হ্যাগলি পার্কের ড্রেসিংরুমে উদ্বিগ্ন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। ছবি: সংগৃহীত

যত দ্রুত সম্ভব দেশে ফিরতে চান বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা

স্থানীয় রেডিও ধারাভাষ্যকার ব্রায়ান ওয়াডেল জানিয়েছেন, টিম হোটেলে বেশ কয়েকজন ক্রিকেটারদের চোখে পানি দেখেছেন তিনি।

সৌরভ মাহমুদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ১৫ মার্চ ২০১৯, ১০:৩১ আপডেট: ১৫ মার্চ ২০১৯, ১১:০৭
প্রকাশিত: ১৫ মার্চ ২০১৯, ১০:৩১ আপডেট: ১৫ মার্চ ২০১৯, ১১:০৭


হ্যাগলি পার্কের ড্রেসিংরুমে উদ্বিগ্ন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) অন্যান্য দিনের মতোই স্বাভাবিক ছিল সবকিছু। অনুশীলন শেষে জুমার নামাজ আদায়ের উদ্দেশ্যে আল নুর মসজিদে যাচ্ছিলেন কিছু ক্রিকেটার। কিন্তু তারা ফিরলেন ভীতিকর এক অভিজ্ঞতা নিয়ে। অজ্ঞাত এক নারীর কল্যাণে সন্ত্রাসী হামলায় পড়তে যাওয়া বিপদ এড়ান বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা।

বিপদ এড়িয়ে নিরাপদে ফিরতে পারলেও ভীতিকর অভিজ্ঞতার কথা স্মৃতি থেকে মুছে ফেলতে পারছেন না যেন বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা। তাই তো যত দ্রুত সম্ভব, দেশে ফিরতে চান মুশফিকুর রহিম-তামিম ইকবালরা।

১৫ মার্চ, শুক্রবার অনুশীলন শেষে জুম্মার নামাজ পড়তে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ-মুশফিকুর রহিম-তামিম ইকবাল-মুস্তাফিজুর রহমান-মেহেদী হাসান মিরাজ-তাইজুল ইসলামসহ বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার যান নিকটবর্তী মসজিদ আল নূরে। মসজিদে প্রবেশ করার ঠিক আগমুহূর্তে অজ্ঞাত এক নারী বাংলাদেশ দলকে সাবধান করেন যে, ভেতরে একজন পিস্তল হাতে ঢুকেছেন।

অজ্ঞাত নারীর ওই সাবধান বাণী শুনেই কাছেই দাঁড়িয়ে থাকা টিম বাসে ওঠে পড়েন বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা এবং বাসের মেঝেতে শুয়ে পড়েন। এ সময় গোলাগুলির আওয়াজ শুনতে পান তারা। এরপর ভয়ার্ত ক্রিকেটাররা দ্রুতই হ্যাগলি পার্কের রাস্তা ধরে স্টেডিয়ামে ফেরেন। আপাতত তারা নিরাপদেই রয়েছেন। তবে নিরাপদে থাকলেও খুব কাছ থেকে এমন একটি ঘটনার সাক্ষী হয়ে ভীতশ্রদ্ধ হয়ে পড়েছেন ক্রিকেটাররা।

নিউজিল্যান্ডের স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানাচ্ছে, যত দ্রুত সম্ভব দেশে ফিরে আসতে চাচ্ছেন তারা। এ বিষয়ে নিউজিল্যান্ড হেরাল্ডকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে জনপ্রিয় ক্রিকেটবিষয়ক ওয়েবসাইট ইএসপিএন ক্রিক ইনফোর বাংলাদেশ প্রতিনিধি মোহাম্মদ ইসাম বলেন, ‘আমি মনে করি না তাদের খেলার মতো মানসিক অবস্থা রয়েছে। আমি মনে করি যত দ্রুত সম্ভব তাদের দেশে ফেরা উচিত। আমি অভিজ্ঞতা থেকে বলছি, আমি যা শুনেছি তাই বলছি।’

আপাতত ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ওভাল স্টেডিয়ামের ড্রেসিংরুমে অবস্থান করছেন বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা। তবে দলের কোচিং স্টাফ এবং দুই তরুণ সদস্য লিটন কুমার দাস ও নাঈম হাসান রয়েছেন টিম হোটেলেই। তাদেরকে সেখানেই থাকতে বলেছেন দলের ম্যানেজার খালেদ মাসুদ পাইলট।

ঘটনার পর থেকে বাংলাদেশ দলের সঙ্গেই রয়েছেন স্থানীয় রেডিও ধারাভাষ্যকার ব্রায়ান ওয়াডেল। যিনি স্থানীয় সংবাদমাধ্যম নিউজিল্যান্ড হেরাল্ডকে জানিয়েছেন, টিম হোটেলে বেশ কয়েকজন ক্রিকেটারদের চোখে পানি দেখেছেন।

প্রিয় খেলা/রুহুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...