জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘স্বাধীনতা ও সাম্প্রতিক রাজনীতি’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় এ মন্তব্য করেন তিনি।

‘আমাদের স্বাধীনতা পরাধীনতার শামিল’

মান্না বলেন, ‘আমাদের দেশে উন্নতি মানে শুধু জিডিপির অংক। এটা জবলেস জিডিপি। আমাদের বুঝতে হবে যে, এটা শুধু একটা পরিসংখ্যান ও সংখ্যা। জিডিপির উন্নতি দিয়ে দেশ ও জাতির উন্নতি হয় না।’

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ২৭ মার্চ ২০১৯, ১৫:৪৬ আপডেট: ২৭ মার্চ ২০১৯, ১৬:০১
প্রকাশিত: ২৭ মার্চ ২০১৯, ১৫:৪৬ আপডেট: ২৭ মার্চ ২০১৯, ১৬:০১


জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘স্বাধীনতা ও সাম্প্রতিক রাজনীতি’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় এ মন্তব্য করেন তিনি।

(প্রিয়.কম) মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে আমরা যে স্বাধীনতা পেয়েছি তা বর্তমান সময় এসেছে পরাধীনতার শামিল হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না

২৭ মার্চ, বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘স্বাধীনতা ও সাম্প্রতিক রাজনীতি’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় এ মন্তব্য করেন তিনি। 

নাগরিক ঐক্য আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মান্না বলেন, ‘আমাদের স্বাধীনতা পরাধীনতার শামিল। আমাদের ব্যাংকের গ্যারান্টি নাই, জীবনের নিরাপত্তা নাই। আর এসবের মাঝে ক্ষমতাসীন দল বোঝাতে চাইছে যে, আমাদের জীবনযাত্রা উন্নত হচ্ছে। মূলত স্বাধীনতার পর থেকেই এই স্বাধীনতা হরণ করার প্রক্রিয়া শুরু হয়। তখনই মানুষ প্রতিবাদ করেছিলো। আর তা রুদ্ধ করার জন্য মাত্র ১১ মিনিটে সংসদে রেজুলেশন করে বাকশাল পাস করা হয়। আর বর্তমান সরকারের নেতারা এখন সেই বাকশালের প্রশংসা করছেন।’

দেশ জিডিপিতে উন্নতি করলেও কার্যত তা উন্নতি নয় দাবি করে মান্না বলেন, ‘আমাদের দেশে উন্নতি মানে শুধু জিডিপির অংক। এটা জবলেস জিডিপি। আমাদের বুঝতে হবে যে, এটা শুধু একটা পরিসংখ্যান ও সংখ্যা। জিডিপির উন্নতি দিয়ে দেশ ও জাতির উন্নতি হয় না।’

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের জোট এখনো টিকে আছে দাবি করে মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘ঐক্যফ্রন্ট টিকবে। কিছু সমালোচনা হয়েছে। তবে পরস্পরের প্রয়োজনে, লড়াই-সংগ্রামের তাগিদে এই জোট চলবে। নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসতে না পারায় কিছু হতাশা অনেকের মধ্যে কাজ করেছে। কেউ কেউ খুব নেতিবাচক কথা বলেছেন। তবে এই ঐক্য টিকবে। সামনের দিনগুলোতে আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনের কর্মসূচি নিয়ে আসব।’

ড. জাহিদুর রহমানের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় অন্যান্যদের মাঝে আরও বক্তব্য রাখেন সংবিধান বিশেষজ্ঞ ড. শাহদীন মালিক, নাগরিক ঐক্যের কেন্দ্রীয় কেন্দ্রীরা।

প্রিয় সংবাদ/কামরুল