সাইনাসের ব্যথা অনেকেরই পরিচিত। ছবি: প্রিয়.কম, মডেল: ফারহানা

সাইনাসের সমস্যা দূর করুন ঘরোয়া উপায়ে

এই ব্যথা কিন্তু আপনি ঘরোয়া কিছু উপায়েই কমিয়ে আনতে পারেন।

কে এন দেয়া
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ১৯ মার্চ ২০১৯, ১৩:৫৩ আপডেট: ১৯ মার্চ ২০১৯, ১৩:৫৩
প্রকাশিত: ১৯ মার্চ ২০১৯, ১৩:৫৩ আপডেট: ১৯ মার্চ ২০১৯, ১৩:৫৩


সাইনাসের ব্যথা অনেকেরই পরিচিত। ছবি: প্রিয়.কম, মডেল: ফারহানা

(প্রিয়.কম) মাথা থাকলে মাথাব্যথাও হবে। বিভিন্ন ধরনের মাথাব্যথায় ভুগতে হয় আমাদেরকে, মাইগ্রেইন, সাইনুসাইটিস, ঘুম না হওয়ায় মাথাব্যথা, স্ট্রেসে থাকার কারণে মাথাব্যথা ইত্যাদি। সাইনুসাইটিস বা সাইনাসের ব্যথা অনেকেরই পরিচিত। সাইনাস ইনফেকশন হলে কপাল ও মুখ জুড়ে চাপ চাপ ব্যথায় অনেকেই নাকাল হয়ে যান। পড়াশোনা বা কাজ কোনোটাই করা যায় না সাইনাসের ব্যথায় ভুগলে। এই ব্যথা কিন্তু আপনি ঘরোয়া কিছু উপায়েই কমিয়ে আনতে পারেন। দেখে নিন এমনই ৭টি উপায়-

১) আদা

যে কোনো ছোটখাটো ব্যথা দূর করতেই আদা কাজে আসে। সাইনাসের ব্যথাও দূর করতে পারে পরিচিত এই মশলাটি। আদা ফুটিয়ে চা তৈরি করে নিতে পারেন, তা দ্রুত মাথাব্যথার উপশম করে। এতে নাকের জমে থাকা সর্দিও বের হয়ে যায় ও আরাম দেয়।

২) স্যালাইন স্প্রে

নাকের ভেতরে দেওয়ার একধরনের স্যালাইন সলিউশন পাওয়া যায়। এটা নাকের ভেতরে স্প্রে করলে নাক খালি হয়ে যাবে এবং আপনি অনেকটা আরাম পাবেন।

৩) গরম পানির সেঁক

সাইনাসের ব্যথা কমানোর আরেকটি উপায় হলো মুখে গরম পানির সেঁক দেওয়া। পেটে, পিঠে সেঁক দেওয়া আমাদের পরিচিত হলেও মুখে সেঁক দেওয়ার ব্যাপারটা জানেন না অনেকেই। এ কাজটিতে জমে থাকা সর্দি চলে যায় ও ব্যথার উপশম হয়। তবে সাবধানে থাকুন যেন অতিরিক্ত গরমে ত্বক পুড়ে না যায়।

৪) গরম পানিতে গোসল

গরম পানিতে গোসল করা ও বুক ভরে নিশ্বাস নেওয়াটা সাইনাস পরিষ্কার করতে কাজে লাগে। স্যালাইন স্প্রেয়ের মতোই তা কাজ করে। সকাল সকাল গরম পানিতে গোসল করলে মাথাব্যথা কমে আসবে।

মরিচে থাকা ক্যাপসাইসিন নামের উপাদানটি প্রাকৃতিকভাবে ব্যথা কমায়। ছবি: প্রিয়.কম

৫) ঝাল খাবার

ঝাল খাবার খাওয়ার পর নাক-মুখ দিয়ে পানি বের হতে থাকে? এই কাজটি আসলে সাইনাসের জন্য উপকারী। সাইনাসের মাথাব্যথা দূর করতে বেশ ঝাল দিয়ে খাবার খান। এতে যেমন নাক দিয়ে সর্দি বের হয়ে মাথাব্যথা দূর করবে, তেমনি মরিচের ক্যাপসাইসিন প্রাকৃতিকভাবে ব্যথাও দূর করবে।

৬) দারুচিনি

দারুচিনিতেও আদার মতো ব্যথা দূর করার বৈশিষ্ট্য রয়েছে। মধুর সাথে অল্প দারুচিনি গুঁড়ো মিশিয়ে খেতে পারেন। এর পাশাপাশি অল্প পানিতে মিশিয়ে দারুচিনি গুঁড়োর পেস্ট তৈরি করে তা কপালে মেখে দেখতে পারেন, এতেও অনেকের ব্যথা কমে আসে।

৭) সাধারণ ব্যথার ওষুধ

খুব তীব্র ব্যথা হলে প্যারাসিটামল বা হালকা পেইনকিলার খেয়ে দেখতে পারেন। এসব ওষুধের জন্য প্রেসক্রিপশন লাগে না। কিন্তু এই ওষুধ খাওয়ার আগে ঘরোয়া উপায়গুলো প্রয়োগ করে দেখুন। কারণ নিয়মিত এসব ওষুধ খাওয়া শরীরের জন্য ক্ষতিকর।

সূত্র: রিডার্স ডাইজেস্ট

প্রিয় লাইফ/আশরাফ