আহমেদ আল মামুন চট্টগ্রামের কোতোয়ালি থানার কোরবানীগঞ্জ গ্রামের শহীদ মোহাম্মদ উল্যাহর ছেলে। ছবি: সংগৃহীত

নুসরাত হত্যার বিচার চেয়ে গ্রামে গ্রামে ঘুরছেন এই যুবক

নুসরাত ১০ এপ্রিল রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতলের বার্ন ইউনিটে মারা যান।

মোক্তাদির হোসেন প্রান্তিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২০ এপ্রিল ২০১৯, ১০:৪৩ আপডেট: ২০ এপ্রিল ২০১৯, ১০:৪৩
প্রকাশিত: ২০ এপ্রিল ২০১৯, ১০:৪৩ আপডেট: ২০ এপ্রিল ২০১৯, ১০:৪৩


আহমেদ আল মামুন চট্টগ্রামের কোতোয়ালি থানার কোরবানীগঞ্জ গ্রামের শহীদ মোহাম্মদ উল্যাহর ছেলে। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদরাসার শিক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফি হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সব আসামির গ্রেফতারের দাবিতে গায়ে চিকা মেরে গ্রামে গ্রামে ঘুরে বেড়াচ্ছেন আহমেদ আল মামুন নামে চট্টগ্রামের এক ব্যবসায়ী।

আহমেদ আল মামুন চট্টগ্রামের কোতোয়ালি থানার কোরবানীগঞ্জ গ্রামের শহীদ মোহাম্মদ উল্যাহর ছেলে। তিনি নুসরাত জাহান রাফি হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সব আসামি গ্রেফতার না হওয়া পর্যন্ত এই প্রতিবাদ অব্যাহত রাখবেন বলেও জানা গেছে।

মামুন বলেন, ‘গত ১৬ এপ্রিল থেকে সোনাগাজীতে অবস্থান করছি। গায়ে চিকা মেরে এলাকার বিভিন্ন অলি-গলি, হাঁট-বাজার ও বাড়ি বাড়ি ঘুরছি। নুসরাত হত্যাকাণ্ডের বিচার চেয়ে করা বিভিন্ন সংগঠনের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচিতেও অংশগ্রহণ করেছি।’ এই হত্যাকাণ্ডে ২৫ জন আসামি জড়িত আছে বলে সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে।

উল্লেখ্য, অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে ২৭ মার্চ আনা যৌন হয়রানির অভিযোগ প্রত্যাহার করতে রাজি না হওয়ায় নুসরাতকে ৬ এপ্রিল মাদরাসার ছাদে ডেকে নিয়ে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় মুখোশধারী দুর্বৃত্তরা। শরীরের ৮০ শতাংশ পুড়ে যাওয়া নুসরাত ১০ এপ্রিল রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতলের বার্ন ইউনিটে মারা যান।

প্রিয় সংবাদ/রুহুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...