ভক্তের আঁকা ছবিতে ইমরুল কায়েস। ছবি: সংগৃহীত

ইমরুল কায়েসের আবেগঘন বার্তা

‘আমার ১১ বছরের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে আমি সব সময় দেশ ও দেশের মানুষকে ভালো কিছু দেওয়ার চেষ্টা করেছি। কখনো আল্লাহর রহমতে সাফল্য পেয়েছি আবার ব্যর্থও হয়েছি।’

সৌরভ মাহমুদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ১৭ এপ্রিল ২০১৯, ০৯:৪৭ আপডেট: ১৭ এপ্রিল ২০১৯, ০৯:৪৭
প্রকাশিত: ১৭ এপ্রিল ২০১৯, ০৯:৪৭ আপডেট: ১৭ এপ্রিল ২০১৯, ০৯:৪৭


ভক্তের আঁকা ছবিতে ইমরুল কায়েস। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) বাংলাদেশ ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় দুর্ভাগার নাম হয়তো ইমরুল কায়েসই! কেননা জাতীয় দলের অন্য ক্রিকেটারদের মতো তিনি চোখ মেললেই অমিত সম্ভাবনা দেখেন না। বরং বাঁহাতি এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানের জীবনে সম্ভাবনা শব্দটাই বড্ড অপ্রতুল। বরাবরই জাতীয় দলে আসা-যাওয়ার মধ্য দিয়ে কাটেছে তার ক্যারিয়ার।

বিশ্বকাপের গত দুই আসরে খেলেছেন ইমরুল কায়েস। সর্বশেষ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির দলেও ছিলেন। ২০১৮ সালে বাংলাদেশের সেরা পাঁচ ব্যাটসম্যানের মধ্যে চার নম্বরে থাকলেও অভিজ্ঞ এই বাঁহাতি টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানকে বাদ দিয়েই ১৬ এপ্রিল, মঙ্গলবার বিশ্বকাপের জন্য দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

আরও একবার ভাগ্যকে পাশে পেলেন না ইমরুল। যার জেরে বিশ্বকাপ স্কোয়াড ঘোষণার পর থেকেই সমর্থকদের মধ্যে গুঞ্জন, তবে কি ক্রিকেটকেই বিদায় বলে দিবেন জাতীয় দলের হয়ে প্রায় এক যুগ ধরে ক্রিকেট খেলে যাওয়া কায়েস!

না, এখনই হাল ছাড়ছেন না ৩২ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার। দল ঘোষণার পরদিন অর্থ্যাৎ ১৭ এপ্রিল, বুধবার সকালে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে আবেগঘন এক বার্তা দিয়েছেন তিনি। যেখানে ইমরুল জানিয়েছেন, এখনই অবসর নিয়ে তার কোনো ভাবনা নেই। শুধু তাই নয়, যখনই সুযোগ পাবেন তখনই বাংলাদেশ ক্রিকেটকে কিছু দেওয়ার জন্য চেষ্টা করবেন এই ব্যাটসম্যান।

এদিন সকালে নিজের অফিশিয়াল পেজ থেকে ভক্তের আঁকা একটি ছবি পোস্ট করেছেন ইমরুল। ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘আমি একটা জিনিস কয়দিন যাবৎ লক্ষ্য করছি, আমাকে নিয়ে অনেকে পোস্ট করছেন আমি নাকি ক্রিকেট থেকে অবসর নিচ্ছি! এটা সত্যি আমার জন্য অনেক দুঃখজনক এই খবর গুলো। আমার ১১ বছরের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে আমি সব সময় দেশ ও দেশের মানুষকে ভালো কিছু দেয়ার চেষ্টা করছি! কখনও আল্লাহর রহমতে সফল হইছি আবার ব্যর্থও হইছি। তবে যদি বাংলাদেশ ক্রিকেটে ১%ও কিছু দিতে পেরে থাকি,তো আমি নিজেকে স্বার্থক মনে করি। ক্রিকেট আমার ভালোবাসা, আমি বিশ্বকাপ স্কোয়াড থেকে বাদ পড়েছি তার মানে এই না যে ক্রিকেট ছেড়ে দিবো। আমার সামনে যখনই সুযোগ আসবে বাংলাদেশ ক্রিকেটকে কিছু দেওয়ার আমি সর্বাত্মক চেষ্টা করবো। সবাই আমার পাশে থাকবেন এবং আমার জন্য দোয়া করবেন। ধন্যবাদ জানাচ্ছি আমার সকল ভক্ত ও হেটার্সদের!!

এর আগে ২০১৫ সালের বিশ্বকাপে এনামুল হক বিজয়ের বদলি হিসেবে বিশ্বকাপ খেলেছিলেন কায়েস। ২০১৮ এশিয়া কাপেও বাংলাদেশের দলে পরিবর্তন এনে ইমরুল কায়েসকে দলে নেওয়া হয়েছিলো। জাতীয় দলের হয়ে ৭৮টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলে ৩২.০২ গড়ে চার সেঞ্চুরি এবং ১৬টি ফিফটির সাহায্যে দুই হাজার ৪৩৪ রান করেন। স্ট্রাইকরেট ৭১.১০।

প্রিয় খেলা/রুহুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...