ক্ষমা চাইলেও মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার বন্ধ হবে না বলে মন্তব্য ওবায়দুল কাদেরের। ফাইল ছবি

জামায়াতের ক্ষমা চাওয়ার বিষয়টি এখনো গুজব : কাদের

নতুন নামে জামায়াত। নতুন বোতলে পুরাতন মদ যদি আসে, তাহলে পার্থক্যটা আর কী। নতুন নামে পুরাতন আদর্শই যদি তাকে, তাহলে তো একই কথা।

মোক্তাদির হোসেন প্রান্তিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৫:১৭ আপডেট: ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৫:১৭
প্রকাশিত: ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৫:১৭ আপডেট: ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৫:১৭


ক্ষমা চাইলেও মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার বন্ধ হবে না বলে মন্তব্য ওবায়দুল কাদেরের। ফাইল ছবি

(প্রিয়.কম) মহান মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ভূমিকায় ক্ষমা চাওয়ার পর মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার বন্ধ হবে না বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের

১৬ ফেব্রুয়ারি, শনিবার দুপুরে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে জামায়াতের ক্ষমা চাওয়ার কথা বলে সদ্য পদত্যাগ করা দলটির সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘স্বাধীনতার ৪৭ বছর জামায়াত এখন ক্ষমা চাওয়ার বিষয়টি কেন সামনে নিয়ে আসছে, এটা ঘোলাটে। তাদের রাজনৈতিক কৌশল হতে পারে। যদিও অফিসিয়ালি তারা এখনও কিছু বলেনি। তবে ক্ষমা চাইলেও যুদ্ধাপরাধ এবং মানবতাবিরোধী অপরাধের যে বিচার চলছে, সেটা বন্ধ হবে না। মুক্তিযুদ্ধে ভূমিকার জন্যে জামায়াতের ক্ষমা চাওয়ার বিষয়টি এখনো গুজব। ক্ষমা চাওয়ার পরও মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার বন্ধ হবে না।’

জামায়াত যদি নতুন নামে আসে, তাহলে কী হবে- এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘নতুন নামে জামায়াত। নতুন বোতলে পুরাতন মদ যদি আসে, তাহলে পার্থক্যটা আর কী। নতুন নামে পুরাতন আদর্শই যদি তাকে, তাহলে তো একই কথা।’

এ সময় আরেক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অবসরের কথা বলেছেন। এর আগেও তিনি অবসর নিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু দলের নেতাকর্মী ও কাউন্সিলরদের দাবির মুখে তিনি পারেননি। আগামীতেও নেতাকর্মীরা তাকে ছাড়বে কি-না সেটা ভাবতে হবে।’

গত কয়েকদিন ধরেই মুক্তিযুদ্ধে জামায়াত ইসলামীর ভূমিকা নিয়ে দলের মধ্যে বেশ দ্বন্দ্ব শুরু হয়। অপেক্ষাকৃত তরুণ নেতারা দলীয় ফোরামে যাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ আছে তাদের নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া ও মুক্তিযুদ্ধের সময়ের ভূমিকার জন্য জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়াসহ সংস্কার প্রস্তাব দিয়ে আসছেন।

গতকাল শুক্রবার দলটির অন্যতম সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক মুক্তিযুদ্ধে জামায়াত ইসলামীর ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলে সংগঠন থেকে পদত্যাগ করলে দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে আসে।

প্রিয় সংবাদ/রুহুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...