রেলপথমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। ফাইল ছবি

ট্রেনের ভাড়া বৃদ্ধির বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি :রেলপথমন্ত্রী

অন্য সব যানবাহনের ভাড়ার সঙ্গে  ট্রেনের ভাড়ার তুলনার জন্য কমিটি গঠন করা হয়েছে। তবে ট্রেনের ভাড়া বৃদ্ধির বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানিয়েছেন রেলপথ মন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন।

আমিনুল ইসলাম মল্লিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৮ মার্চ ২০১৯, ১৯:৩৭ আপডেট: ১৮ মার্চ ২০১৯, ১৯:৩৭
প্রকাশিত: ১৮ মার্চ ২০১৯, ১৯:৩৭ আপডেট: ১৮ মার্চ ২০১৯, ১৯:৩৭


রেলপথমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। ফাইল ছবি

(প্রিয়.কম) অন্য সব যানবাহনের ভাড়ার সঙ্গে ট্রেনের ভাড়ার তুলনার জন্য কমিটি গঠন করা হয়েছে। তবে ট্রেনের ভাড়া বৃদ্ধির বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানিয়েছেন রেলপথ মন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন

১৮ মার্চ, সোমবার রেলওয়ের জন্য ২০টি মিটারগেজ লোকোমোটিভ (ইঞ্জিন) ক্রয়সংক্রান্ত এক চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে এমন কথা বলেন তিনি। রাজধানীতে রেলভবনে কোরিয়ার হুন্দাই রোটেমের সঙ্গে এই চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠিত হয়।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘ট্রেনের ভাড়া বাড়ানোর বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। তবে অন্যান্য যানবাহনের সঙ্গে রেলওয়ের ভাড়া তুলনা করার জন্য একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।’

রেলকে যুগোপযোগী উন্নয়নে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করবেন মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘রেলের মাধ্যমে কাঙ্ক্ষিত সেবা দেওয়ার জন্য সর্বোত্তম চেষ্টা করা হবে। ইঞ্জিন পাওয়া শুরু হলে বিভিন্ন রুটে আরও বেশি ট্রেন চালানো সম্ভব হবে এবং এর মাধ্যমে বেশি করে রাজস্ব পাওয়া যাবে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘নতুন কোচ, ইঞ্জিন দিয়ে রেলওয়েব্যবস্থাকে ঢেলে সাজানো যাবে। এসব প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে সারা দেশের রেল যোগাযোগব্যবস্থা অনেক উন্নত হবে।’

আজকের চুক্তি অনুষ্ঠানে ‘বাংলাদেশ রেলওয়ের জন্য ২০টি মিটারগেজ লোকোমোটিভ ও ১৫০টি মিটারগেজ কোচ ক্রয়’ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক আবদুল মতিন চৌধুরী এবং হুন্দাই রোটেমের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট হুয়াং উক কিম নিজ নিজ পক্ষে স্বাক্ষর করেন। চুক্তি অনুযায়ী ২২ থেকে ২৮ মাসের মধ্যে এসব ইঞ্জিন সরবরাহ করবে হুন্দাই।

ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট কোঅপারেশন ফান্ড, কোরিয়া ও বাংলাদেশ সরকারের যৌথ অর্থায়নে লোকোমোটিভগুলো কেনা হচ্ছে। এসব ইঞ্জিন কেনা হবে ৬৭৪ কোটি ৯ লাখ ৭৭ হাজার ৩৮২ টাকায়। বর্তমানে বাংলাদেশ রেলওয়েতে ১৭৮টি মিটারগেজ লোকোমোটিভ রয়েছে, যার মধ্যে ১৩৯টির অর্থনৈতিক আয়ুষ্কাল (২০ বছর হিসেবে) শেষ হয়ে গেছে।

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...