সবাই জঙ্গিদের ধিক্কার জানালেও পুলওয়ামা হামলায় এখন পর্যন্ত কোনো মন্তব্য করেননি মহেন্দ্র সিং ধোনি। ছবি: সংগৃহীত

পুলওয়ামা হামলায় নীরবতা, তীব্র সমালোচনার মুখে ধোনি

এই তালিকায় ধোনি শুধু একাই নন।

মুশাহিদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৩:৩২ আপডেট: ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৩:৩২
প্রকাশিত: ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৩:৩২ আপডেট: ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৩:৩২


সবাই জঙ্গিদের ধিক্কার জানালেও পুলওয়ামা হামলায় এখন পর্যন্ত কোনো মন্তব্য করেননি মহেন্দ্র সিং ধোনি। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) গেল বৃহস্পতিবারের ঘটনা। ভারতশাসিত জম্মু-কাশ্মীরে বোমা হামলায় প্রাণ হারান দেশটির সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের (সিআরপিএফ) ৪০ জন সদস্য। এ ছাড়া মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন আরও বেশ কয়েকজন। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ভারতীয় বাহিনীর ওপর এটাই সবচেয়ে বড় হামলা।

পুলওয়ামার আওয়ান্তিপুরা এলাকায় সিআরপিএফ জওয়ানদের ওপর নৃশংস হামলায় পুরো ভারত রীতিমতো কাঁপছে। একইসঙ্গে ক্ষোভে ফুঁসছে দেশবাসী। হামলাকারীদের কীভাবে জবাব দেওয়া যায়, সেটা নিয়েও চলছে নানা আলোচনা। সন্ত্রাসবাদ নির্মুলের সমবেত দাবি তোলার পাশাপাশি শহিদ সৈনিকদের প্রতি শ্রদ্ধা ও তাদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছেন গোটা দেশের মানুষ।

এই তালিকায় রয়েছেন ভারতীয় ক্রিকেটাররাও। শহিদ পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেওয়ার পাশাপাশি এমন ঘৃন্য ঘটনার নিন্দাও জানিয়েছেন গৌতম গম্ভীর-বীরেন্দর শেবাগ-শচিন টেন্ডুলকার-বিরাট কোহলিরা। সবাই জঙ্গিদের ধিক্কার জানালেও এ নিয়ে এখন পর্যন্ত কোনো মন্তব্য করেননি মহেন্দ্র সিং ধোনি

সিআরপিএফ জওয়ানদের উপর বর্বর এই হামলায় দায় ইতোমধ্যেই স্বীকার করে নিয়েছে পাকিস্তানের সন্ত্রাসী সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদ। সংগঠনটির নাড়ি পাকিস্তান হওয়ায় আবারও উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে ভারত-পাকিস্তানের রাজনৈতিক সম্পর্ক।

দুই দেশের রাজনৈতিক উত্তাপ ছড়িয়ে পড়েছে ক্রিকেটেও। জঙ্গি হামলায় ক্ষোভ জানিয়ে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সরাসরি যুদ্ধ ঘোষণা করছেন গম্ভীর। পুলওয়ামা জঙ্গি হামলাকে ‘কাপুরুষোচিত’ আখ্যা দিয়ে শহিদ জওয়ানদের পাশে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন শেবাগ। নিহত জওয়ানদের সন্তানদের পড়ালেখার খরচ বহনের প্রস্তাব দিয়েছেন সাবেক এই ভারতীয় ব্যাটসম্যান।

পুলওয়ামা হামলায় দোষীদের শাস্তি চেয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছেন শচিন। দেশের উপর হামলার ঘটনায় স্পোর্টস অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠান পিছিয়ে দিয়েছেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। এখানেই শেষ নয়, ভারতে বন্ধ করে দেওয়া হয় চলমান পাকিস্তান সুপার লিগের (পিএসএল) সম্প্রচার। দুই দেশের মধ্যকার সম্পর্ক এতটাই বৈরী হয়ে পড়েছে যে, ভারতের গুরুত্বপূর্ণ স্থান থেকে নামিয়ে ফেলা হয়েছে পাকিস্তানের বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রতিকৃতিও।

ক্রীড়াঙ্গনের সবাই যখন জঙ্গি হামলার প্রতিবাদে সোচ্চার, তখন ধোনির কাছ কোনো প্রতিক্রিয়াই পাওয়া যায়নি। দেশের টেরিটোরিয়াল আর্মির লেফটেন্যান্ট কর্নেল পদে রয়েছেন ভারতের এই বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক। এরপরও জওয়ানদের উপর এমন নৃশংস হামলায় চুপ থাকায় ধোনির ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে ভক্ত-সমর্থক-ক্রিকেটপ্রেমী থেকে শুরু করে ভারতের অনেক সাধারণ নাগরিক।

এই তালিকায় ধোনি শুধু একাই নন। ভারতের আরেক বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক কপিল দেবও জঙ্গি হামলা নিয়ে তেমন কোনো প্রতিক্রিয়া দেখাননি। ধোনির মতো তিনিও ভারতের টেরিটোরিয়াল আর্মির লেফটেন্যান্ট কর্নেল পদে রয়েছেন। কিন্তু পুলওয়ামা হামলা নিয়ে ১৯৮৩ সালে ভারতকে বিশ্বকাপ জেতানো অধিনায়ক কেন সরব হলেন না তা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।

প্রিয় খেলা/আশরাফ

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...