বেরঙের শাড়ি। আদালতের কাজ শেষ করে বিকেলে তারা উপভোগ করেছেন বসন্ত উৎসব। একজন আরেকজনকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

১৩ ফেব্রুয়ারি, বিকেলে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে এমন চিত্র দেখা গেছে।

এদিন তারা আদালতের নানা জায়গায় একসাথে হয়ে ছবি তোলেন। ছবি: সংগৃহীত

এদিন নারী আইনজীবীরা কর্মশেষে একত্র হয়ে গল্প করেছেন, আড্ডা দিয়েছেন, নানা খুনসুটি করেছেন। পরে সেলফিও তুলেছেন সারবেঁধে। তাদের দেখে মনে হয়েছে, দিনটির জন্য তারা যেন মুখিয়ে ছিলেন। থাকবেনই না কেন! কর্ম দিবসে যে দিনমান মানসিক চাপে থাকতে হয় তাদের।

বসন্তকে বরণ করতে এদিন তাদের কেউ বাসন্তী রঙের শাড়ির পাশাপাশি খোঁপায় গুঁজেছিলেন হলদে গোলাপ। এ সময় তারা সুপ্রিম কোর্টের জাজেস লাউঞ্জের সামনে, সুপ্রিম কোর্টের পুরনো ভবনের মাঝখানের ফাঁকা জায়গায়, আবার কখনো কোর্ট লাউঞ্জের সিঁড়িতে দাঁড়িয়ে নানা ঢঙে ছবি তোলেন আর আনন্দ-উচ্ছ্বাসে মেতে ওঠেন।

বর্ণিল সাজে নারী আইনজীবীরা। ছবি: সংগৃহীত

জানতে চাইলে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল জান্নাতুল ফেরদৌসী রুপা প্রিয়.কমকে বলেন, ‘প্রতি বছরই আমরা বিভিন্ন অকেশনকে কেন্দ্র করে এ রকমভাবে একত্রিত হই। একসঙ্গে অল্প সময়ের জন্য আড্ডা দেই। ছবি তুলি, কেক কাটি। আনন্দ করি।’

ফুরসত মিলতেই তাদের মাঝে দেখা যায় বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস। ছবি: সংগৃহীত

‘অল্প সময়ের নোটিশে সবাইকে একত্রিত করেছিলাম। সাড়া পেয়েছিলাম ভালো। সবাই বাসন্তী শাড়ি পরে সাজুগুজু করে এসেছিল। অনেক আনন্দ করেছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘গত বছরও এ রকম আনন্দ করেছি আমরা। সুপ্রিম কোর্টের পুরাতন ভবনের ফাঁকা জায়গায় দাঁড়িয়ে আমরা ছবি তুলেছি। সেখানে অনেক ফুলের বাগান আছে। পরিবেশটা চমৎকার।’

প্রিয় সংবাদ/আজাদ চৌধুরী

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...