প্রতীকী ছবিটি সংগৃহীত

ভিজিএফ কার্ড নিতেও দিতে হচ্ছে উৎকোচ!

সরকার কর্তৃক ভিজিএফ কার্ড সংগ্রহে উৎকোচ দিতে গিয়ে অনেক ক্ষেত্রেই ঋণের ফাঁদে পড়ছেন দরিদ্র মানুষ।

মোক্তাদির হোসেন প্রান্তিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৭ এপ্রিল ২০১৯, ১৫:৫৮ আপডেট: ১৭ এপ্রিল ২০১৯, ১৫:৫৮
প্রকাশিত: ১৭ এপ্রিল ২০১৯, ১৫:৫৮ আপডেট: ১৭ এপ্রিল ২০১৯, ১৫:৫৮


প্রতীকী ছবিটি সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত দেশ গড়তে বিভিন্ন সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সেই ধারাবাহিকতায় হতদরিদ্রদের ভিজিডি, ভিজিএফ বা বয়স্ক ভাতার কার্ড দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু পরিতাপের বিষয়, এসব কার্ড পেতে কোথাও কোথাও উৎকোচ দিতে হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তেমনই একটি ঘটনা ঘটেছে রাজশাহীর বাঘার পাকুড়িয়া ইউনিয়নে, যেখানে সংশ্লিষ্ট কার্ড পেতে জনপ্রতিনিধিদের দিতে হয় মোটা অঙ্কের উৎকোচ।

জানা গেছে, বাঘার পাকুড়িয়া ইউনিয়নে ২৮ হাজার গ্রামবাসীর মধ্যে ভিজিডি, ভিজিএফ, বয়স্ক ভাতাসহ সরকারের সামাজিক নিরাপত্তার বিভিন্ন কর্মসূচির সুবিধা ভোগ করছেন এক হাজার ৬২৫ জন।

অভিযোগ উঠেছে, সরকার কর্তৃক ভিজিএফ কার্ড সংগ্রহে উৎকোচ দিতে গিয়ে অনেক ক্ষেত্রেই ঋণের ফাঁদে পড়ছেন দরিদ্র মানুষ। তবে সংশ্লিষ্ট অভিযুক্তরা বিষয়টি অস্বীকার করলেও অভিযোগ পেলে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থার নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।

কথা হয় রাজশাহীর বাঘা উপজেলার কিশোরপুর গ্রামের বাসিন্দা রোকেয়া বেগমের সঙ্গে। আত্মীয়স্বজনহীন বেঁচে থাকা এই প্রবীণ নারী হতাশ বয়স্ক ভাতায়।

তিনি জানান, ভিজিএফ বা বয়স্ক ভাতার জন্য এখানকার প্রতিবন্ধী, গর্ভবতী নারী বা যেকোনো প্রান্তিক মানুষ, সবাইকে গুনতে হচ্ছে টাকা; তবেই মিলছে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির সুবিধা। একই সঙ্গে টাকা দিয়ে সুবিধা পাননি এমন অভিযোগও রয়েছে। সম্প্রতি এ নিয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন ক্ষুব্ধ গ্রামবাসী।

এদিকে টাকা নেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা। চেয়ারম্যান ফখরুল হাসান বলেন, ‘এ রকম যদি কেউ আমাকে বলে যে আমি কার্ড করে দিয়েছি টাকা নিয়ে, তাহলে চেয়ারম্যান পদ ছেড়ে দিব।’ ভুক্তভোগীদের অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানালেন উপজেলা প্রশাসনের শীর্ষ এই কর্মকর্তা।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. শাহীন রেজা বলেন, ‘যদি এ ধরনের কোনো অভিযোগ সুনির্দিষ্ট আকারে এসে পৌঁছায়, তাহলে তাদের বিরুদ্ধে তদন্তসাপেক্ষে আমাদের জেলা প্রশাসক মহোদয় বরাবর ব্যবস্থা নিতে বলা হবে।’

প্রিয় সংবাদ/আজাদ চৌধুরী

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

১ গাভী থেকে ১২৮টি গাভী

প্রিয় ২৩ ঘণ্টা, ২৯ মিনিট আগে

loading ...