সাড়ে চার মাস বয়সী ছেলে সুহাইব বিন কায়েসকে কোলে নিয়ে মক্কায় ইমরুল কায়েস। ছবি: ফেসবুক

সন্তানকে নিয়ে ওমরাহ পালন করলেন ইমরুল

গত বছরের সেপ্টেম্বরে ইমরুল কায়েস-রুবাইয়া ইসলামের ঘর আলো করে পৃথিবীতে এসেছে সুহাইব।

সৌরভ মাহমুদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৮:৩০ আপডেট: ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৮:৩০
প্রকাশিত: ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৮:৩০ আপডেট: ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৮:৩০


সাড়ে চার মাস বয়সী ছেলে সুহাইব বিন কায়েসকে কোলে নিয়ে মক্কায় ইমরুল কায়েস। ছবি: ফেসবুক

(প্রিয়.কম) জাতীয় দলের ওপেনার ইমরুল কায়েস ও তার স্ত্রী রুবাইয়া ইসলামের প্রথম সন্তান সুহাইব বিন কায়েস। গত বছরের সেপ্টেম্বরে তাদের ঘর আলো করে পৃথিবীতে এসেছে সুহাইব। এবার সাড়ে ৪ মাস বয়সী এই  শিশুপুত্রকে নিয়ে পবিত্র উমরাহ পালন করেছেন জাতীয় দলের এই ওপেনার।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে নিজের ও সন্তানের ছবি পোস্ট করেছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়ে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) শিরোপা জেতা এই অধিনায়ক। ছবির ক্যাপশনে লেখা ছিল, ‘শান্তি...সুখ...আলহামদুলিল্লাহ।’

এই মুহূর্তে নিউজিল্যান্ড সফরে রয়েছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। এই সিরিজে স্কোয়াডে জায়গা হয়নি ইমরুলের।এশিয়া কাপ ও ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ে-উইন্ডিজ সিরিজে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স উপহার দেন ইমরুল। এরপর বিপিএলে আহামরি কোনো পারফরম্যান্স দেখাতে না পারলেও তার অধীনেই ষষ্ঠ আসরের শিরোপা ঘরে তোলে কুমিল্লা।

অবশ্য বিপিএলের সদ্য সমাপ্ত আসরের প্রথম কোয়ালিফায়ারে রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে ডিপ মিড উইকেটে ফিল্ডিংয়ের সময় কুঁচকিতে আঘাত পান ইমরুল কায়েস। ম্যাচ চলাকালীন ব্যথার তীব্রতা অনুভব করেন। তাৎক্ষণিক সমাধান খুঁজতে গিয়ে শরণাপন্ন হন ব্যথানাশক ওষুধের। ওই ওষুধ খেয়েই ফাইনালে নামেন ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে। তাতেই যত সর্বনাশ। স্ক্যান ও এমআরআই রিপোর্টে জানা যায়, টিস্যু ছিঁড়ে গেছে তার। এখন ন্যূনতম তিন সপ্তাহ বিশ্রামে থাকতে হবে। সময়টা বেড়ে হতে পারে চার সপ্তাহও। এরই ফাঁকে ছোট্ট সুহাইবকে নিয়ে ওমরাহ পালনে গেছেন বাংলাদেশের অভিজ্ঞ এই ওপেনার। সঙ্গে স্ত্রী রুবাইয়াও রয়েছেন।

১ মার্চ থেকে শুরু হবে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ। যেখানে প্রথম দুটি ম্যাচে তার মাঠে নামা নাও হতে পারে। তবে তৃতীয় ম্যাচ থেকে তার মাঠে নামা নিশ্চিত। অবশ্য শুরু থেকেই প্রিমিয়ার লিগে খেলবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন ইমরুল।

প্রিয় খেলা/রিমন

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...