গৌতম গম্ভীর ও শহীদ আফ্রিদি। ছবি: সংগৃহীত

যুদ্ধ চেয়ে গম্ভীরের টুইট, আফ্রিদির অদ্ভুত প্রতিক্রিয়া

ভারতের সাবেক এই ক্রিকেটারের মতে, আলোচনা হওয়া উচিত পাকিস্তানের সঙ্গে। তবে সেটা টেবিলে নয় বরং যুদ্ধক্ষেত্রে!

সৌরভ মাহমুদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৪:২৩ আপডেট: ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৪:২৩
প্রকাশিত: ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৪:২৩ আপডেট: ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৪:২৩


গৌতম গম্ভীর ও শহীদ আফ্রিদি। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার ঘটনায় ক্ষোভে ফুঁসছে গোটা ভারত। সন্ত্রাসবাদ নির্মুলের সমবেত দাবি তোলার পাশাপাশি শহিদ সৈনিকদের প্রতি শ্রদ্ধা ও তাদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছেন গোটা দেশের মানুষ। এই তালিকায় রয়েছেন ভারতীয় ক্রিকেটাররাও।

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে শহিদ পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর কথা বলার পাশাপাশি এমন ঘৃন্য ঘটনার নিন্দাও করছেন গৌতম গম্ভীর-বীরেন্দর শেবাগ-শচিন টেন্ডুলকার-বিরাট কোহলিরা। সবাই পাক-মদতপুষ্ট জঙ্গিদের ধিক্কার জানালেও অত্যন্ত আগ্রাসীই ছিলেন ভারতীয় দলের সাবেক ওপেনার গম্ভীর।

ভারতের সাবেক এই ক্রিকেটারের মতে, আলোচনা হওয়া উচিত পাকিস্তানের সঙ্গে। তবে সেটা টেবিলে নয় বরং যুদ্ধক্ষেত্রে!

ওই টুইটে গম্ভীর লিখেছেন, ‘কথা বলা হোক বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে। আলোচনা হোক পাকিস্তানের সঙ্গে। তবে সেই আলোচনা টেবিলে নয়। বরং হোক যুদ্ধক্ষেত্রেই। অনেক হয়েছে আর নয়।’

গম্ভীরের সেই টুইট।

গম্ভীরের এমন মনোভাব নিয়ে শহীদ আফ্রিদিকে প্রশ্ন করা হলে অদ্ভুত প্রতিক্রিয়াই দেখিয়েছেন পাকিস্তানের এই তারকা অলরাউন্ডার। 

মাঠে গড়িয়েছে পাকিস্তান সুপার লিগের (পিএসএল) চতুর্থ আসর। এই আসরে শোয়েব মালিকের নেতৃত্বাধীন মুলতান সুলতানসের হয়ে খেলছেন আফ্রিদি। ইসলামাবাদ ইউনাইটেডের বিরুদ্ধে ম্যাচ শেষে মাঠ ছেড়ে টিম বাসে ওঠার সময় গম্ভীরের টুইট প্রসঙ্গে আফ্রিদির কাছে মতামত জানতে চাওয়া হয়।

ওই সময় প্রশ্নকর্তা সাংবাদিক আফ্রিদিকে জিজ্ঞেস করেন, ‘গম্ভীরের টুইট প্রসঙ্গে আপনার কী মত?’ ঘুরে দাঁড়িয়ে আফ্রিদি পালটা প্রশ্ন করে বসেন, ‘কী হয়েছে ওর?’ পরবর্তী সময়ে প্রশ্নকর্তা পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলা প্রসঙ্গ উত্থাপন করতেই কোনো কথা না বলে টিম বাসে উঠে যান পাকিস্তানের সাবেক এই অধিনায়ক।

স্পষ্টতই বিতর্ক এড়িয়ে যাওয়ার মানসিকতা চোখে পড়ে পাকিস্তানের এই তারকা অলরাউন্ডারের মধ্যে। আফ্রিদির এমন প্রতিক্রিয়া নিয়েও ঝড় উঠেছে নেটিজেনদের মাঝে।

প্রিয় খেলা/রিমন