গ্যাসের ‍চুলা। ছবি: সংগৃহীত

দুই চুলার গ্যাসের দাম ১৪৪০ টাকা করতে চায় তিতাস

রাজধানীর টিসিবি মিলনায়তনে এই শুনানির আয়োজন করে এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)।

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ১৩ মার্চ ২০১৯, ১৭:৫৭ আপডেট: ১৩ মার্চ ২০১৯, ১৯:৫০
প্রকাশিত: ১৩ মার্চ ২০১৯, ১৭:৫৭ আপডেট: ১৩ মার্চ ২০১৯, ১৯:৫০


গ্যাসের ‍চুলা। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) দুই চুলার গ্যাসের দাম ৮০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৪৪০ টাকা করতে চায় তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি।

১২ মার্চ, মঙ্গলবার রাজধানীর ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) মিলনায়তনে এই সংক্রান্ত গণশুনানির আয়োজন করে এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)।

গ্যাসের দাম বাড়ানোর আবেদনে প্রস্তাবিত গ্যাসের দাম গড়ে ১০২.৮৫ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তাব করে গ্যাস বিতরণ কোম্পানি তিতাস। তবে প্রস্তাবিত গ্যাসের দাম বৃদ্ধির আবেদনের গণশুনানিতে শিল্প উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীরা এর বিরোধিতা করেছেন। 

গণশুনানিতে কমিশনের চেয়ারম্যান মনোয়ার ইসলাম, সদস্য মিজানুর রহমান, মাহমদুউল হক ভূঁইয়া, রহমান মুর্শেদ, আব্দুল আজিজ খান উপস্থিত ছিলেন।

গতকাল সকালে তিতাস গ্যাসের ও বিকেলে পশ্চিমাঞ্চল গ্যাসের দাম বৃদ্ধির ওপর গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়। তিতাস গড়ে ১০২.৮৫ শতাংশ দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে। সংস্থাটি বাসা বাড়িতে এক চুলার বর্তমান দর ৭৫০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৩৫০টাকা, দুই চুলার ৮০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৪৪০ টাকা করার আবেদন করেছে। কোম্পানিটি বিদ্যুতে প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের দাম তিন টাকা ১৬ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৯ টাকা ৭৪ পয়সা, সিএনজিতে ৩২ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৪৮ টাকা, আবাসিকের প্রি-পেইড মিটারে ৯ টাকা ১০ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ১৬ টাকা ৪১ পয়সা, সার উৎপাদনে দুই টাকা ৭১ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৮ টাকা ৪৪ পয়সা, ক্যাপটিভ পাওয়ারে ৯ টাকা ৬২ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ১৮ টাকা চার পয়সা, শিল্পে সাত টাকা ৭৬ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ২৪ টাকা পাঁচ পয়সা, বাণিজ্যিকে ১৭ টাকার পরিবর্তে ২৪ টাকা পাঁচ পয়সা করার প্রস্তাব করেছে।

একই সঙ্গে বিতরণ চার্জ বাড়ানোর জন্যও প্রস্তাবনা দিয়েছে। তিতাস বিদ্যমান বিতরণ চার্জ ২৫ পয়সা থেকে বাড়িয়ে চলতি অর্থবছরে ৫৩ পয়সা এবং ২০১৯-২০ অর্থবছরে ৫৫ পয়সা করার আবেদন জানিয়েছে। তবে বিইআরসির মূল্যায়ন কমিটি বলেছে, চলতি অর্থবছর সমাপ্তির পর প্রকৃত তথ্যের ভিত্তিতে তিতাসের বিতরণ চার্জ বাড়ানো যৌক্তিক হবে। ঢাকা ও এর নিকটবর্তী ১৪টি জেলায় গ্যাস বিতরণ করে তিতাস।

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই’র সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, ‘অবকাঠামো উন্নয়নে গুরুত্ব দিলেও সরকারের স্বল্প মেয়াদি শিল্পনীতি বেশ অগোছালো। তবে মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি উন্নয়ন নীতি ভালো। শুধু দাম বাড়ানোর সময় তাদের ডাকা হবে আর বিশ্ববাজারে দাম কমলে কমানোর কোনো উদ্যোগ নেওয়া হবে না, এই চর্চা ঠিক নয়।’

তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ’র সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘আবেদন করার পর শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো সবেমাত্র গ্যাস সংযোগ পেতে শুরু করেছে। এ সময়ে দাম বৃদ্ধি কার স্বার্থে? গণশুনানি হাস্যকর। সারা বিশ্বে তেলের দাম কমলেও বাংলাদেশে জ্বালানির দাম কমেনি।’

কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) জ্বালানি উপদেষ্টা অধ্যাপক শামসুল আলম বলেন, ‘আগামী এপ্রিলে নতুন এলএনজি আসতে পারবে না। এই বিষয়টি সরকার যেমন জানে, বিইআরসিও বোঝে যে গ্যাস আসেইনি তার ওপর ভিত্তি করে দাম বাড়ানোর উদ্যোগ অযৌক্তিক ও অন্যায়।’

শুনানিতে অংশ নিয়ে সুন্দরবন গ্যাস কোম্পানি একই হারে গ্রাহক পর্যায়ে গ্যাসের দাম বৃদ্ধির আবেদন করেছে। তারা বিতরণ মার্জিন ২৩ পয়সা থেকে বাড়িয়ে চলতি অর্থবছরে এক টাকা ২৫ পয়সা এবং ২০১৯-২০ অর্থবছরে এক টাকা ৩০ পয়সা করার আবেদন জানিয়েছে।

প্রিয় সংবাদ/কামরুল/রুহুল