ক্রাইস্টচার্চে দুই মসজিদে হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪৯ জন হয়েছে। ছবি: সংগৃহীত

ক্রাইস্টচার্চে দুই মসজিদে হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪৯

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও একজন মারা গেছেন। এ নিয়ে নিহত বাংলাদেশির সংখ্যা দাঁড়াল তিনজনে।

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ১৫ মার্চ ২০১৯, ১৬:৩৯ আপডেট: ১৫ মার্চ ২০১৯, ১৮:২৯
প্রকাশিত: ১৫ মার্চ ২০১৯, ১৬:৩৯ আপডেট: ১৫ মার্চ ২০১৯, ১৮:২৯


ক্রাইস্টচার্চে দুই মসজিদে হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪৯ জন হয়েছে। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুইটি মসজিদে জুমার নামাজের সময় বন্দুকধারীর গুলিতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪৯ জন হয়েছে। অস্ট্রেলিয়ায় নিযুক্ত (নিউজিল্যান্ডেরও দায়িত্বপ্রাপ্ত) বাংলাদেশি হাইকমিশন সূত্রে জানা যায়, নিহতদের মধ্যে দুই বাংলাদেশি রয়েছে।

১৫ মার্চ, শুক্রবার বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে নিউজিল্যান্ডের পুলিশ কমিশনার মাইক বুশ এই তথ্য জানান। খবর বিবিসি, নিউজিল্যান্ড হেরাল্ড।

বুশ বলেন, ‘দীন অ্যাভিনিউর আল নুর মসজিদে ৪১ জন এবং লিনউড এলাকার অন্য এক মসজিদে সাতজন নিহত হয়েছেন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন আরও একজন।’

এদিকে শুক্রবার দুপুরে অস্ট্রেলিয়ায় নিযুক্ত (নিউজিল্যান্ডেরও দায়িত্বপ্রাপ্ত) বাংলাদেশি হাইকমিশনার মো. সুফিউর রহমান বলেন, বাংলাদেশি কমিউনিটির কাছ থেকে জানতে পেরেছি দুই বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। তারা হলেন ড. মো. আবদুস সামাদ, যিনি একজন অ্যাগ্রোইকোনোমিস্ট (কৃষি অর্থনীতিবিদ)। আরেকজন হলেন মিসেস হোসনে আরা বেগম। তার স্বামীর নাম ড. ফরিদ।

নিউজিল্যান্ডের সরকার বা পুলিশের পক্ষ থেকে এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশি দূতাবাসকে কিছু জানায়নি বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

হাইকমিশনার সূত্র আরও জানায়, বাংলাদেশের অনারারি কাউন্সেল আগামীকাল ক্রাইস্টচার্চ পৌঁছাবে। বাংলাদেশ ক্রিকেট টিম যাতে নির্ধারিত সময়ের আগেই চলে যেতে পারে সেজন্য যোগাযোগ করা হচ্ছে।

এর আগে নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আডর্ন হামলায় ৪০ জন নিহত হওয়ার খবর দিয়েছিলেন। তখন তিনি আল নুর মসজিদে ৩০ ও লিনউড মসজিদে ১০ জন নিহত হওয়ার তথ্য দেন।

হামলায় আহত অন্তত ৪৮ জন ক্রাইস্টচার্চ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন বলে নিশ্চিত করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। আহতদের মধ্যে শিশুও রয়েছে।

হাসপাতাল থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে খুব জরুরি না হলে লোকজনকে আহতদের দেখতে হাসপতালে না আসার অনুরোধ জানানো হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘আল নূর মসজিদে গুলি শুরু হলে তারা প্রাণ বাঁচাতে সেখানে থেকে দৌড়ে পালিয়ে যান। মসজিদের বাইরে রক্তাক্ত অবস্থায় লোকজনকে পড়ে থাকতে দেখার কথাও জানান তারা।’

আল নূর মসজিদ এলাকায় মহান ইব্রাহিম নামে এক প্রত্যক্ষদর্শী নিউজিল্যান্ড হেরাল্ডকে বলেন, ‘শুরুতে আমি ভেবেছিলাম বৈদ্যুতিক গোলযোগ থেকে এমনটা হচ্ছে। পরে দেখি সবাই দৌড়াতে শুরু করেছে। এখনো আমার বন্ধুরা মসজিদের ভেতরে আছে।’

অন্য এক প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, ‘হামলাকারী সামরিকবাহিনীর মত পোশাক পরে ছিল। হাতে থাকা স্বয়ংক্রিয় রাইফেল দিয়ে সে ক্রামগত গুলি ছুড়তে থাকে।’

নিউজিল্যান্ডের স্থানীয় সময় আজ দুপুরে জুমার নামাজ পড়তে আসা মুসল্লিদের ওপর বন্দুকধারী হামলা চালালে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। সে সময় দেশটিতে সফররত বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের কয়েকজন সদস্য ক্রাইস্টচার্চের দীন অ্যাভিনিউয়ে অবস্থিত আল নূর মসজিদে নামাজ পড়তে যাচ্ছিলেন। তারা অল্পের জন্য আক্রমণ থেকে বেঁচে যান।

এ ঘটনায় বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের এই হামলায় প্রবাসী এক বাংলাদেশি নারীর মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। আপনারা দোয়া করুন, আর কোনো প্রবাসী বাংলাদেশি যেন মৃতদের তালিকায় না থাকে।’

আবদুল মোমেন বলেন, ‘আমরা জিরো টলারেন্স ঘোষণা করে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বন্ধ করেছি। আমাদের এখানে জঙ্গি-সন্ত্রাস নেই। কিন্তু যারা নিজেদের সন্ত্রাসমুক্ত দেশ দাবি করে থাকে, তাদের দেশগুলোতে প্রায়ই এ ধরনের দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা ঘটে থাকে। এটা খুব দুঃখজনক।’

বাংলাদেশ ক্রিকেট দল এখন নিউজিল্যান্ড সফরে রয়েছে। ক্রিকেট বোর্ডের পক্ষ থেকে নিরাপত্তাজনিত কোনো সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছিল কি না, এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘সন্ত্রাসী তৎপরতা আগে থেকে প্রেডিক্ট করা খুব ডিফিকাল্ট। আমাদের এখানে যেমন হলি আর্টিজান হামলা হয়েছিল। আমরা কি এ ধরনের হামলা কল্পনাও করেছি? শেষ পর্যন্ত এটি একটি দুর্ঘটনা। এ সম্পর্কে আগে থেকে কোনো তথ্য আমরা পাইনি। এমন ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক।’

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সদস্যদের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমাদের ক্রিকেট দলের সবাই সুস্থ আছেন। তারা হোটেলে ফিরে গেছেন। তারা খুবই সৌভাগ্যবান (লাকি) যে মসজিদে ঢোকার আগেই এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।’

নিউজিল্যান্ড হেরাল্ডের খবরে বলা হয়েছে, গোলাগুলি শুরুর পরপরই আল নুর মসজিদে পৌঁছেছিলেন বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা। তারা দ্রুত সেখান থেকে সরে যান। শনিবার ক্রাইস্টচার্চে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তৃতীয় টেস্ট খেলতে মাঠে নামার কথা ছিল বাংলাদেশ দলের। হামলার পর ওই ম্যাচটি বাতিল ঘোষণা করা হয়।

প্রিয় সংবাদ/কামরুল/রুহুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...