ভারত-পাকিস্তানের মধ্যকার ম্যাচের একটি মুহূর্ত। ফাইল ছবিটি সংগৃহীত

বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ না হলে আইসিসির ক্ষতি কত?

বিপুল অঙ্কের ক্ষতির হাত থেকে বাঁচতে বিসিসিআই ও পিসিবির মধ্যস্থতাকারী হিসেবেও কাজ করার চেষ্টা করছে বিশ্ব ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থাটি।

মুশাহিদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ০২ মার্চ ২০১৯, ১৯:৩৪ আপডেট: ০২ মার্চ ২০১৯, ১৯:৩৪
প্রকাশিত: ০২ মার্চ ২০১৯, ১৯:৩৪ আপডেট: ০২ মার্চ ২০১৯, ১৯:৩৪


ভারত-পাকিস্তানের মধ্যকার ম্যাচের একটি মুহূর্ত। ফাইল ছবিটি সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) পুলওয়ামায় ভয়াবহ জঙ্গি হামলার পর থেকেই উত্তপ্ত ভারত-পাকিস্তানের রাজনৈতিক সম্পর্ক। সেই রাজনৈতিক উত্তাপ ছড়িয়ে পড়েছে ক্রিকেটেও। এর জের ধরেই ভারতে বন্ধ করে দেওয়া হয় চলমান পাকিস্তান সুপার লিগের (পিএসএল) সম্প্রচার। এখানেই শেষ নয়। উত্তপ্ত পরিস্থিতিতে বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যকার ম্যাচ নিয়েও দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা। তাতে অস্থিরতা বেড়েছে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি)। কারণ বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচটি না হলে বড় ক্ষতির মুখে পড়বে বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি।

আইসিসি বলছে, সেই ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ১৭০ কোটি টাকা। এজন্য আইসিসি চাইছে, যেকোনোভাবে ভারত-পাকিস্তানের ম্যাচটি আয়োজন করতে। বিপুল অঙ্কের ক্ষতির হাত থেকে বাঁচতে বোর্ড অব কন্ট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়া (বিসিসিআই) ও পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) মধ্যস্থতাকারী হিসেবে কাজ করার চেষ্টা করছে বিশ্ব ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থাটি।

রাজনীতির মতো ক্রিকেট মাঠেও ভারত-পাকিস্তান চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী। শুরু থেকে দুই দলের মধ্যকার ম্যাচ হাইভোল্টেজ তকমা পেয়ে আসছে। ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে দর্শক সংখ্যাও থাকে রেকর্ড পরিমাণ। কিন্তু ম্যাচটি না হলে মাঠ ও টেলিভিশন উভয় জায়গা থেকেই দর্শক হারাবে আইসিসি।

আইসিসির তথ্য অনুযায়ী, ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের টিকেট থেকেই আসবে প্রায় ৩০-৪০ কোটি টাকা। এ ছাড়াও ১৩০ কোটি টাকার মতো আয় হবে টেলিভিশন সম্প্রচার ও বিজ্ঞাপন থেকে। সবমিলিয়ে লাভের অঙ্কটা দাঁড়াবে ১৭০ কোটি টাকার মতো। কিন্তু ম্যাচটি না হলে পুরো টাকাটাই হারাবে আইসিসি।

১৪ ফেব্রুয়ারি ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরে আত্মঘাতী বোমা হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন দেশটির সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের (সিআরপিএফ) ৪০ জনের বেশি সদস্য। এ ছাড়া মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছেন আরও কয়েকজন। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ভারতীয় বাহিনীর ওপর এটাই সবচেয়ে বড় হামলা। কাশ্মীরের পুলওয়ামার আওয়ান্তিপুরা এলাকায় সিআরপিএফ জওয়ানদের ওপর হামলার দায় স্বীকার করে নিয়েছে জইশ-ই-মোহাম্মদ। সংগঠনটি পাকিস্তানভিত্তিক হওয়ায় ফের উত্তপ্ত হয়ে ওঠে ভারত-পাকিস্তানের রাজনৈতিক সম্পর্ক।

এই হামলার জের ধরে বিশ্বকাপের মঞ্চে পাকিস্তানের বিপক্ষে না খেলার দাবিও ক্রমশ জোরালো হচ্ছে। সেই দাবিতে ইতোমধ্যেই সমর্থন জানিয়েছেন ভারতের বেশ কয়েকজন সাবেক ক্রিকেটার।

এর প্রেক্ষিতে নিজেদের করণীয় ঠিক করতে বৈঠকে বসেন সুপ্রিম কোর্ট নিযুক্ত বোর্ড অব কন্ট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়ার (বিসিসিআই) প্রশাসক কমিটির সদস্যরা। বৈঠক শেষে পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ না খেলার দাবি জানিয়ে আইসিসির কাছে চিঠি পাঠায় বিসিসিআই। চিঠিতে ভারতীয় ক্রিকেটারদের নিরাপত্তা নিয়েও উদ্বেগের কথা জানায় তারা।

প্রিয় খেলা/রিমন

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...